ফাইভজির জন্য তৈরি হচ্ছে বিটিসিএল

5G-techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে ফাইভজির জন্য উপযুক্ত নেটওয়ার্ক তৈরিতে কাজ করছে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি লিমিটেড বা বিটিসিএল।

ফাইভজির জন্য দেশ জুড়ে যে উপযুক্ত সক্ষমতার বিস্তৃত ও নিরবিচ্ছিন্ন  ফাইবার অপটিকের প্রয়োজন হবে তা প্রস্তুত করতে ইতোমধ্যে প্রকল্প নিয়েছে কোম্পানিটি। 

‘ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্কের ক্যাপাসিটি উন্নয়ন ও রিডানডেন্সি বৃদ্ধিকরণ (৫জি রেডিনেস)’ নামে এই প্রকল্প ২০২৩ সালের মধ্যে বাস্তবায়ন লক্ষ্য রয়েছে। প্রকল্পটিতে বরাদ্দ প্রস্তাব করা হয়েছে ১ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা।  

মঙ্গলবার রাজধানীতে বিটিসিএল কার্যালয়ে টেলিকম খাতের সাংবাদিকদের সঙ্গে  ‘বিটিসিএলের ব্র্যান্ডিং এবং গণমাধ্যম’ শীর্ষক কর্মশালায় এ তথ্য জানান কোম্পানিটির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

কর্মশালায় ছিলেন বিটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রফিকুল মতিন, উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ .কে. এম হাবিবুর রহমান ও আসাদুজ্জামান চৌধুরী এবং চিফ জেনারেল ম্যানেজার মো. আলিমুজ্জামান।

মো. রফিকুল মতিন বলেন, ‘এখন বিভিন্ন জেলায় সর্বোচ্চ ১ জিবিপিএস ক্যাপাসিটির ব্যান্ডউইথ গ্রাহক পর্যায়ে পৌঁছে দিতে পারি, এর বেশি পারি না এখন। এর বাইরে নিজস্ব রিসোর্স ব্যবহার করে ইতোমধ্যে ৮-৯টা জেলায় ১০ জিবিপিএসে আপগ্রেড করা হয়েছে। এখানে কিছু কিছু জায়গায় আন্ডার ইউটিলাইজ রিসোর্স ছিল সেগুলোকে ইউটিলাইজ করার চেষ্টা করা হচ্ছে’

তিনি বলেন, ‘এমওটিএন প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতি জেলায় ব্যান্ডউইথ পাওয়া যাবে ১০জিবিপিএসে করে। এই প্রকল্প নেয়া হয়েছিলো ২০১৫ তে। আর শুরু করতে পেরেছি ২০১৯ এর জানুয়ারিতে। মানে ২০১৫ সালে যখন প্রকল্প নেয়া হয়েছে তখন ধারণা করা হয়েছে যে ১০ জিবিপিএস মানে অনেক কিছু, অনেক ব্যান্ডউইথ’

‘কিন্তু এখন একেকজন গ্রাহক জেলা পর্যায়ে আড়াই জিবিপিএস করে চাচ্ছে। এখন মাত্র ১০টা গ্রাহক যদি ব্যান্ডউইথ চায় তাহলে তাতে ২৫জিবিপিএস প্রয়োজন হবে। এটা দেওয়ার সক্ষমতা কিন্তু এখন নেই। বাংলাদেশে টেলিকমিউনিকেশনে যে ট্রান্সফরমেশন হয়েছে এটা কিন্তু মিরাকল। এই মিরাকলের সাথে আগে প্লানিং করে ম্যাচ করা যায়নি। তাই এমওটিএন প্রকল্প ২০১৯ ও ২০২০ সালে সমৃদ্ধ করা হয়েছে’ বলছিলেন তিনি।

বিটিসিএল এমডি বলেন, ‘এখন ফোকাস করা হচ্ছে জেলা পর্যায়ে ৩০০ জিবিপিএস নিয়ে যেতে আর উপজেলায় ১০০ জিবিপিএস । তাহলে ২০৩০ সাল পর্যন্ত কাজ চালিয়ে নেয়া যাবে। এখন আমাদের ফাইভজি আসলে কী হবে, সেই প্রস্তুতিটা এখনই নিতে হবে।

এডি/২০২০/ফেব্রুয়ারি০৪/১৯০০

আরও পড়ুন –

দেশে ফাইভজি যন্ত্রপাতি, যেভাবে কাজ করে সেগুলো 

ফাইভজির বাজারে সেরা হুয়াওয়ে ও স্যামসাং

আয় কমছে, টানা লোকসানে ব্যাকফুটে বিটিসিএল

*

*

আরও পড়ুন