চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে ভূমিকা রাখবে রোবটিক্স, মেকাট্রনিক্স

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বা ৪.০ তে অবদান রাখবে দেশের রোবটিক্স এবং মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং। 

রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিক মেকাট্রনিক্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ৪.০ : প্র্যাকটিস-অরিয়েন্টেড এডুকেশন অ্যান্ড ট্রেনিং ফর এমপ্লয়মেন্ট’ শীর্ষক এক আন্তর্জাতিক সেমিনারে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বক্তারা ।

সেমিনারটি উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান। প্রধান অতিথি ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন।

সেমিনারটি যৌথভাবে আয়োজন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ; ফেস্টো ডিডাক্টিক এসই, জার্মানি; ইউনিভার্সিটি অব ব্রেমেন জার্মানি এবং সিনকস ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড। 

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক ড. লাফিফা জামাল।

সেমিনারের মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. শামীম আহমেদ দেওয়ান।

এছাড়া আরও বক্তব্য রাখেন ইউনিভার্সিটি অব ব্রেমেনের অনারারি অধ্যাপক ড. বিভূতি রায়, ফেস্টো সিংগাপুরের এডুকেশনাল সার্ভিসেস ম্যানেজার ফউ টেক কং এবং সিনকস ইঞ্জিনিয়ার্সের পরিচালক নাসিক এম আক্কাস।

মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান বলেন, বাংলাদেশের তরুণদের অসাধ্য কিছুই নেই।

তিনি তরুণদের আহ্বান জানান, মানুষের জন্য কাজ করতে এবং রোবটকে মানবকল্যাণে নিয়োজিত করতে। বক্তব্যে একাডেমিয়া ও ইন্ডাস্ট্রির মধ্যে মেলবন্ধনের জন্য বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন তিনি।

ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, চতুর্থ শিল্প-বিপ্লব মোকাবেলায় আমাদের রোবটিক্স অ্যান্ড মেকাট্রনিক্সের মতো যুগোপযোগী শিক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে।

তিনি বলেন, বর্তমান যুগে আর্টিফিশিয়াল ইইন্টেলিজেন্স, ইন্টারনেট অফ থিংস, রোবটিক্সের মতো বিষয়গুলোর কোন বিকল্প নেই। তবে একই সঙ্গে আমাদের মানবিক গুণাবলী যেন হারিয়ে না যায় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

বিশেষ অতিথি ড. মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এবং ডেটা সায়েন্সের ক্ষেত্রে মনোনিবেশ করতে এবং তিনি এক্ষেত্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ই অগ্রণী ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। বিদেশমুখী না হয়ে তিনি দেশের উন্নয়নের জন্য কাজ করার জন্য তরুণদের আহবান জানান।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে দিনব্যাপী ছিল ইন্ডাস্ট্রি ৪.০ প্রদর্শনী এবং বিভিন্ন ইন্টার‍্যাক্টিভ সেশন।

ইএইচ/ আগস্ট ০৪/ ২০১৯/ ২১১৫

আরও পড়ুন – 

আন্তর্জাতিক রোবট অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের প্রথম স্বর্ণ

দিনভর রোবট নিয়েই ব্যস্ত শিশুরা

*

*

আরও পড়ুন