মাশুল বাড়িয়ে গ্রাহকের মোবাইল খরচ বাড়ালো ভারত

mobile-market-india-techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আর্থিক সঙ্কটে পড়ে গ্রাহকদের উপর বাড়তি মাসুল চাপিয়ে আয়ের পথ তৈরি করছে ভারতের মোবাইল অপারেটররা।

নতুন করে গ্রাহকদের ওপর মাশুল চাপিয়ে প্রতি মাসে বেসরকারি অপারেটগুলো ভয়েস কল থেকে ১২ হাজার কোটি রুপি এবং ডেটা থেকে ২৪ হাজার কোটি রুপি বাড়তি আয় করবে বলে অভিযোগ উঠেছে।

হঠাৎ করে গ্রাহকদের ওপর এমন বাড়তি বোঝা চাপানোর দায়ের তীর বিরোধী কংগ্রেস ছুঁড়ছে বিজেপি সরকার মোদির দিকে।

তবে রোববার দেশটির মোবাইল অপারেটররা জানিয়েছে, কার্যত টিকে থাকার জন্যই গ্রাহকদের উপর বাড়তি খরচের বোঝা চাপাচ্ছে তারা। ফলে দেশটির জনপ্রিয় অপারেটর ভোডাফোন ও এয়ারটেলে কথা বলার খরচ ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়ছে।

অপারেটর দুটি তাদের নতুন ট্যারিফ ঘোষণা করবে আগামীকাল মঙ্গলবার। সেদিন থেকেই কার্যকর হচ্ছে বেশি খরচায় কথা বলা বা ডেটা ব্যবহার করার নতুন প্ল্যান।

দেশটিতে সবচেয়ে জনপ্রিয় অপারেটর জিও অবশ্য বাড়তি মাশুল ছাড়াও চলতে সক্ষম জানালেও শেষ পর্যন্ত তারাও সামিল হয়েছে এতে। তারা নতুন মাশুল চালু করবে আগামী শুক্রবার থেকে।

তিন অপারেটর বলছে, খরচ বাড়লেও বাড়তি সুবিধাও পাবেন গ্রাহকরা। তবে এমন সিদ্ধান্তে কতটা খুশি হতে পারবেন দেশটির মোবাইল গ্রাহকরা তা এখনো বোঝা যাচ্ছে না।

 গ্রাহকদের উপর বাড়তি এমন মাশুল চাপিয়ে বেসরকারি অপারটেরদের সুবিধা করা দেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে দেশটির রাষ্ট্রায়াত্ত অপারেটরকে এখন পর্যন্ত ফোরজি সেবার লাইসেন্স না দিয়ে তার বেহাল অবস্থা করায় মোদি সরকারকে এক চোট নিয়েছে কংগ্রেস।

দলটির মুখপাত্র পবন খেরা অভিযোগ করে বলেছেন, যখন ইউনাইটেড প্রোগ্রেসিভ অ্যালায়েন্স ক্ষমতায় ছিল তখন দেশে ১৩টি মোবাইল অপারেটর ছিল। তার সঙ্গে ছিল বিএসএনএল-এমটিএনএল। তখন সকলের মধ্যে প্রতিযোগিতা হতো। কিন্তু এখন সর্বসাকুল্যে তিনটি বেসরকারি সংস্থা। যার মধ্যে অতীব সঙ্কটে ভোডাফোন।

এছাড়াও দেশটির সুপ্রিম কোর্টের রায়ে মোবাইল অপারেটরদের কাছ থেকে কেন্দ্র সরকারের পাওনা রয়েছে ১.৪৭ লাখ কোটি রুপি। যা গত জানুয়ারিতে সরকারকে মেটানোর কথা বলেলও পরে সেটি মন্ত্রিসভায় অনুমোদন করে বিজেপি সরকার অপারেটরদের আরও দুবছর সময় দিয়েছে বলেও অভিযোগ করছেন বিরোধীরা।

ভারতে এক সময় ভারতে কল রেট ও ডেটার খরচ খুবই বেশি ছিল। জিও বাজারে আসার পর কল রেট ও ডেটার দাম এক ধাক্কায় কমিয়ে আনে। বাধ্য হয়েই অন্য অপারেটররা সেই দাম কমায়।

তবে শিল্পটিতে সবসময় অনেক বিনিয়োগ প্রয়োজন হয় বলে লাভের মুখ দেখতে খুব বেগ পেতে হয় বলে দাবি করে অপারেটরগুলো।

ইএইচ/ ডিসে ০২/ ২০১৯/ ১৪৪২

*

*

আরও পড়ুন