Header Top

পাত্র-পাত্রীকে হাতের মুঠোয় আনছে বিয়েটা

বিয়েটা ডটকমের মাধ্যমে পাত্র-পাত্রী খুঁজে নেওয়া যায়। ছবি : সৌজন্যে
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : একটা বেসরকারি কোম্পানিতে সিনিয়র এক্সিকিউটিভ হিসেবে কাজ করেন শুভ। আয় রোজগার ভালোই।

বেশ কিছু দিন পরিবার থেকে বিয়ের চাপ ঠেকিয়েছেন। শেষ দিকে তারও মনে জাগলো ঘর সংসার করার কথা। তাই নামলেন পাত্রীর খোঁজে। কিছু দিন এদিক সেদিক দেখার পর একটি ওয়েবসাইটের ঠিকানা পেলেন। নাম বিয়েটা ।

বিয়েটা থেকে পেয়েও গেলেন নিজের পছন্দ মতো একজনকে।

পাত্র-পাত্রীর দেশি সাইট বিয়েটা ডটকমে ঢুঁ মারার পর শুভ সহজেই নিজের একটি প্রোফাইল বানিয়ে ফেললেন। কিছুটা সময় ঘাটাঘাটির পর মনি নামের একটা প্রোফাইলে চোখ আটকালো। শুধু চোখ না, সেই মনি থেকে আর দৃষ্টি ফেরাতে পারেননি শুভ।

এরই মধ্যে দুজনের ফোনে কথা হয়, বোঝাপড়াও হয়। আর পছন্দগুলো মিলে যাওয়ায় পরিবারের সম্মতিতে শুভ কাজ সারতেও বেশি সময় লাগেনি তাদের।

শুধু যে শুভ-মনি তা নয়, এমন অনেক দম্পতির গাঁটছড়া বাঁধার মাধ্যম এই বিয়েটা ডটকম। এর শুরুটা হয়েছিল ২০১৫ সালে। ধীরে ধীরে পরিসর বাড়ছে, সাড়াও বেশ ভালো। সংসারের নতুন যাত্রায় সফলতার হারও বেশ বলে দাবি উদ্যোক্তাদের।

বিয়েটার মূল প্রতিষ্ঠান ন্যাসেনিয়া লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী ও বিয়েটার প্রডাক্ট ম্যানেজার শায়ের হাসান বলেন, বছর পাঁচেক আগে তারা বিয়েটা ডটকম শুরু করেন। এরপর ধীরে ধীরে আজকের অবস্থায় এসেছে।

বর্তমানে সাইটটিতে সম্ভাব্য পাত্র-পাত্রীর ভেরিফায়েড প্রোফাইলের সংখ্যা ৪০ হাজারের বেশি। এ সেবা শুরুর সঙ্গে জড়িত উদ্যোক্তারা জানান, তারা এমন একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরির চেষ্টা করছেন, যেখানে পাত্র-পাত্রীর পরিচিত হবার প্রক্রিয়াটি সহজ ও নিরাপদ হবে।

যেসব সেবা রয়েছে

অনলাইনে সপ্তাহের সাত দিনই সেবা পাওয়া যায়। সেখানে প্রোফাইল তৈরির পরামর্শ দেওয়া হয়। এমনকি চাহিদা সাপেক্ষে পাত্র-পাত্রীর খোঁজ দেওয়ার সেবাও দেয় বিয়েটা ডটকম।

ফেইসবুক পেইজের মাধ্যমে সহযোগিতা এবং গোপনীয়তা ও বিশ্বস্ততার নিশ্চয়তা দেয় প্রতিষ্ঠানটি।

এসব সাইটে দেশের অনেকে আস্থা রাখতে পারেন না বলে ব্যবহারে ভয় পান। নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকে বলেও মনে করেন অনেকে। তাদের সেই ভয় কাটানোর জন্য নিরাপত্তা ও গোপনীয়তার শতভাগ নিশ্চয়তা দেবার কথা জানান বিয়েটার শায়ের হাসান।

অনেকেই বিয়েটার মাধ্যমে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন। ছবি : সৌজন্যে

বিয়েটার সেবা পেতে হলে আগ্রহীদের সাইটে নির্দিষ্ট ফরমে প্রোফাইল খুলতে হবে। রেজিস্ট্রেশন করতে একটি মেইল আইডি এবং ফোন নম্বর প্রয়োজন। এরপর পাত্র অথবা পাত্রী দুইটি ধাপ সম্পন্ন করলে পরস্পর যোগাযোগ করতে পারেন। প্রাইভেসির জন্য দুটি ধাপ রাখা হয়েছে। 

সাইটে একটি ফ্রিসহ তিনটি প্যাকেজ রয়েছে। সব সেবা পেতে সিলভার, গোল্ড ও প্লাটিনাম প্যাকেজ সাবস্ক্রাইব করতে হবে।

সিলভার প্যাকেজ কিছু শর্ত সাপেক্ষে দুই হাজার টাকায় দুই মাস ব্যবহার করা যাবে। সর্বোচ্চ ২৫ জনকে রিকোয়েস্ট পাঠানো যাবে।

চার হাজার ৯৯৫ টাকার গোল্ড প্যাকেজের মেয়াদ ছয় মাস। এখানে রিকোয়েস্ট পাঠানোর সংখ্যা ৬০।

প্লাটিনাম সাবস্ক্রাইবাররা নয় মাসের জন্য সেবা পাবেন সাত হাজার ৯৯৫ টাকায়। এতে ১০০টি পর্যন্ত রিকোয়েস্ট করা যাবে।

শায়ের হাসান বলেন, এমন বিশেষ সাইট সবাই ব্যবহার করেন না। যারা বিয়ের বিষয়ে সিরিয়াস শুধু তারাই এমন সাইট ব্যবহার করেন। বিশেষ একটি অ্যালগরিদম ব্যবহার করার কথা জানিয়ে এ কর্মকর্তা আরো বলেন, এটি হলাে ম্যাচমেকিং অ্যালগরিদম। পাত্র-পাত্রীদের পছন্দ ও পরস্পরের বৈশিষ্ট্য মিলে গেলে এটির মাধ্যমে তাদের প্রোফাইল কাছাকাছি দেখায়।

বাধাও আছে

সাধারণ আর দশটি সাইটের মতো নয় বিয়েটা। তাই কিছু বাধার মুখেও পড়তে হয়। এটি দেশে এখনও এমন সাইট মেইনস্ট্রিম হয়ে না ওঠায় ভারতের জনপ্রিয়তা পায়নি। তাদের তুলনায় একেবারে শুরুর পর্যায়ে বলে মনে করেন শায়ের হাসান। প্রধান সমস্য হলো মানসিকতা। অনলাইনে পাত্র-পাত্রী দেখে বিয়ে করাটাকে এখনো স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেন না অনেকে।

গ্রাহকের বিশ্বাস অর্জন এবং প্রয়োজনীয় বিনিয়োগ পেলে এটিকে মেইনস্ট্রিমে আনা সম্ভব বলে মনে করেন তিনি।

রয়েছে ব্লগ

বিয়েটায় এসব ছাড়াও রয়েছে ব্লগ সার্ভিস। যেখানে বিয়ে, দাম্পত্য, সম্পর্ক, ভালোবাসাসহ বিভিন্ন বিষয়ে ব্লগ রয়েছে। এ সব বিষয়ে প্রয়োজনীয় তথ্য মিলবে এখান থেকে ।

ওয়েবসাইট ছাড়াও মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করেও যে কেউ বিয়েটা ডটকমের সেবা নিতে পারবেন। রয়েছে বিয়েটার একটি অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ। আইওএস অ্যাপটিও আসবে শিগগির।

ইএইচ/ জানু ২৬/ ২০২০/ ১৩৪০

*

*

আরও পড়ুন