বিদেশি ভয়েস কল খেয়ে ফেলছে হোয়াটসঅ্যাপ-ইমো

whatsapp-techshohor
ছবি : ইন্টারনেট থেকে নেওয়া
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : হোয়াটসঅ্যাপ, ভাইবার, ইমো, ম্যাসেঞ্জারসহ কমিউনিকেশন্স অ্যাপগুলো বিদেশি ভয়েস কল খেয়ে ফেলছে।

সাধারণত বিদেশে কল আসা বা বিদেশ থেকে প্রবাসীদের দেশে কল করা দুটোই অনেক খরচের ব্যপার। রেট কয়েক দফায় অনেক কমানোর পরেও প্রতি মিনিট কথা বলার জন্যে এখনও কয়েক টাকা করে খরচ হয়।

কিন্তু সেই তুলানায় কমিউনিকেশন্স অ্যাপ ব্যবহার করে কথা বললে শুধু ডেটা ব্যবহারের খরচ। সেটিও প্রতি মিনিটের জন্যে নামকাওয়াস্তের হিসাব।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের তুলনায় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বিদেশ থেকে আসা কলের পরিমাণ প্রায় ৪০ শতাংশ কমে গিয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের হিসাব অনুসারে, সর্বশেষ অর্থ বছরে সব মিলে প্রায় এক হাজার ২১৩ কোটি মিনিটের কল বিদেশ থেকে এসেছে। যা আগের অর্থবছরেও ছিল এক হাজার ৯৯০ কোটি মিনিট। এটি আগের কয়েক বছরের সঙ্গে তুলনায় গেলে আরও খারাপ পরিস্থিতি বেরিয়ে আসবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বিদেশ থেকে আসা কল যেমন কমছে একইভাবে বাংলাদেশ থেকে আগে যে হারে কল বিদেশে যেতো সেটিও অনেক কমে গেছে।

এমনিতেই বাংলাদেশ থেকে বিদেশে যাওয়া কলের পরিমাণ আগে থেকেই অনেক কম ছিল। এখন সেটি আরও কমে গেছে।

বিদেশ থেকে আসা কলের চিত্র। ছবি : টেকশহর

খোদ বিটিআরসির কর্মকর্তাদের মতে কমিনিউকেশন্স অ্যাপ এখন আর কেবল বিদেশি কল কমিয়ে দেওয়া নয় বরং তারা দেশিয় কলের ওপরও হাত বাড়িয়েছে।

দেশের মধ্যেও ডেটা ব্যবহার করেন এমন গ্রাহকরা আর সাধারণ ভয়েস কলে কথা বলতে অনাগ্রহী। মূলত বাড়তি খরচ কমানোই তাদের প্রধান লক্ষ্য-এমন অভিমত সংশ্লিষ্টদের।

তারা বলছেন, সাধারণ মানুষের প্রযুক্তি ব্যবহারের দক্ষতা আগের চেয়ে বেড়েছে যেটি খুবই ভালো লক্ষণ। আর এ কারণে তারা বিদেশে যোগাযোগের ক্ষেত্রে খরুচে ভয়েস কলের ওপর নির্ভর না করে আগের চেয়ে অনেক বেশি স্মার্টফোন নির্ভর অ্যাপ ব্যবহার করছেন।

বিটিআরসির হিসাব অনুসারে, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরেও দিনে গড়ে বিদেশ থেকে কল এসেছে পাঁচ কোটি ৪৫ লাখ মিনিট। ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে সেটি নেমে গেছে তিন কোটি ৩২ লাখ মিনিটে।

এদিকে গত বছরও বাংলাদেশে থেকে দিনে ৫০ লাখ মিনিটের মতো কল বিদেশে যেতো এখন সেটি নেমে গেছে ২০ লাখ মিনিটে।

আর বিটিআরসির সাম্প্রতিক হিসাব বলছে, এখন গড়ে দিনে বিদেশ থেকে আসা কলের পরিমাণ দুই কোটি মিনিটের মধ্যে চলে এসেছে। সামনের দিনে এই পরিস্থিতি আরও জটিল হবে।

বর্তমানে ২৪টি আন্তর্জাতিক গেটওয়ে অপারেটর আছে যারা মূলত বৈধপথে বিদেশে কল পাঠানো বা বিদেশ থেকে কল আনার ব্যবসা করে থাকেন।

এদিকে বিটিআরসি বেশ কয়েকটি স্থানীয় কোম্পানিকে দেশের মধ্যে অ্যাপভিত্তিক কল কলার সুবিধা দিয়েছে। তাতে করে সামনের দিনে বিদেশি কলের পাশাপাশি স্থানীয় কলের পরিমাণও আগের চেয়ে কমবে।

জেডআই/এডি/২০১৯/ডিসেম্বর৩১/ ২১০০

*

*

আরও পড়ুন