Samsung IM Campaign_Oct’20

উদ্ভাবনে জোর দিচ্ছে আসুস

Evaly in News page (Banner-2)

জেনবুক সিরিজের জেনবুক ডুয়ো ও জেনবুক প্রো ডুয়ো এনেছে আসুস। দেশের বাজারে সম্প্রতি মডেল দুটির উন্মােচন অনুষ্ঠানে এসেছিলেন কোম্পানির দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের প্রধান লিওন ইউ। ব্র্যান্ডটির বিভিন্ন দিক নিয়ে টেকশহরের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ইমরান হোসেন মিলন

টেকশহর : প্রযুক্তি প্রতিনিয়ত বদলে যাচ্ছে, আসছে নতুন প্রযুক্তি। এমন পরিস্থিতির সঙ্গে তাল মেলাতে আসুস কী ধরনের কাজ করছে? 

লিওন উ : আসুস সবসময় কাজ করে যাচ্ছে নতুন প্রযুক্তি নিয়ে। এটা যেমন উদ্ভাবনে, তেমনি আবার নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে খাপ খাওয়াতেও। আমরা যে ল্যাপটপটি এনেছি এটা কিন্তু তেমনই নতুন একটি প্রযুক্তি এবং নতুন উদ্ভাবনও বলতে পারেন।

খেয়াল করলে দেখবেন, এটাকে আমরা বলছি ‘আগামী দিনের ল্যাপটপ’ বা ‘ল্যাপটপ ফর টুমরো’। এটাতে দুটি ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে, যা বিশ্বে প্রথম। দুটির রেজুলেশনই ফোরকে সমর্থিত। আমরা আলাদা করে গবেষণা ও উন্নয়নে আগের চেয়ে বেশি জোর দিয়েছি। কারণ, মানুষের চাহিদার ধরণ পরিবর্তন হয়েছে। তাই উদ্ভাবনে জোর না দিলে বাজারে টিকে থাকা সম্ভব হবে না।  

টেকশহর : এ উপমহাদেশের তরুণরা সেসব প্রযুক্তি কতটা নিতে পারছে?

লিওন উ : অবশ্যই নিতে পারছে; এখানকার তরুণরা মেধাবী। ফলে তাদেরও প্রত্যাশা নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে নিজেদের মানিয়ে চলা। শুধু মানিয়ে চলা নয়, এটা এখন প্রয়োজন হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেই কাজটা তারা করতে পারছে বলেই আমরা নতুন উদ্ভাবনে ঝুঁকতে পারছি। এখানে নতুন পণ্য আনতে পারছি।  

টেকশহর : গেইমিং ল্যাপটপ নিয়ে আসুসের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?

লিওন উ : সত্যি কথা বলতে এখন গেইমিং ল্যাপটপ বাজারে আমরাই শীর্ষে। বাংলাদেশে গেইমিং ল্যাপটপে আমাদের অংশ ৮০ শতাংশ। ভারত, বাংলাদেশ এই অঞ্চলের কথা বললে দেখবেন, এখানকার তরুণরা গেইমিং অনেক ভালোবাসে। এখন তো অনেকে গেইমিংকে পেশা হিসেবেও বেছে নিয়েছে।

এটা সত্যিই সিরিয়াস প্রফেশন- যদিও অনেকে এটা ভাবতে পারেন না। বাংলাদেশেও দেখবেন স্পোর্টস টিমের মতো ভিডিও গেইমের দল রয়েছে। আমরা অবশ্যই এই বাজারকে গুরুত্ব দিয়ে থাকি। 

আসুসের প্রযুক্তি নিয়ে কথা বলছেন দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের প্রধান লিওন ইউ। ছবি : টেকশহর

টেকশহর : বাংলাদেশের বাজারে আসুস প্রতি বছর কত কম্পিউটার বিক্রি করে?

লিওন উ : ব্যবসায়িক স্বার্থে ঠিক কত ইউনিট কম্পিউটার বিক্রি করা হয়ে থাকে সেই হিসাব প্রকাশ করি না। তবে এতটুকু বলতে পারি, গত বছরের চেয়ে চলতি বছর কম্পিউটার বিক্রির পরিমাণ বাংলাদেশের বাজারে বেড়েছে। এটা যেমন একেবারে সাধারণ গ্রাহকের কাছে, তেমনি কর্পোরেট খাতেও।

টেকশহর : বাংলাদেশের বাজারে এখন আসুসের মার্কেট শেয়ার কত?

লিওন উ : চলতি বছরের প্রথমার্ধের যে হিসাব আমাদের কাছে আছে তা থেকে বলতে পারি, কনজ্যুমার এন্ডে আসুসের মার্কেট শেয়ার ৩৩ শতাংশ। গেইমিং এন্ডে মার্কেট শেয়ার ৮০ শতাংশ। এটা আমাদের জন্য অনেক বড় পাওয়া। তবে চলতি হিসাব বছর শেষে এই অংক আরও বাড়বে বলেই প্রত্যাশা আমাদের। 

মাইক্রোসফটের অ্যাক্টিভেশন রিপোর্ট অনুযায়ী, বাংলাদেশের বাজারে আমাদের মোট মার্কেট শেয়ার চলতি বছরের তৃতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত ৩৬ শতাংশ।

টেকশহর : এই ডেটা কিভাবে পাওয়া যায়?

লিওন উ : যখন কোনো ল্যাপটপ বা পিসি বিক্রি হয় তখন গ্রাহকরা মাইক্রোসফট উইন্ডোজ অ্যাক্টিভেট করেন। তখন মাইক্রোসফট সেটাকে হিসাবের মধ্যে ধরে তথ্য সংগ্রহ করে। আমরাও সেটা দেখে বুঝতে পারি, প্রতিদিন কী পরিমাণ পিসি বিক্রি হচ্ছে।

টেকশহর : দামের কথা যদি বলি, আসুসের কম্পিউটারের দামটা অন্যান্য ব্র্যান্ডের তুলনায় একটু বেশি বলে অভিযোগ গ্রাহকদের। আপনি কি বলবেন?

লিওন উ : আচ্ছা, তবে এর আগে আপনাকে একটা প্রশ্ন করতে চাই। আমাদের পণ্যে দুই বছরের ওয়ারেন্টি সেবা থাকে। অন্য ব্র্যান্ডগুলো কয় বছরের দেয়?

আমার জানা মতে, অন্যরা এক বছরের দেয়। আমরা প্রত্যেকটা যন্ত্রাংশে এই ওয়ারেন্টি সার্ভিস দেই। ফলে দু’বছর পর্যন্ত ক্রেতারা নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন।

পণ্যের দাম বেশি হচ্ছে বলে যখন উল্লেখ করা হয় তখন এটাও মাথায় রাখতে হবে। এ ছাড়াও ফিচারের কথা বললে, আমাদের ল্যাপটপে কফিগারেশন ছড়াও বিভিন্ন ফিচারে যোগ করার ব্যপারে গুরুত্ব দিয়ে থাকি।

সম্প্রতি বাজারে আনা দু্সুই ডিসপ্লের আসুস জেনবুক ডুয়ো প্রো। ছবি : আসুসের সৌজন্যে

টেকশহর : কিস্তিতে বা ইএমআই সুবিধায় দেশে গ্রাহকরা আসুসের ল্যাপটপ কেনার সুবিধা পায় কি?

লিওন উ : আমরা এখন বাংলাদেশের বাজারে পার্টনারদের সঙ্গে ইএমআই সুবিধা দেওয়া শুরু করেছি। তবে এটাকে আরও বাড়াতে ইতোমধ্যে এখানকার কর্মকর্তারা ব্যাংকগুলোর সঙ্গে আলোচনা করছেন। আমাদের প্রত্যাশা সামনে ভালো সংবাদ আসবে গ্রাহকদের জন্য। 

টেকশহর : গত অর্থবছরে দেশে মোবাইল পণ্যের আমদানির উপর ভ্যাট-ট্যাক্স বৃদ্ধি করা হয়েছে। কম্পিউটারের উপরও কিছু বাড়িয়েছে। সরকার আগামীতে কম্পিউটার আমদানির উপর ভ্যাট আরও বাড়াতে চায়। সে ক্ষেত্রে আসুসের পরিকল্পনা কী?

লিওন উ : সরকার ভ্যাট বাড়ালে সেটার প্রভাব পড়ে ক্রেতাদের উপর। তখন তাদের বেশি দামে ডিভাইস কিনতে হয়। এবারও ডিভাইসের দাম কিছুটা বেড়েছে। সামনে যদি সরকার ভ্যাট-ট্যাক্স আরও বাড়িয়ে দেয় তখন সেই অনুযায়ী আমাদের পরিকল্পনা সাজাতে হবে। 

ইএইচ/ ডিসে ১৫/ ২০১৯/ ১৩.৫০

*

*

আরও পড়ুন