বায়োমেট্রিক নিরাপত্তার চেয়ে বেশি সুরক্ষা দেয় পাসওয়ার্ড

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্মার্টফোন দৈনন্দিন জীবনে অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছে। কেনাকাটা থেকে শুরু করে সিনেমার টিকিট বুকিং-যেকোনো কিছুই বাড়িতে বসে পাওয়া যায় স্মার্টফোনের মাধ্যমে। আবার সেই ফোনেই রাখা হয় ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য।  আর তাই  সেই ফোনকে অরক্ষিত রাখলে কি চলে?

ফোন সুরক্ষিত রাখার অনেক উপায় আছে। এর মধ্যে অনেকে ফোনের সুরক্ষার জন্য বায়োমেট্রিক্স সিস্টেমটি ব্যবহার করেন। কিন্তু সুরক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে বায়োমেট্রিক্স সিস্টেমই সেরা নয়।

ব্যবহারকারী সত্যিই যদি নিরাপদ থাকতে চান তবে ফিঙ্গারপ্রিন্ট বা বায়োমেট্রিক্সের উপর নির্ভর না করাই ভালো। এর চেয়ে পিন বা পাসওয়ার্ড অনেক বেশি নির্ভরযোগ্য।

Techshohor Youtube

ব্যবহারকারীরা ফেসিয়াল স্ক্যানার বা রেটিনা বা আইরিস স্ক্যানারগুলির চেয়ে ফিঙ্গারপ্রিন্ট পাসওয়ার্ড বেশি পছন্দ করে থাকেন । কারণ এটি ব্যবহার করা খুবই সহজ। আঙ্গুলের ছাপের মাধ্যমে অতি সহজেই ডিভাইসটি আনলক করা সম্ভব।

অনেকে এখন তাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট আনলক করতে, দোকানে টাকা প্রদানের অনুমোদন দিতে, লাস্টপাসের মতো পাসওয়ার্ড লকারের অ্যাক্সেস পেতে চেহারা ও আঙ্গুলের ছাপ ব্যবহার করেন। কারণ এটাই তাদের ডিজিটাল পরিচয়।

বায়োমেট্রিক্স অথেন্টিকেশন সিস্টেমের চেয়ে পাসওয়ার্ডের একটি সুবিধা আছে। পূর্বের পাসওয়ার্ড সংক্রান্ত কোনো ডেটা থাকে না। কারণ পিন বা পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করা সম্ভব। কিন্তু যখন আপনার শারীরিক বৈশিষ্ট্য ফাঁস হয় তখন কী ঘটে? আপনি কীভাবে আপনার আঙ্গুলের ছাপ বা রেটিনা আপডেট করবেন? এক্ষেত্রে ফোন সুরক্ষিত রাখতে যা যা করতে পারেন সেটাই এখানে তুলে ধরা হলো।

  • একটি সুরক্ষিত অথেন্টিকেশন সিস্টেম (পিন বা পাসওয়ার্ড) সিলেক্ট করুন। যত বেশি অক্ষর ব্যবহার করা হবে তত বেশি নিরাপদ।
  • প্যাটার্ন লকগুলি এড়িয়ে চলা ভালো। এতে গুপ্তচরবৃত্তি করা অনেক সহজ।
  • বিভিন্ন ফেইস আনলক সিস্টেমের মধ্যে থাকা পার্থক্যগুলো জানতে হবে। ফেইস স্ক্যান করতে যে লেজার বা ইনফ্রারেড ব্যবহার করা হয় সেগুলো ফ্রন্ট ক্যামেরার চেয়ে বেশি সুরক্ষা দেয়।
  • লকডাউন মোড এনাবেল করুন। এটি পিন বা পাসওয়ার্ড ছাড়া সব আনলকিং সিস্টেম দ্রুত ডিজেবল করার অপশন দেয়।
  • নিয়মিত সুরক্ষা এবং সিস্টেম আপডেট পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি এমন নামী নির্মাতাদের কাছ থেকে ডিভাইস কেনা ভালো।

পিএন/এজেড/ অক্টোবর ২০/২০১৯/১৭৫৫

*

*

আরও পড়ুন