ভ্যাট দিতে বিটিআরসির নিবন্ধনই চায় মোবাইল অপারেটরগুলো

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ভ্যাট আদায়ে বিটিআরসির নিবন্ধনের দরকার নেই এনবিআরের এমন সিদ্ধান্তে কোনো ‌’সমাধান’ দেখছে না মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো।

‘বিটিআরসির ভ্যাট নিবন্ধন প্রয়োজন না থাকলে তার ভ্যাট আদায়েরও প্রয়োজন নেই’ বলছে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো সংগঠন অ্যামটব। 

সম্প্রতি নিয়ন্ত্রণ সংস্থার ভ্যাট আদায় নিয়ে মতপার্থক্য এমন জটিল হয়েছে যে অপারেটরগুলোর দ্বিতীয় প্রান্তিকের রাজস্ব জমাই আটকে গিয়েছিল। পরে ‘নিবন্ধন প্রক্রিয়াধীন সময়’ হিসেবে ভ্যাট ছাড়াই অপারেটরগুলো বিটিআরসির কাছে রাজস্ব জমা দেয়।

আর এখন এনবিআর বলছে বিটিআরসির ভ্যাট নিবন্ধনের প্রয়োজন নেই।  

অ্যামটব মহাসচিব ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব:) এস এম ফরহাদ টেকশহরডটকমকে বলেন, আগেও যেমন বলা হয়েছে এখনও বিষয়টি তাই। মোবাইল অপারেটরদের কাছে থেকে মূসক আদায় করতে হলে বিটিআরসির এ সংক্রান্ত নিবন্ধন থাকতে হবে।

তিনি বলেন, বর্তমান মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন ২০১২ অনুযায়ী অর্থ আদায়কারী প্রতিষ্ঠানের মূসক নিবন্ধন থাকার বিষয়ে বাধ্যবাধকতা আছে। 

‘এখন এ বিষয়ে নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটির সঙ্গে আলোচনা চালানো হচ্ছে এবং এর একটা সমাধান পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন তারা’ উল্লেখ করেন অ্যামটব মহাসচিব।

সম্প্রতি বিটিআরসির ভ্যাট নিবন্ধন নিয়ে এনবিআরের ওই সিদ্ধান্তে বলা হয়, মূল্য সংযোজন কর আইন ও সম্পূরক শুল্ক আইন ২০১২ এর ধারা ৪ এর উপধারা ২ অনুযায়ী উৎসে কর কর্তনকারী হিসেবে বিটিআরসির ভ্যাট নিবন্ধন গ্রহণের প্রয়োজন নেই। 

আর ‘বিটিআরসি ভ্যাট নিবন্ধনের প্রয়োজন নেই’ এমন সিদ্ধান্তে এটাই প্রথম আনুষ্ঠানিক বক্তব্য এনবিআরের।

বিটিআরসির ভ্যাট নিবন্ধন নিয়ে বিটিআরসি-মোবাইল ফোন অপারেটর মতপার্থক্য এমন জটিল হয়েছে যে বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় পর্যন্ত গিয়েছে। 

চলতি বছরের জুলাইয়ের মাঝামাঝিতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগে এক বৈঠকে সজীব ওয়াজেদ জয় বিটিআরসিকে ৭ দিনের মধ্যে ভ্যাট নিবন্ধন দিতে বলেছিলেন । তখন ওই বৈঠকে এনবিআর প্রতিনিধিকেও ডেকে আনা হয়।

ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, বিভাগটির উধ্বর্তন কর্মকর্তা, বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হকসহ টেলিযোগাযোগ খাতের সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোর প্রতিনিধিরা।

এর আগে ভ্যাট পরিশোধ নিয়ে জটিলতা তৈরি হওয়ার কারণে ১০ জুলাই মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকের রাজস্ব জমা দিতে গিয়ে পারেনি। অপারেটরগুলো ওই দিন তাদের দ্বিতীয় প্রান্তিকের (এপ্রিলে-জুন) বিভিন্ন পাওনা যেমন অপারেটরদের রাজস্বের অংশ, সামাজিক দ্বায়বদ্ধতা তহবিল ও বাৎসরিক তরঙ্গ ফি পরিশোধ করতে গিয়েছিল।

পরে জটিলতা ‘নিস্পত্তিকালীন’ সময়ে ভ্যাট ছাড়াই এসব পাওনা বিটিআরসিতে জমা দেন তারা। 

এডি/২০১৯/২১আগস্ট/২০০০

আরও পড়ুন – 

নিবন্ধন লাগবে না, ভ্যাট নেবে বিটিআরসিই

বিটিআরসিতে মোবাইল অপারেটরদের ভ্যাট পরিশোধ সমস্যার সমাধান

*

*

আরও পড়ুন