Header Top

খারাপ যাত্রীদের ৫ লক্ষণ

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উবার চালকদেরকে সারাদিন নানা রকমের যাত্রীর সঙ্গে সময় কাটাতে হয়।

যেতে হয় খারাপ-ভালো বিভিন্ন রকম অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে। যাত্রীদের সঙ্গে এই অভিজ্ঞতাগুলো ভাগাভাগি করেছেন সাউথ ফ্লোরিডার উবার চালক ক্লার্ক বোম্যান।

তিনি জানিয়েছেন, তার অভিজ্ঞতার ভাণ্ডার এখন এত সমৃদ্ধ যে ৫ সেকেন্ড কারো আচার আচরণ দেখলেই বুঝতে পারেন কে ভালো যাত্রী আর কে খারাপ যাত্রী।

৯৯ শতাংশ যাত্রীকেই ভদ্র বলে রায় দিয়েছেন তিনি। মাত্র ১ শতাংশ যাত্রীকে তার অভদ্র বলে মনে হয়েছে। আর এই ১ শতাংশ যাত্রীর কারণেই মাঝে মাঝে মাথার চুল ছেঁড়ার অবস্থায় হয় তার।

নিজের অভিজ্ঞতায় জেনেছেন, প্রায় সবসময় খারাপ যাত্রীরা তাৎক্ষণিকভাবে জানিয়ে দেয় যে তারা খারাপ যাত্রী হয়ে উঠবে।

ক্লার্ক বোম্যানের চোখে খারাপ যাত্রীর লক্ষণগুলোই তুলে ধরা হলো এবারের ফিচারে।

রেটিং

যাত্রীর রেটিং ৪.৬ এর নিচে হলে আর রিকুয়েস্ট গ্রহণ করেন না তিনি। মাঝে মাঝে কৌতুহলের বশে রিকুয়েস্ট গ্রহণ করলেও পরে তাকে আফসোস করতে হয়েছে।

যেসব যাত্রীদের রেটিং ৫ থাকে তাদের বেশিরভাগই নতুন। অল্প কিছু রাইড নেওয়ায় তাদের রেটিং ৫ এ ৫ থাকে।

ফোনে কথা বলা ম্যাসেজের ধরণ

খারাপ যাত্রীদের বেশিরভাগই দেখা হওয়ার আগে ফোনে বা ম্যাসেজে রূঢ় আচরণ করেন। ‘কোথায় মরে গেছ’ এমন কথাও শুনতে হয়েছে তাকে। আসলে প্রত্যেক মানুষের দিন এক রকম যায় না। মন খারাপ থাকতে পারে বা জরুরি কাজে যেতে দেরি হতে পারে। কিন্তু তার মানে এই নয় নিজেদের সমস্যার কারণে তারা আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করতে পারবে।

বেশি যাত্রী

উবার এক্সের ধারণ ক্ষমতা চার আর উবার এক্স এলের ধারণ ক্ষমতা ছয়। তাই উবার এক্স ও উবার এক্স এলের মধ্যে ভাড়ার পার্থক্য আছে। কখনও কখনও এই পার্থক্য দ্বিগুণ বেশি হয়ে যায়।

ফলে বেশিরভাগ সময় চার সিটের উবার এক্স চালিত গাড়িতে ৫ জনও উঠে বসে। এমনও হয়েছে ৫-৬ জনকে বহন করার জন্য তাকে ২০ ডলার অতিরিক্ত দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন যাত্রীরা। বেশি টাকা দেওয়ার ক্ষমতা থাকলে কেনো তারা উবার এক্সএল ভাড়া করে না সেটা তার বোধগম্য হয় না। তার মতে, নিয়ম ভাঙা কোনো কাজের কথা নয়।

অনৈতিক আবদার

যাত্রা পথে টাকা তুলতে, ওষুধ বা খাবার কিনতে যাত্রীরা থামতেই পারেন। কিন্তু গন্তব্যে যাওয়ার পথে তিন চার জায়গায় গাড়ি থামানো কোনো কাজের কথা নয়। অ্যাপে নির্ধারিত লোকেশনের বাইরেও অনেকে গাড়ি নিয়ে যেতে অনুরোধ করেন। নিয়ম ভেঙে ইচ্ছামতো যা খুশি তাই করতে চাওয়া ব্যক্তিদেরকে তিনি খারাপ যাত্রী হিসেবেই দেখেন।

 অপেক্ষা করানো

অনেকেরই গাড়ির কাছে আসতে ২ থেকে ৩ মিনিট দেরি হয়। এটাতে তিনি কিছু মনে করেন না। কিন্তু উবার চালককে বসিয়ে রেখে সিগারেট শেষ করে গাড়িতে ওঠা বা ওঠার আগে দাঁড়িয়ে থেকে ফোনে কথা বলা প্রয়োজনীয় কোনো কাজের মধ্যে পড়ে না। গাড়িতে উঠেও কথা বলা যায়। সিগারেটেও পরে টান দেওয়া যায়।

শেষ কথা

ক্লার্ক বোম্যান জানান, পেশার খাতিরেই তাকে অচেনা মানুষের সঙ্গে মিশতে হয়। তবে মাঝে মধ্যেই তিনি এমন কিছু অপরিচিত মানুষের দেখা পান যারা অসাধারণ। সাধারণত প্রত্যেকেই তার কাছে ৫ রেটি ও একটি হাসি উপহার পান।

১ শতাংশ যাত্রীর কারণে তার মেজাজ হয়তো খারাপ হয় তবে খারাপ যাত্রী আছে বলেই তিনি ভালো যাত্রীর মূল্যায়ন করতে পারেন।

বিজনেস ইনসাইডার অবলম্বনে পিএন/এজেড/ নভেম্বর ২৫/২০১৯/১৪

*

*

আরও পড়ুন