ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দিয়ে ধরাশায়ী ই-স্কুটার প্রতিষ্ঠান

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : নিজেদের স্কুটারের বিক্রি বাড়াতে ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দিয়েছিল ই-স্কুটার প্রতিষ্ঠান ইউনিকর্ন। সেটাই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে প্রতিষ্ঠানটির ভাগ্যে।

ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দিতে গিয়ে এতোটাই খরচ করতে হয়েছে যে,  এখন বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। ইউনিকর্নের গ্রাহকরা তার প্রতিষ্ঠাতা নিক ইভান্সের কাছ থেকে একটি মেইল পেয়েছেন। সেটাতে ইভান্স দুঃখ প্রকাশ করে জানিয়েছেন, তারা গ্রাহকের টাকা ফেরত দিতে ইউনিকর্নের সম্পদ বিক্রির চেষ্টা করছে।

ভার্জ জানিয়েছে, টেক্সাস কেন্দ্রিক প্রতিষ্ঠানটি ৮৯৯ মার্কিন ডলার করে মাত্র ৩৫০টি স্কুটার বিক্রি করেছে। স্কুটারটির গতি প্রতি ঘণ্টার ১৫ মাইল। এবং এটি সর্বোচ্চ ১৫ মাইল পর্যণ্ত চার্জ ব্যাকআপ দিতে সক্ষম।

স্টার্টআপ ট্র্যাকার ক্রাঞ্চবেজ বলেছে, ইউনিকর্ন মাত্র দেড় লাখ ডলার সংগ্রহ করতে পেরেছে।

ইমেইলটিতে বলা হয়েছে, এই চিঠি লিখতে গিয়ে আমার খুব কষ্ট হচ্ছে যে, আমা ফান্ডের অভাবে খুব দ্রুতই প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ করে দিচ্ছি।

দুঃখজনক হলেও সত্যি যে, আমরা আপনাদের অর্ডার করা ইউনিকর্ন স্কুটার সরবরাহ করতে পারছি না। তবে আমরা আপনাকে রিফান্ড করে দেবো।

ফেইসবুক ও গুগলের যে বিজ্ঞাপন দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি তার ব্যয় নির্বাহ করতে ধার-দেনা করেছে। এর বাইরেও প্রতিষ্ঠানটির আরও খরচ মেটাতে ধার করতে হয়েছে বলে জানান ইভান্স।

তবে ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দেবার পর প্রতিষ্ঠানটির সাইটে অনেক ট্রাফিক বেড়ে গেছে বলেও ইমেইলটিতে বলা হয়েছে।

বলা হয়েছে, দুঃখজনক হলো ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দেওয়া খুবই ব্যয়বহুল। এর মাধ্যমে ব্যবসা দীর্ঘমেয়াদে চালিয়ে নেওয়া সম্ভব হয় না।

ফেইসবুকে এক গ্রাহক লোপেজ লিখেছেন, তাদের উদ্যোগটি উৎসাহজনক। তবে কোম্পানির এমন অবস্থায় আমি খুশি হতে পারছি না।

আরেক গ্রাহক লিখেছেন, মেইলটি পাওয়ার পর তিনি বিশ্বাস করতে পারেননি যে স্কুটার পাবেন না। কারণ, ক্রিসমাস উপলক্ষে গিফট করতে স্কুটারটি অর্ডার করেছিলেন তিনি।

প্রতিষ্ঠানটি যে বন্ধ হয়ে যাবে এর ধারণা আগেই পাওয়া যাচ্ছিল বলে অনেকেই জানিয়েছেন। কারণ, গত ২০ জুনের পর থেকে ইউনিকর্ন তাদের ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে আর কোনো কিছু পোস্ট করেনি।

চার সপ্তাহ আগে তাদের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছিল, তারা ক্রিসমাস উপলক্ষে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যেই স্কুটারগুলো সরবরাহ করবে।

ইএইচ/ ডিসে ১০/ ২০১৯/ ১৯০০

*

*

আরও পড়ুন