রবিকে ১৩৮ কোটি টাকা দিতে আদালতের নির্দেশ

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : পাঁচ মাসে সমান কিস্তিতে ১৩৮ কোটি টাকা দিতে রবিকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

অডিট আপত্তিতে বিটিআরসিতে দাবি করা মোট পাওনা ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকার মধ্যে আপাতত এই টাকা পরিশোধ করতে হবে অপারেটরটিকে। প্রথম কিস্তি দিতে হবে ৩০ জানুয়ারির মধ্যে।

একইসঙ্গে আদালত অপারেটরটির বন্ধ থাকা এনওসি দিতে বলেছেন।

রোববার বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

শুনানিতে রবির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী তানজীব উল আলম ও কাজী এরশাদুল আলম।। বিটিআরসির পক্ষে শুনানি করেন খন্দকার রেজা-ই-রাকিব।

শুনানি শেষে খন্দকার রেজা-ই-রাকিব সাংবাদিকদের জানান, এর আগে গ্রামীণফোনের বিষয়ে আপিল বিভাগের আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট রবির ক্ষেত্রেও আনুপাতিক হিসাব করে এই পরিমান টাকা দিতে বলেছেন।

রবি যদি ১৩৮ কোটি টাকার কিস্তি পরিশোধ না হলে আদালতের এই আদেশ প্রত্যাহার হয়ে যাবে।

আরও পড়ুন  –  লাইসেন্স বাতিলের শোকজের জবাবে আইন-আদালত দেখাল জিপি-রবি

রবির চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অফিসার সাহেদ আলম বলেন,  নিরীক্ষা দাবির বিষয়ে অন্য একটি অপারেটরের ক্ষেত্রে মহামান্য সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগ যে আদেশ দিয়েছেন তার আলোকে আজ মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগ রবির আপিলের বিষয়ে একটি আদেশ দিয়েছেন। একটি ভিত্তিহীন ও বিরোধপূর্ণ নিরীক্ষা প্রতিবেদনের ভিত্তিতে যে দাবি আমাদের কাছে করা হচ্ছে, তার ওপর মহামান্য হাইকোর্ট যে স্থগিতাদেশ দিয়েছেন সে জন্য রবি কৃতজ্ঞ। যদিও অন্তর্বর্তীকালীন আদেশের শর্তানুযায়ী অর্থ পরিশোধের যে নির্দেশনা আছে সেটি নজিরবিহীন এবং হতাশাজনক।

এই পাওনা দাবি আদায়ে ২০১৯ সাল জুড়েই নানা পদক্ষেপ নিতে থাকে বিটিআরসি। যেখানে ব্যান্ডইউথ ক্যাপাসিটি ব্লক, এনওসি বন্ধ, লাইসেন্স বাতিলে কারণ দর্শানো নোটিশের মতো ব্যবস্থা রয়েছে।

এরমধ্যে  ঢাকার দেওয়ানি আদালতে মামলা করে রবি। আর এটি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত পাওনা আদায়ে অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা চেয়ে আবেদন করে তারা। নিম্ন আদালত রবির এই আবেদন আবেদন খারিজ করে দেন। এরপর অপারেটরটির এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করে রবি, যার রায় কয়েকবার পিছিয়ে রোববার হলো।

অডিট আপত্তির একই ইস্যু রয়েছে জিপির। দুটি অপারেটরেরই মামলা-মকদ্দমাসহ নানা ইস্যুর এসব জটিলতার মধ্যে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামালও বিষয়টি সুরাহার উদ্যোগ নিয়েছিলেন। কিন্তু কোনো সুরাহা না হলে সবশেষে জিপি-রবিতে প্রশাসক বসানোর সিদ্ধান্ত পর্যন্ত নেয়া হয়েছিল।

এডি/২০২০/ডিসেম্বর০৫/১৫০০

আরও পড়ুন

অডিটের মামলা তুলে নিতে চাইছে রবি 

‘বকেয়া বিরোধে’ ১৫ কোটি ডলার বিনিয়োগ হাতছাড়া রবির

*

*

আরও পড়ুন