বাংলালিংকের ব্যবসায় ফের ধাক্কা

banglalink-revinew-techshohor

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অডিট নিয়ে বেকায়দায় থাকা বড় দুই অপারেটর নিয়ন্ত্রক কঠোর বিধি-নিষেধের মধ্যে রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে বাংলালিংকের নতুন গ্রাহক টানা বা আয় বাড়াতে না পারার বিষয়টি অবাক করেছে অনেককেই।

এর আগে গত বছর প্রথম প্রান্তিকে বাড়তি স্পেকট্রাম কেনাসহ অবকাঠামোতে বড় রকমের বিনিয়োগের সুফল পেয়েছিল এক সময়ের দ্বিতীয় গ্রাহক সেরা থেকে এখন তিন নম্বরে চলে আসা অপারেটরটি।

ওই সময় আয়ের দিক থেকে টানা পড়তিতে থাকা বাংলালিংক খানিকটা হলেও ঘুরে দাঁড়ায়। কর্মকর্তারা বলছিলেন, তাদের সামগ্রিক সেবার মানও আগের চেয়ে ভালো হয়েছে।

Techshohor Youtube

তবে দেড় বছরের মাথায় এসে আয়ের বিবেচনায় আরেকটা ধাক্কা খেল অপারেটরটি।

জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে তারা মোট এক হাজার ১৪৩ কোটি ৫১ লাখ টাকা আয় করেছে। ঠিক আগের প্রান্তিকের তুলনায় তা শূন্য দশমিক ৮৯ শতাংশ কম।

এপ্রিল-জুন প্রান্তিকের তুলনায় গ্রাহক কিছুটা বেড়েছে; কিন্তু কমেছে গ্রাহকদের গড় ব্যবহার এবং প্রতি মাসের গ্রাহক প্রতি আয়ের অংক।

অথচ অন্য দুই বড় অপারেটর গ্রামীণফোন ও রবির ওপর অডিট বিষয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) বিপুল পাওনা দাবি এবং এরপর নানা ধরনের কঠোর-বিধি নিষেধে তারা বিভিন্ন এনওসি নিয়ে ঝামেলায় রয়েছে। এমন অবস্থা  বাংলালিংকের জন্য সুযোগ তৈরি করেছে বলে খাত সংশ্লিষ্টদের অভিমত।

অথচ অপারেটরটি এর ফায়দা টানতে পারেনি। খুব বেশি গ্রাহক যেমন বাড়েনি, তেমনি আয়ও বাড়াতে পারেনি। বিষয়টি টেলিকম খাতের অনেককে অবাক করেছে।

সোমবার বাংলালিংকের মূল কোম্পানি ভিয়ন তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করেছে। সেখানে আগের মতোই বাংলালিংকের তৃতীয় প্রান্তিকের আয়ের পরিসংখ্যান থাকলেও লাভ-লোকসানের কোনো তথ্য নেই।

ভিয়নের হিসাব অনুসারে, সেপ্টেম্বরের শেষে বাংলালিংকের কার্যকর সংযোগ আছে তিন কোটি ৬ লাখ। এ সময়ে প্রতি মাসে একেকজন গ্রাহকের কাছ থেকে গড়ে তাদের আয় এসেছে ১১৩ টাকা। গত প্রান্তিকেও যা ছিল ১১৪ টাকা।

বছরের তৃতীয় এই প্রান্তিকে তাদের একজন গ্রাহক কথা বলার কাজে মাসে ফোন ব্যবহার করেছেন গড়ে ২৩২ মিনিট। এক প্রান্তিক আগেও যেটি ছিল ২৩৬ মিনিট।

তবে ডেটার ব্যবহার ও আয় সামান্য হলেও আগের প্রান্তিকের চেয়ে বেড়েছে।

তৃতীয় প্রান্তিকে মাসে একেকজন ইন্টারনেট গ্রাহক গড়ে ১,৩৪৪ এমবি করে ডেটা ব্যবহার করেছেন, যেটি আগের প্রান্তিকে ছিল ১,২৫০ এমবি।

ডেটা থেকে শেষ হওয়া এই প্রান্তিকে তাদের আয় হয়েছে ২৩৪ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। আগের প্রান্তিকেও এটি ছিল ২২৫ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

জেডএ/আরআর/৫ নভেম্বর/২০১৯/১৪.১৪

আরও পড়ুন –

কথা কমছে ডেটা বাড়ছে বাংলালিংকে 

ইমো-ফেইসবুকের ক্যাশ সার্ভার বসাতে চায় রবি-বাংলালিংক 

টানা আয় কমছে বাংলালিংকের

*

*

আরও পড়ুন