বিনিয়োগ না পেলে ডিসেম্বরে বন্ধ পিকাবু

Evaly in News page (Banner-2)

ইমরান হোসেন মিলন, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বিনিয়োগ না মিললে দেশের সুপরিচিত ই-কমার্স পিকাবুর আয়ু আর মাত্র একমাস।

পিকাবুর মূল কোম্পানি এডিসন গ্রুপ নিজ অর্থায়নে এই প্রতিষ্ঠান আর চালাতে চাইছে না। ই-কমার্সটিতে প্রতিষ্ঠার শুরু হতে এখন পর্যন্ত ভর্তুকি দিয়ে আসছে তারা। 

তবে চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে এডিসন গ্রুপের শীর্ষ পর্যায়ে এক বিনিয়োগকারীরর সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। সেখানে পিকাবুতে বিনিয়োগ পাওয়ার সম্ভাবনা দেখছে কোম্পানিটি।

যদি বিনিয়োগ চূড়ান্ত হয় তাহলে নতুন উদ্যমে শুরু হবে পিকাবু নয়তো সামনের মাসেই গুটিয়ে নেয়া হবে ই-কমার্সটিকে। যদিও অনেকদিন হতেই বিনিয়োগকারী খুঁজছিল প্রতিষ্ঠানটি। 

তবে পিকাবু ডটকমের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মৌরিন তালুকদার টেকশহরডটকমকে বলছেন, ‘আমরা একটি শিফট পিরিওড অতিক্রম করছি। আসলে আমাদের বিজনেস মডেলে কিছুটা বদল নিয়ে আসছি। বন্ধ হচ্ছে না।’  

এরমধ্যে প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম অনেকটা গুটিয়ে নেয়ার বিষয়টি অবশ্য দৃশ্যমান।  ইতোমধ্যে বেশ কিছু কর্মী ছাঁটাই করেছে তারা। প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে পণ্যের পরিমাণ আগের চেয়ে অনেক কম। এমনকি ‘ক্লিয়ারেন্স সেল’ নামে ৯০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়ে পণ্য বিক্রি করছে পিকাবু।

তবে মৌরিন বলছেন, আমাদের অপারেশনটা আগের চেয়ে ছোট করে আনা হচ্ছে। তাই অনেক বিভাগ বন্ধ হবে। নতুন বিজনেস মডেলে বেশকিছু বিভাগ প্রয়োজন হবে না। এটি জানানোর পর সেসব বিভাগের কর্মীরা আগেই রিজাইন দিয়ে চলে যাচ্ছেন। 

‘এটি বন্ধ হচ্ছে না। খুব শিগগির আমরা নতুন মডেলের ঘোষণা গ্রাহকদের দেবো’ বলছিলেন তিনি।  

নতুন মডেল কি ই-কমার্সভিত্তিক হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, অপেক্ষা করুন। আমরা সবাইকেই খরবটি দেবো। 

আপডেট : ছোট পরিসরে হলেও চালু থাকবে পিকাবু

অল্প সময়ের মধ্যে দেশের ই-কমার্স গ্রাহকদের একটা আস্থার নামও হয়ে ওঠেছিল পিকাবু। বিশেষ করে ইলেক্ট্রনিক গ্যাজটস, অ্যাক্সেসরিজ, মোবাইল কেনার জন্য দেশের ক্রেতাদের পছন্দের শীর্ষস্থানেই ছিল প্রতিষ্ঠানটি।

প্রতিষ্ঠানটির এক সাবেক কর্মীর সঙ্গে কথা হলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে টেকশহরডটকমকে জানান, যখন তিনি শুনেছেন পিকাবু বিক্রির চেষ্টা চলছে, না বিক্রি হলে বন্ধ হয়ে যাবে এমন সময় নিজ থেকেই তিনি প্রতিষ্ঠানটি থেকে অব্যহতি নেন। 

এছাড়াও প্রতিষ্ঠানটি থেকে নিয়মিত কেনাকাটা করেন এমন গ্রাহকরা ‘ক্লাব পয়েন্ট’ পান। যা তাদের পরবর্তী কেনাকাটায় ছাড় দেয়। পিকাবু তাদের ফেইসবুক পেইজে গ্রাহকদের সেই ক্লাব পয়েন্ট দিয়ে আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে কেনাকাটা করতে অনুরোধ করেছে। কারণ, এরপর আর সেই ক্লাব পয়েন্টের কোনো মূল্য থাকবে না বলেও সেখানে বলা হয়েছে। 

সেই ঘোষণার পর মন্তব্যে অনেক ক্রেতা পিকাবু ডটকম বন্ধ হয়ে যাবার বিষয়টিই লিখেছেন। 

রাসেল সালাউদ্দিন নামের একজন লিখেছেন, সবাই বলছে পিকাবু বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। ঘটনা কী? এটি তো খুব ভালো সার্ভিস দিচ্ছিল। 

আরেক মন্তব্যে রাসেল এনসিসি নামের একজন লিখেছেন, পিকাবু আস্থা আর ভালোবাসার নাম। ইকমার্স খাতে সবচেয়ে বিশ্বস্ত প্রতিষ্ঠান। নতুন ব্যবসা ভালো হোক। 

দেশে ই-কমার্স সাইট বা প্রতিষ্ঠান বন্ধের বিষয়টি নতুন নয়। এর আগে বেশকিছু প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে, কেউ বা বিক্রি হয়ে গেছে। 

দেশের অন্যতম পুরাতন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান এখানেই ডটকম একসময় খুব জনপ্রিয় ছিল। ২০০৬ সালে যাত্রা করা সেলবাজার নামের প্রতিষ্ঠানটি ২০১৪ সালে নিজেদের ব্যবসা বিক্রি করে দেয়। এরপর এখানেই নামে ব্যবসা পরিচালনা করে আসলেও ২০১৭ সালে এসে প্রতিষ্ঠানটি বন্ধ হয়ে যায়। 

রকেট ইন্টারনেটের ভেঞ্চার হিসেবে দেশে ২০১৩ সালে শুরু হওয়া অনলাইন রিয়েল এস্টেট মার্কেটপ্লেস লামুডি বাংলাদেশ পাঁচ বছর চলার পর চলতি বছরেই বিক্রি হয়ে যায় বিপ্রোপার্টির কাছে। 

একইভাবে তাদের ভেঞ্চার অনলাইন জব মার্কেটপ্লেস এভারজবস, কার বিক্রির সাইট কারমুডিও বন্ধ হয়ে গেছে।  তাদের আরেক ভেঞ্চার কাইমুকে একসময় কিনে নেয় দারাজ। পরে দারাজকে আলিবাবা কিনে নিয়ে এখন দেশে ব্যবসা করছে। 

ইএইচ/এডি/নভে ০৭/ ২০১৯/ ১৯৩০ 

আরও পড়ুন – 

অর্ডারের দিনই পণ্য পৌঁছে দেবে পিকাবু

ভ্যাটে টিকবে না ই-কমার্স 

ই-কমার্সে ১০-১০ শপিং ফেস্টিভ্যাল শুরু হচ্ছে বৃহস্পতিবার

*

*

আরও পড়ুন