ধুঁকতে থাকা পাঠাও একীভূত হচ্ছে শিওর ক্যাশের সঙ্গে

ছবি : টেকশহর

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বিনিয়োগ না পেয়ে কিছুদিন আগে তিন শতাধিক কর্মী ছাঁটাইয়ের পর বাজার হারানোর আলোচনার মধ্যে এবার অন্য একটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে একীভূত হয়ে যাচ্ছে পাঠাও।

মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান শিওর ক্যাশের সঙ্গে এই একীভূতকরণ হচ্ছে বলে জানা গেছে। সপ্তাহখানেকের মধ্যে এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হতে পারে বলে বলছেন সংশ্লিষ্টরা।

এই পাঠাওয়ের শুরুটা ছিল সম্ভাবনাময়। সাড়াও পেয়েছিল বেশ। বিদেশি ও দেশি রাইড শেয়ারিং কোম্পানিগুলোর মধ্যে এগিয়েও গিয়েছিল পাঠাও। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নানা কারণে তা আর ধরে রাখতে পারেনি তারা।

২০১৫ সালে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে শুরু করে পরে রাইড শেয়ারিং আনে পাঠাও। বড় ওই ছাঁটাইয়ের প্রতিষ্ঠানটির বিনিয়োগকারীরাও অনেকটা আস্থাহীন হয়ে পড়েন, ফলে প্রতিষ্ঠানটির ভবিষ্যৎ নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই।

শোনা যাচ্ছিল বড় একটি বিনিয়োগকারী তাদের শেয়ার বিক্রি করে বেড়িয়ে যেতে চাইছে। কিন্তু ওভার ভ্যালুয়েশন করাসহ নিয়ম বহির্ভূত কিছু কারণে আরেকটি বড় কোম্পানি এই শেয়ার কিনে বিনিয়োগের চূড়ান্ত পর্যায় হতে পিছু হটে যায়। আর তখনই করা হয় ওই ছাঁটাই।

বিনা নোটিশে এক সঙ্গে তিন শতাধিক কর্মী ছাঁটাইয়ের পর অনেকেই আবার পাঠাও ছেড়েছেন চাকরির নিরাপত্তাহীনতার কারণে। এসব খবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে। 

তখন চাপের মধ্যে তারা এক বিবৃতিতে জানায়, ব্যবসায়িক বিকাশের নতুন যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে। এর অংশ হিসেবে কিছু ‘কৌশলগত নীতি’ অবলম্বন করছে পাঠাও।

এতে তাদের ব্যবসার মূল শাখাগুলো আরও শক্তিশালী হয়ে দক্ষতা বাড়াবে এবং অনাকাঙ্ক্ষিত ব্যয় বৃদ্ধি রোধে সহায়তা করবে বলে তাদের আশা।

তারা বলেছিল, পরিবর্তনের প্রভাব পাঠাওয়ের সাংগঠনিক অবকাঠামোসহ এর ব্যবসার সর্বস্তরে মৌলিক ও গুরুত্বপূর্ণ রূপান্তর ঘটাবে।

এদিকে এসব নিয়ে সাধারণের মধ্যে একধরনের আস্থাহীনতা তৈরির বিষয়টি দেখা যায়। যার ফল অনেকটা ‘পাঠাও ছাড়’ ধরনের হয়। 

বাইকারদের বক্তব্য, অনেকেই এখন পর্যাপ্ত রাইড রিকোয়েস্ট না পেয়ে অন্য অ্যাপে নিবন্ধন করছেন।

পাঠাওয়ের মার্কেটিং লিড সৈয়দা নাবিলা মাহবুব পাঠাওয়ের এই ধুঁকতে থাকা বিষয়ে জিজ্ঞাসার উত্তরে টেকশহরডটকমকে জানিয়েছিলেন, সারা দেশে বাইক ও গাড়ি মিলিয়ে তিন লাখের বেশি নিবন্ধিত চালক রয়েছেন তাদের। এর অধিকাংশই রাজধানীকেন্দ্রিক।

তবে সাম্প্রতিক সময়ে ঠিক কতজন বাইকার পাঠাও অ্যাপে রাইড শেয়ারিং সেবা দিচ্ছেন বা ব্যবহারকারী কত সে সম্পর্কে জানতে চেয়েও পাঠাও থেকে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

পাঠাওয়ের ইউজার অ্যাপ থেকে জানা যায়, এখন পর্যন্ত অ্যাপটি ১০ লাখের বেশি ডাউনলোড হয়েছে। পাঠাওয়ের দাবি এর পরিমাণ ৫০ লাখের বেশি। এখন পর্যন্ত অন্তত চার কোটি সফল ট্রিপ দিয়েছে বলে ওয়েবসাইটে বলেছে পাঠাও।

পাঠাও ও শিওর ক্যাশ একীভূত হলেও নিজ নিজ নামেই ব্যবসা চলবে বলে বলা হচ্ছে।

এডি/২০১৯/ডিসে১২/১৪০০

*

*

আরও পড়ুন