কার্বন নিঃসরণ কমাতে বিল গেটসের বিনিয়োগ

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বিল্ডিং বানাতে প্রচুর পরিমাণে সিমেন্ট ও স্টিলের প্রয়োজন হয়। এই সিমেন্ট ও স্টিল তৈরিতে কার্বন উৎপন্নের হার নেহায়েত কম নয়।

এই সমস্যা সমাধানে পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি বিল গেটস এমন একটি স্টার্টআপে বিনিয়োগ করছেন যা সোলার পাওয়ারের সঙ্গে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের সমন্বয় ঘটিয়েছে।

ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক স্টার্টআপটির নাম হ্যালিওজেন। সোমবার সোলার এনার্জি নিয়ে অভিনব এক আবিষ্কারের কথা জানায় তারা। কোম্পানিটি এআই ও অনেকগুলো আয়নার মাধ্যমে এক হাজার ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপ উৎপন্ন করবে। সূর্যের আলোর প্রতিফলন থেকেই এ তাপ উৎপন্ন হবে। যা ব্যবহৃত হবে সোলার পাওয়ার হিসেবে।

হ্যালিওজেন এই সোলার পাওয়ার দিয়ে স্টিল, সিমেন্ট ও অন্যান্য পেট্রোকেমিক্যাল উপাদান তৈরি করবে। আগে যা শুধু জীবাশ্ম জ্বালানী ও প্রাকৃতিক গ্যাসের মাধ্যমে উৎপাদন করা সম্ভব হতো।

স্টার্টআপটিতে বিল গেটস কতো টাকা বিনিয়োগ করেছেন তা জানা যায়নি। তবে এ বিষয়ে বিল গেটস এক বিবৃতিতে বলেন, কারখানায় যে পদ্ধতিতে সিমেন্ট, স্টিল ও অন্যান্য উপদান তৈরি করা হয় তাতে এক পঞ্চমাংশেরও বেশি কার্বন নিঃসরণ হয়। এই সব উপাদান আমাদের জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু সাশ্রয়ী হবে ও জিরো কার্বন নিঃসরণ করবে এমন কোনো পদ্ধতির আবিষ্কার এতোদিন আমরা করতে পারিনি। কার্বন নিঃসরণ শূন্যে নামিয়ে আনতে হলে আবিষ্কারের পরিধি বাড়াতে হবে।

হ্যালিওজেন তাদের ব্যবহৃত এআইকে বলছে ‘অ্যাডভান্সড কম্পিউটার ভিশন সফটওয়্যার’। বিপুল সংখ্যক আয়না যাতে একবারে নির্দিষ্ট মাত্রায় সূর্যের আলো প্রতিফলন করতে পারে সে ব্যবস্থা করবে এই সফটওয়্যার।

ভবিষ্যতে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে দেড় হাজার ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপ উৎপন্ন  করা যাবে।

সিনেট ও সিএনএন অবলম্বনে এজেড/ নভেম্বর ২০/২০১৯/১৭৫৫

আরও পড়ুন –

বিল গেটস সম্পর্কে জানা-অজানা ১১ তথ্য 

অ্যান্ড্রয়েডের জায়গায় থাকতো উইন্ডোজ মোবাইল : বিল গেটস

*

*

আরও পড়ুন