ভিভোবুক এস১৫ : ডিসপ্লে নিয়ে কথা থাকলেও পারফরমেন্স দারুণ

Evaly in News page (Banner-2)

রিয়াদ আরিফিন, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : হালকা গড়ন, ভালো মানের ব্যাটারি ব্যাকআপসহ নানা কারণে আসুসের ভিভোবুক সিরিজ বাজারে বেশ জনপ্রিয়। এ সিরিজের এস-১৫ এস-৫৩১এফএল মডেলটির খুঁটিনাটি থাকছে এই রিভিউতে।

শীর্ষস্থানীয় ব্র্যান্ডটি এ সিরিজের এস১৫ মডেলের বেশ কয়েকটি সংস্করণ গেল বছর বাজারে ছেড়ে বেশ কাটতি পায়। এরই ধারাবাহিকতায় চলতি বছর এনেছে নতুন কিছু সংস্করণ। 

এস-১৫ এস-৫৩১ সিরিজের এসব মডেলে মূলত ৪ থেকে ১৬ গিগাবাইট পর্যন্ত র‍্যাম ও কোর আই-৭ পর্যন্ত প্রসেসর মিলবে। এ ছাড়া সংস্করণ ভেদে স্টোরেজেও কিছু পার্থক্য রয়েছে।

এই সিরিজের ল্যাপটপগুলোর মধ্যে ‘আসুস ভিভোবুক এস-১৫ এস-৫৩১এফএল’ মডেলটির ভালো মন্দ তুলে ধরা হবে আজকের রিভিউতে ।

বিস্তারিত জানার আগে সংক্ষেপে দেখে নেয়া যাক ল্যাপটপটির কনফিগারেশন ও ফিচার

  • অষ্টম প্রজন্মের কোর আই-৫ প্রসেসর, সর্বোচ গতি ৩.৯ গিগাহার্জ 
  • ৮ গিগাবাইট ডিডিআর-৪ র‍্যাম 
  • ১৫.৬ ইঞ্চি ডিসপ্লে, রেজুলেশন ১৯২০*১০৮০ 
  • ১ টেরাবাইট হার্ড ড্রাইভ ও ২৫৬ মেগাবাইট এসএসডি 
  • ২ গিগাবাইট এনভিডিয়া এমএক্স-২৫০ গ্রাফিক্স 
  • ইউসবি ৩ ও ২ মিলিয়ে ৩ টি পোর্ট, ১ টি সি-টাইপ পোর্ট
  • ওয়েবক্যাম 
  • ব্লুটুথ, ওফাইফাই, ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর 

ডিজাইন 

১.৮ কেজি ওজনের এ ল্যাপটপের পুরুত্ব ১.৮ সেন্টিমিটার। হালকা গড়নের ল্যাপটপটি  ট্রান্সপারেন্ট সিলভার, গান মেটাল, কোবাল্ট ব্লু, মস গ্রিন ও পাঙ্ক পিংক রঙে পাওয়া যাবে। 

ল্যাপটপের বাঁদিকে রয়েছে ২ টি ইউসবি ২.০ পোর্ট আর ডানদিকে রয়েছে ১ টি ইউসবি ৩.১ পোর্ট, ১টি সি টাইপ পোর্ট, এইডিএম আইপোর্ট, ৩.৫ মিমি অডিও জ্যাক ও মাইক্রো এসডি কার্ড রিডার।  

এটির বডি ভালো মানের অ্যালুমিনিয়াম দ্বারা তৈরি। বিল্ড কোয়ালিটি বেশ ভালো। গড়নে অযাচিত কোনো ফাঁকা জায়গা রাখা হয়নি। তাই  হাতে নিলে বা হালকা চাপ দিলে কোন শব্দ হবে না। 

হালকা হওয়ায় এটি সহজে বহন করা যাবে। ডিসপ্লের আকার ১৫.৬ ইঞ্চি হওয়ার কারণে অবশ্য অনেকের জন্য তা ঝামেলার হতে পারে। 

ডিভাইসটির মেকানিজমে একটু ভিন্নতা আনা হয়েছে। এটি সমতলের চেয়ে ৩.৫ ডিগ্রি বাঁকা হয়ে অবস্থান করে। এতে টাইপিংয়ে সুবিধা হয় ও সহজেই তাপ বেরিয়ে যেতে পারে। 

কিবোর্ড ও টাচপ্যাড 

ব্যাকলিট এলইডি কিবোর্ড রয়েছে ল্যাপটপটিতে। বাটনগুলো বেশ আরামদায়ক। ব্যবহারকারী সহজেই এতে অভ্যস্ত হতে পারবেন। বাটনের মধ্যবর্তী স্থানেও বেশ ফাঁকা অংশ রয়েছে।

এ কারণে টাইপিংয়ের সময় এক বাটন চাপলে অন্য বাটনে চাপ পড়ার সম্ভাবনা কম। রেগুলার বাটন ছাড়াও কিবোর্ডে আলাদা একটি নম্বর প্যাড রয়েছে।

এটির টাচপ্যাডটি মোটামুটি আরামদায়ক। বাজেট অনুযায়ী যদিও আরও কিছুটা ভালো হওয়া উচিৎ ছিল।

টাচপ্যাডেই রয়েছে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর, যা দিয়ে ল্যাপটপ আনলক করাসহ অন্যান্য সিকিউরিটি ফিচার উপভোগ করা যাবে।

এ ছাড়া টাচপ্যাডটি চার আঙ্গুল পর্যন্ত টাচ সমর্থন করে এবং নানান ধরনের স্মার্ট জেশ্চার সুবিধাও মিলবে এটি থেকে। 

ডিসপ্লে 

ল্যাপটিতে ১৫ দশমিক ৬ ইঞ্চির ফুল এইচডি ডিসপ্লে ব্যবহার করা হয়েছে যেটির রেজুলেশন ১৯২০*১০৮০। ডিসপ্লের চারদিকে বেজেলের পরিমাণ বেশ কম, বডি ও ডিসপ্লের অনুপাত ৮৮ শতাংশ।

তাই এটি দেখতে যেমন আকর্ষণীয়, তেমনি ডিসপ্লেকেও আকারে বেশ বড় লাগে। ডিসপ্লেটি থেকে ১৭৮ ডিগ্রি পর্যন্ত ওয়াইড-ভিউ পাওয়া যাবে । 

ডিসপ্লেটি যথেষ্ট শার্প ও উজ্জল হলেও কালার রিপ্রডাকশনে কিছুটা পিছিয়ে। ভালো গ্রাফিক্সের কোনো ভিডিও দেখতে চাইলেও খুব একটা সন্তোষজনক পারফরমেন্স পাওয়া যাবে না। আবার সাইড থেকে দেখলেও কিছুটা কালো দেখায়।

তবে বাজেট বিবেচনায় এটিকে অগ্রাহ্য করা যেতে পারে। কারণ এ বাজেটে অন্যান্য ল্যাপটপের ডিসপ্লেগুলোও মোটামুটি একই গড়নের। 

ডিসপ্লের ব্রাইটনেস অবশ্য বেশ ভালো। দিনের বেলা সূর্যের আলোতেও এটি দিয়ে বেশ কাজ করা যাবে। 

পারফরমেন্স 

ল্যাপটিতে ইন্টেল কোর আই-৫ ৮২৬৫ইউ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে, যার গতি ১.৬ থেকে ৩.৯০ গিগাহার্জ পর্যন্ত। র‍্যাম রয়েছে ডিডিআর-৪ প্রযুক্তির ৮ গিগাবাইট।

১ টেরাবাইট মূল স্টোরেজের পাশাপাশি অতিরিক্ত হিসেবে এতে ২৫৬ মেগাবাইট এসএসডি ব্যবহারের সুযােগ থাকছে।

সবমিলিয়ে যথেষ্ট ভালো পারফরমেন্স দিতে সক্ষম। এসএসডি থাকার কারণে এমন বাজেটের এসএসডিবিহীন অন্য ল্যাপটপের চাইতে অনেক ভালো মানের পারফরমেন্স নিশ্চিত করবে এটি। 

অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে এতে রয়েছে উইন্ডোজ-১০ এর হোম এডিশন। 

যারা দৈনন্দিন পেশাগত কাজে বা পড়াশোনার কাজে ল্যাপটপ ব্যবহার করেন তারা এটি পছন্দের তালিকায় রাখতে পারেন। এটি দিয়ে দৈনন্দিন কাজ (যেমন- ডকুমেন্ট, প্রেজেন্টেশন তৈরি), ছবি সম্পাদনা, ওয়েব ব্রাউজিং করতে পারবেন ঝামেলাবিহীন ভাবে।

এমনকি ছোটখাটো ভিডিও সম্পাদনা কিংবা হালকা থেকে মাঝারি মানের গেইমও খেলা যাবে। 

অন্যদিকে ভালো মানের গ্রাফিক্স নিশ্চিত করতে ল্যাপটপটিতে এনভিডিয়ার জিফোর্স এমএক্স২৫০ ব্যবহার করা হয়েছে, যেটির মেমোরি ২ গিগাবাইট। এটির পারফরমেন্সও বাজেট অনুযায়ী ভালো বলা যায়। 

পোর্ট ও কানেক্টিভিটি 

এ মডেলে তিনটি রেগুলার ইউএসবি পোর্ট রয়েছে- ইউএসবি ২.০ প্রযুক্তির দুটি ও বাকিটা ইউএসবি ৩.১ প্রযুক্তির।

এ ছাড়া একটি করে ‘এ’ টাইপ ও ‘সি’ টাইপ পোর্ট রয়েছে। মাইক্রো এসডি কার্ড রয়েছে একটি। তবে রেগুলার সাইজের মেমরি কার্ড রিডার নেই। ভিজিএ-এর পরিবর্তে দেয়া হয়েছে একটি এইডিএমআই পোর্ট।

ডিভাইসটিতে সর্বশেষ প্রযুক্তির ওফাইফাই সংস্করণ ৫ ও ৬ সমর্থন করবে। রয়েছে সর্বশেষ প্রযুক্তির ব্লুটুথ ৫.০।

অডিও 

স্পিকার রয়েছে একেবারে পিছনের দিকে। অডিও কোয়ালিটি বেশ ভালো ও লাউডনেস সন্তোষজনক। অডিও অভিজ্ঞতা ভালো পেতে ব্যবহার করা হয়েছে আসুস সনিক মাস্টার।

স্পিকারটি একেবারে পেছনে হওয়ার বিছানায় রেখে ব্যবহার করলে সাউন্ড কমে যায়। 
এতে থাকা ৩.৫ মিমি অডিও জ্যাক ব্যবহার করে স্পিকার, ইয়ারফোন কিংবা মাইক্রোফোন সংযোগ করা যাবে।

কুলিং

ল্যাপটপের পারফরমেন্স নিশ্চিতে কুলিং সিস্টেম ভালো হওয়া চাই। সেদিক বিবেচনাতেও এটি মানসম্পন্ন।

এটির লিকুইড কুলিং সিস্টেম ডিভাইসকে ঠাণ্ডা রাখতে ও দ্রুত তাপ নিষ্কাশনে সাহায্য করবে। উন্নত কুলিং ফ্যানের কারণে নয়েজের মাত্রা সহনীয়। 

ব্যাটারি  লাইফ 

এতে ৪২ ওয়াট-আওয়ার সক্ষমতার তিন সেলের লিথিয়াম প্রিস্মাটিক ব্যাটারি দেয়া হয়েছে। সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে ৯০ ওয়াট সক্ষমতার চার্জার। তবে হালের ক্রেজ সি টাইপ চার্জার দেয়া হয়নি। 

কুইক চার্জ প্রযুক্তির কারণে মাত্র ৬০ শতাংশ চার্জ হতে সময় নেবে মাত্র ৪৯ মিনিট। পুরো চার্জ হতে লাগবে দেড় থেকে দুই ঘন্টা।

একবার ফুল চার্জ করে মাঝারি ব্যবহারে ল্যাপটপটি ৫ থেকে ৭ ঘন্টা পর্যন্ত ব্যাকআপ দেবে।

প্যাকেজিং, দাম ও ওয়ারেন্টি সুবিধা 

ল্যাপটপটির সঙ্গে বিনামূল্যে একটি ব্যাকপ্যাক পাওয়া যাবে।

দুই বছরের ওয়ারেন্টি সুবিধা দিবে আসুস বাংলাদেশ। ব্যাটারি ও চার্জারের ওয়ারেন্টি অবশ্য এক বছর।

এ সংস্করণের বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ৭৬ হাজার টাকা।

র‍্যাম, স্টোরেজ, প্রসেসর, গ্রাফিক্স ও ডিসপ্লের আকারের পার্থক্যে এ ল্যাপটপের আরো কিছু সংস্করণ পাওয়া যাবে এ দামের চাইতে কম কিংবা বেশি দামে।

এক নজরে ভালো

  • ভালো পারফমেন্স
  • ভালো ব্যাটারি ব্যাক আপ
  • কুইক চার্জিং
  • স্লিম গড়ন 
  • স্বাচ্ছন্দ্যময় টাইপিং এর জন্য ভাল কীবোর্ড 
  • ভালো কুলিং সিস্টেম 

এক নজরে খারাপ

  • সি টাইপ চার্জিং এর অনুপস্থিতি 
  • ডিসপ্লের মাঝারি পারফরমেন্স 
  • হাই গ্রাফিক্স গেইমিংয়ে কম সন্তুষ্টি

আরএ/ আরআর/অক্টোবর ০৮/২০১৯/১৫৪৫

*

*

আরও পড়ুন