Header Top

হুয়াওয়ের হাতেই হবে ব্রিটিশ ফাইভজি নেটওয়ার্ক

হুয়াওয়ের ফাইভজি টাওয়ার। ছবি : ইন্টারনেট
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাপক হুমকিকে পাশ কাটিয়ে শেষ পর্যন্ত হুয়াওয়েকেই ফাইভজি নেটওয়ার্ক উন্নয়নের দায়িত্ব দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

চীনা টেক জায়ান্টটিকে পঞ্চম প্রজন্মের দ্রুত গতির ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক তৈরির বিষয়ে কাজ দেওয়ার বিষয়ে ইতিবাচক সংকেত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

একই সঙ্গে কোম্পানিটিকে নিষিদ্ধ করার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের তদবিরকে ‘বিরক্তিকর’ বলেও উল্লেখ করেন জনসন।

দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জানানো হয়, ফাইভজি নেটওয়ার্কের বড় অংশ গড়ে তােলার বিষয়ে হুয়াওয়েকে কাজ দেবে।

ফোন ও প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি পৃথক বিবৃতিতে এ সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে।

তবে যুক্তরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট অব কালচার, মিডিয়া ও স্পোর্টসের তরফ থেকে বলা হয়, হুয়াওয়েকে ফাইভজি অবকাঠামোর স্পর্শকাতর স্থানগুলো থেকে দূরে রাখা হবে। তারা পুরো অবকাঠামোর মাত্র ৩৫ শতাংশের কাজ করবে।

দেশটির ডিজিটাল সেক্রেটারি মরগান বলেন, দ্রুততর সময়ের মধ্যে সর্বশেষ প্রযুক্তির যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন করা হবে। তবে নিঃসন্দেহে তা জাতীয় নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলে নয়। তাই ‘হাই রিস্ক ঠিকাদারদের’ নেটওয়ার্কের গুরুত্বপূর্ণ স্থান থেকে দূরে রাখা হবে।

যুক্তরাজ্যের এমন সিদ্ধান্তের কঠোর সমালোচনা করেছে ট্রাম্প প্রশাসন। এর ফলে দুই দেশের মধ্যে তথ্য আদান-প্রদান ও বাণিজ্য সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বলেও অনুমান করছেন বিশ্লেষকরা।

যুক্তরাষ্ট্র মনে করে, হুয়াওয়ের ফাইভজি অবকাঠামোর মাধ্যমে যুক্তরাজ্যের ওপর গোয়ান্দাগিরি চালাতে একটি ‘ব্যাক ডোর’ পেয়ে যাবে চীন। ফলে ঝুঁকির মুখে পড়বে ইউএস-ইউকে গোয়েন্দা সম্পর্ক।

যদিও যুক্তরাজ্যের নিয়োগ করা স্বাধীন পরামর্শকরা হুয়াওয়ের ডিভাইসগুলোতে কোনো নিরাপত্তা হুমকির কিছু পাননি।

তাই সমালোচকদের উপর ব্যাপক চটেছেন বরিস জনসন। তিনি তাদের কাছ থেকে বিকল্পও জানতে চান। তিনি মনে করেন, যুক্তরাজ্যের জনগণের সবচেয়ে আধুনিক প্রযুক্তির সুবিধা নেওয়ার অধিকার রয়েছে।

এমআর/আরআর/৩০ জানুয়ারি/২০২০/১৮৩৬

আরও পড়ুন – 

ফাইভজির বাজারে সেরা হুয়াওয়ে ও স্যামসাং 

হুয়াওয়েকে নিষিদ্ধ করা বোকামি 

গুগল ম্যাপসের বিকল্প আনছে হুয়াওয়ে

*

*

আরও পড়ুন