বাণিজ্যিক শর্টকোডে কথা বলার খরচও কমল

callcenter-techshohor

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সরকারি শর্টকোডের পর এবার এমন বাণিজ্যিক সেবার কল করার খরচও ৫০ শতাংশ কমছে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) সম্প্রতি  বাণিজ্যিক সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর শর্টকোডের খরচ কমানোর সিদ্ধান্ত নেয়।

বর্তমানে বিটিআরসি’র কাছ থেকে ২৫ বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান শর্টকোড নিয়েছে । এর সবগুলোতেই কল করার জন্য প্রতি মিনিটের নূন্যতম খরচ দুই টাকা। কোনোটিতে আবার দুই টাকা ৩৪ পয়সা খরচ হয়।

বিটিআরসি এটি কমিয়ে মিনিট প্রতি  এক টাকা নির্ধারণ করেছে। সর্বশেষ কমিশন বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে।

তবে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করার জন্য এখনো সব অপারেটরকে চিঠি পাঠায়নি বিটিআরসি।

অন্যদিকে সরকারি শর্টকোডে কল করার খরচ ৪৫ পয়সা নামিয়ে আনার চিঠি এরই মধ্যে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকে দেওয়া হয়েছে। তবে তারা এখনো সে সিদ্ধান্ত কার্যকর করেনি বলে জানা গেছে।

বর্তমানে ৭২টি সরকরি প্রতিষ্ঠান শর্টকোডের মাধ্যমে কল করলে গ্রাহকদেরকে নানা তথ্য দিচ্ছে।

এর আগে এই সব সংস্থাগুলোর মধ্যে সাতটিতে কল করার কোনো খরচ নেই। বাকিগুলোর ক্ষেত্রে এতদিন সর্বনিন্ম দুই টাকা থেকে আড়াই টাকার মধ্যে প্রতি মিনিটের জন্যে খরচ হতো।

সম্প্রতি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয় তাদের ১৬৭৬৭ নম্বরের বিপরীতে প্রতি মিনিটের জন্যে দুই টাকা ৪০ পয়সা চার্জকে অতিরিক্ত বলে সেটি ২৫ পয়সায় নামিয়ে আনার জন্যে বিটিআরসিকে অনুরোধ করলে বিষয়টি সামনে আসে।

পরে এক সঙ্গে সব সরকারি শর্টকোডে কল করার খরচ ৪৫ পয়সায় নামিয়ে আনার সিদ্ধান্ত হয়। তখন বেসরকারি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের শর্টকোডে কল করার খরচের বিষয়টিও পর্যালোচনার সিদ্ধান্ত হয়।

বর্তমানে কেবল দুর্নীতি দমন কমিশন, দূর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগ, নির্বাচন কমিশন, শিশু সেবা বিভাগ, মহিলা ও শিশু মন্ত্রনালয় এবং আইনগত সহায়তার জন্যে টোল ফ্রি শর্টকোড চালু আছে।

বিটিআরসি বলছে, সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হলে তাতে করে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারিরা সহজেই সেবা পেতে পারবে। তবে একই সঙ্গে মোবাইল ফোন অপারেটরদের আয়ের ক্ষেত্রেও সমস্যা হবে না।

বর্তমানে মোবাইল ফোনের একটি কল সর্বনিন্ম ৪৫ পয়সা মিনিটে টান্সমিটেড হচ্ছে।

এদিকে মোবাইল ফোন অপারেটররা বিটিআরসি’র এই সিদ্ধান্ত স্বাগত জানায়নি। তবে কেউ আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানায়নি।

জেডএ/আরআর/ ১০ অক্টোবর/২০১৯/০২.০২

*

*

আরও পড়ুন