ফাইভজির দেখা মিলবে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলায়

ছবি : ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফাইভজি প্রযুক্তি কীভাবে কাজ করে তা সরাসরি দেখা যাবে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলায়।

ফাইভজির টাওয়ার, ডিভাইস নেটওয়ার্কিংসহ এই প্রযুক্তি বিস্তারিত তুলে ধরা হবে এতে। ফাইভজি ছাড়াও মেলা বিভিন্ন ভবিষ্যত প্রযুক্তি ও ডিজিটাল ডিভাইস উপস্থাপন করা হবে।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ১৬ জানুয়ারি হতে শুরু হচ্ছে এই মেলা যা চলবে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত।

মেলা উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বুধবার এক সংবাদ সংম্মেলনে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার জানান, ডিজিটাল প্রযুক্তি উদ্ভাবন, উপযোগী মানবসম্পদ সৃষ্টি, ডিজিটাল প্রযুক্তির আধুনিক সংস্করণের সাথে জনগণের সেতুবন্ধন তৈরি এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বাস্তবায়নের অগ্রগতি তুলে ধরাই মেলার অন্যতম মূল লক্ষ্য।

এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব নূর-উর-রহমান এবং বিটিআরসি চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক।

মন্ত্রী জানান, প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব আহমেদ ওয়াজেদ জয় বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় এই মেলার উদ্বোধন করবেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন মোস্তাফা জব্বার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ কে এম রহমতুল্লাহ এবং  ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব  নূর-উর-রহমান।

এই মেলার আয়োজক ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ। সহযোগিতায় রয়েছে বিটিআরসি, বিটিসিএল, টেলিটক, বিএসসিসিএল, বিসিএসসিএল, ডাক বিভাগ ও ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারদের সংগঠন আইএসপিএবি।

মেলার মূল প্রতিপাদ্য ‘বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার প্রযুক্তির মহাসড়ক’।

মেলায় বিভিন্ন তথ্যপ্রযুক্তি ও আইএসপিসহ ৮২টি প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে। প্যারেন্টাল কন্ট্রোল, ট্রিপল প্লে (এক ক্যাবলে ল্যান্ডফোনের লাইন, ইন্টারনেট ও ডিশ সংযোগ), মোবাইল অ্যাপস, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সেবা ও প্রযুক্তি ইত্যাদি প্রদর্শন করা হবে। ওয়ালটন, স্যামসাং, সিম্ফনির মতো প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের উৎপাদিত পণ্য দেখাবে, দেশী সফটওয়্যার কোম্পানিগুলো তাদের তৈরি সফটওয়্যার ও সেবা উপস্থাপন করবে।

এছাড়া মোবালই অপারেটরগুলো তাদের ভয়েস, ইন্টারনেট ও মূল্য সংযোজিত সেবা (ভ্যাস) দেখাবে। জেডটিই, হুয়াওয়ে, নকিয়া, এরিকসন ফাইভজি ও তার সাথে সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তি প্রদর্শন করবে, তারা লাইভ অনুষ্ঠানসহ এর ব্যবহার উপযোগিতা ‍তুলে ধরবে।

মেলায় শিশুদের প্রোগ্রামিং ও রোবটিক্স শিক্ষা, টেলিমেডিসিন ও টেলিকম বিভাগের প্রতিষ্ঠানসমূহের সেবা প্রদর্শিত হবে।

থাকবে ডিজিটাল উদ্যোক্তা সম্মেলন, রচনা ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে অবদানের জন্য ১৪টি ক্যাটাগরিতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে সম্মাননা দেওয়া হবে।

মেলায় ১৩টি সেমিনারে সরকারের মন্ত্রী, দেশি ও বিদেশি বিশেষজ্ঞ বক্তারা বর্তমানের প্রযুক্তি ও আগামী দিনে প্রযুক্তির গন্তব্য নিয়ে বলবেন। আলোচনা করবেন  ট্যালেন্ট গ্যাপ, ডিজিটাল অর্থনীতি, ডিজিটাল গ্রোথ, স্মার্ট সিটি, এসডিজির অ্যাচিভমেন্ট ইত্যাদি বিষয়ে।

২৫টি স্টল, ২৯টি মিনি প্যাভিলিয়ন ও ২৮টি প্যাভিলিয়ন নিয়ে হবে মেলা। যেখানে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলো তাদের ডিজিটাল অগ্রগতি তুলে ধরবে। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে থাকবে পৃথক কর্নার। সেই কর্নারে প্রযুক্তির মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর জীবনী তুলে ধরা হবে।

মেলা চলবে প্রতিদিন সকাল ১০ টা হতে রাত ৮টা পর্যন্ত। মেলা সকলের জন্য উম্মুক্ত।

মেলায় ঢুকতে  www.digitalbangladeshmela.org.bd ঠিকানায় গিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। মেলার ভেন্যুতেও তাৎক্ষণিক নিবন্ধনের ব্যবস্থা থাকবে।

এডি/২০২০/ডিসেম্বর১৫/১৬০০

*

*

আরও পড়ুন