নাগরিকত্ব আইন : লাইক দিয়ে বিপদে অক্ষয়

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ভারতে এখন নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বেশ অস্থিরতা বিরাজ করছে।

আইনটির বিরোধিতা করে রাস্তায় নেমেছেন আন্দোলনকারীরা। এর পাশাপাশি ফেইসবুক-টুইটারেও আইনটির পক্ষে-বিপক্ষে চলছে তুমুল আলোচনা। এমনই এক পরিস্থিতিতে ভুল পোস্টে লাইক দিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করেছেন বলিউড তারকা অক্ষয় কুমার।

রোববার আইনটির প্রতিবাদে দিল্লির জামিয়া মিল্লিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা বিক্ষোভ করলে সেখানে শুরু হয় পুলিশি হামলা। এই হামলার কিছু ভিডিও চিত্র সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম টুইটারে ছড়িয়ে পরে। এরকমই একটি ভিডিওতে দেখা যায়, পুলিশের মার থেকে বাঁচার জন্য প্রাণপণে ছুটছেন শিক্ষার্থীরা। পুলিশের নির্মম লাঠিপেটা ও মারধরের পক্ষে ব্যাঙ্গাত্মকভাবে ক্যাপশনে লেখা হয়, অভিনন্দন! জামিয়া স্বাধীনতা অর্জন করছে। ভিডিওটিতে অক্ষয় কুমার লাইক দিলে মুহূর্তেই সে পোস্টের স্ক্রিনশট ভাইরাল হয়ে যায়।

বলিউডের প্রায় সব তারকা আন্দোলনকারীদের পক্ষ নিয়ে কথা বলেও অক্ষয় কুমারের এই বিপরীত অবস্থান ভালোভাবে নেয়নি দেশটির মুসলিম কর্মী ও প্রগতিশীল জনগণ। ফেইসবুক ও টুইটারে অনেকেই তাকে মেরুদণ্ডহীন, কানাডিয়ান নাগরিক ও সরকারের চামচা বলে গালি দেন।

এই জের ধরে অক্ষয় কুমার টুইটারে আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেন, ভুল করে লাইক দিয়েছিলেন তিনি। স্ক্রল করতে করতে ভুলবশত পোস্টটির লাইক বাটনে চাপ পড়ে যায়।  ভুলে লাইক দেওয়ার বিষয়টি বুঝতে পারার সঙ্গে সঙ্গে তিনি তা আনলাইক করেন কারণ কোনোভাবেই এ ধরণের সহিংস হামলা তিনি সমর্থন করেন না।

কিন্তু আনলাইক করেও শেষ রক্ষা হয়নি। মুহূর্তের মধ্যে তার লাইক দেওয়া পোস্টটি স্ক্রিনশট ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার মুখে পড়েন তিনি।

ভারতের নাগরিকত্ব আইন সংশোধন করা হয়েছে বাংলাদেশ, পাকিস্তান এবং আফগানিস্তান থেকে আসা অমুসলিম সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দিতে। ১৯৫৫ সালের নাগরিকত্ব আইন অনুযায়ী কোনো অমুসলিম ব্যক্তি ১১ বছর ভারতে থাকলে তাকে নাগরিকত্ব দেওয়া হতো। এই আইন সংশধোন করে সময় সীমা ৫ বছরে কমিয়ে আনা হয়েছে। তবে ভারতের বাইরে থেকে আসা মুসলিম ব্যক্তিদের ব্যাপারে আইনটিতে কিছু বলা হয়নি। এতে নতুন নাগরিকত্ব আইনটিকে বৈষম্যমূলক আখ্যা দিয়ে প্রতিবাদ ও আন্দোলন চলছে দেশটিতে।

আরও পড়ুন

গুজব ঠেকাতে ইন্টারনেট বন্ধ আসামে

এনডিটিভি অবলম্বনে এজেড/ ডিসেম্বর ১৭/২০১৯/১২২৩

*

*

আরও পড়ুন