নেটফ্লিক্স নিষিদ্ধ চায় ভারতের হিন্দুত্ববাদীরা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অনলাইন স্ট্রিমিং সার্ভিস নেটফ্লিক্স ভারতের হিন্দুত্ববাদদের তোপের মুখে পড়েছে। স্ট্রিমিং সার্ভিসটির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে হিন্দু বিরোধী কনটেন্ট সম্প্রচারের। 

বর্তমান সময়ে টেলিভিশন, সিনেমার পাশাপাশি বিভিন্ন অনলাইন স্ট্রিমিং সার্ভিস জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এসব সার্ভিস মাসিক একটা সাবস্ক্রিপশন ফি দিয়ে ব্যবহার করতে হয়। কিন্তু তবুও এর দর্শক দিন দিন বাড়ছেই। 

মার্কিন স্ট্রিমিং সার্ভিস প্রতিষ্ঠান নেটফ্লিক্স তাদের দর্শক টানতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে নজর দিয়েছে। বিশেষ করে ভারতে তাদের একটি বড় বাজার তৈরি হয়েছে। 

সেই বড় বাজারকে ধরে রাখতে ভারতীয় অনেক পরিচালক, অভিনেতাদের নিজেদের স্ট্রিমিং সার্ভিসে যুক্ত করতে পেরেছে নেটফ্লিক্স। কিন্তু সম্প্রতি তাদের কয়েকটি ওয়েব কনটেন্ট নিয়ে ভারতের হিন্দুরা সোচ্চার হয়েছেন। তারা দাবি তুলেছেন দেশটিতে নেটফ্লিক্সকে নিষিদ্ধ করার। 

ভারতে ওয়েব সিরিজ হিসেবে নেটফ্লিক্স তৈরি করে ‘স্যাক্রেড গেইমস’। সিরিজটি আবার দুটি ভাগে তৈরি করে প্রতিষ্ঠানটি। সেখানে ‘স্যাক্রেড গেইমস ২’ এ দেখানো কিছু বিষয় নিয়ে দেশটিতে বিতর্ক শুরু হয়। সিরিজে হিন্দুদের ‘খারাপ ভাবে’ উপস্থাপন করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছে কট্টর হিন্দুত্ববাদী দল শিবসেনা।

এছাড়াও আরেক সিরিজ ‘লাইলা’ নিয়েও অভিযোগ উঠেছে। বলা হয়েছে, ‘লাইলা’ পুরো ভারত রাষ্ট্রকেই অস্বীকার করেছে এবং রাষ্ট্র ব্যবস্থাকে হুমকির মুখে ফেলেছে। 

বিল গেটসকে নিয়ে সিরিজ আসছে নেটফ্লিক্সে

আর এসব কারণেই নেটফ্লিক্সকে ভারতে নিষিদ্ধ করতে অনেক স্থানে আন্দোলনও হয়েছে। সেই জের ধরে মার্কিন স্ট্রিমিং সার্ভিস নেটফ্লিক্সের বিরুদ্ধে শিবসেনার নেতা রমেশ শোলাঙ্কি মুম্বাই পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

তার অভিযোগ, নেটফ্লিক্স ভারতকে অস্বীকার করে সিনেমা বানাচ্ছে। এমনকি দেশের সংস্কৃতিকেও ভিন্নভাবে উপস্থাপন করছে। 

শুধু হিন্দুত্ববাদীরা নন, নেটফ্লিক্সের বিরুদ্ধে তেঁতে উঠেছেন দেশটির অনেক রাজনৈতিক নেতাও। কারণ, তাদের কনটেন্টে রাজনৈতিক নেতাদেরও ভিন্নভাবে, শুধু নেতিবাচকভাবেই তুলে ধরার কথা বলেছেন তারা। 

তবে এসব অভিযোগের একেবারে বিরুদ্ধে গিয়ে কথা বলেছেন অনেক চলচ্চিত্র নির্মাতা ও অভিনেতারা। 

তাদের ভাষ্য, পদ্মাবতের মতো সিনেমাও হলে চলতে দেয় না দেশের উগ্রপন্থী হিন্দুরা। দেশে এখনো জাতপাত নিয়ে নানান সমস্যা খুবই প্রকট আকারে সমাজে গেঁড়ে বসে আছে। সেসব নিয়ে কথা বলা সম্ভব হয় না সিনেমায়। 

নেটফ্লিক্স দেশটিতে পরিচালকদের জাতপাত, সমকামিতার মতো ট্যাবু নিয়ে কনটেন্ট তৈরি করার সুযোগ দিয়েছে। কিন্তু এখন যা হচ্ছে তাতে সেটিও বন্ধ হয়ে যাবে বলে মনে করছেন তারা। 

যেহেতু নেটফ্লিক্সে তৈরি কনটেন্ট সরাসরি সেন্সর বোর্ড বা চলচ্চিত্র সার্টিফেকেশন বোর্ডের অনুমতি নিতে হচ্ছে না তাই এখনো বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করেনি নেটফ্লিক্স কর্তৃপক্ষ। এমনকি যেসব কনটেন্টের বিরুদ্ধে হিন্দুত্ববাদীদের অভিযোগ সেসব কনটেন্ট সরিয়েও নেয়নি স্ট্রিমিং সার্ভিসটি। 

বিবিসি অবলম্বনে ইএইচ/ সেপ্টে ১৭/ ২০১৯/ ১৭৩৩

*

*

আরও পড়ুন