স্মারক ডাকটিকিট সংগ্রহে তরুণদের উৎসাহ দিতে বললেন মন্ত্রী

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্মারক ডাকটিকিট ইতিহাস জানতে সহায়তা করে। তাই নতুন প্রজন্মকে এসব ডাকটিকিট সংগ্রহে উৎসাহিত করতে উদ্যোগ গ্রহণে ডাক বিভাগকে নির্দেশ দেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

তিনি বলেন, ডাকটিকিট একটি জাতির  ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি এবং বিশিষ্ট ব্যক্তি সম্পর্কে জানায়। জ্ঞানার্জনে ডাকটিকিটে যে তথ্য পাওয়া যাবে গুগলেও তা পাওয়া দুষ্কর।

জ্ঞানার্জনের জন্য ডাকটিকিট সংগ্রহে নতুন প্রজন্মকে উৎসাহিত করতে এবং মুক্তিযুদ্ধসহ  শিল্প-সাহিত্য, সংস্কৃতি এবং রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে অবদান রাখা মানুষগুলোকে নিয়ে স্মারক ডাকটিকিট প্রকাশের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য মন্ত্রী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।

মন্ত্রী সোমবার বাংলাদেশ সচিবালয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে জাতীয় ডাকটিকিট দিবস ২০১৯ উপলক্ষ্যে স্মারক ডাকটিকেট উন্মোচন করেন।

অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস, বিটিআরসি চেয়ারম্যান মো. জহিরুল হক, ডাক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এসএস ভদ্র, টেলিটক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. সাহাবুদ্দিন এবং বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের অধীনস্থ বিভিন্ন সংস্থার কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের গৌরবের বিষয়। ১৯৭১ সালে মুজিবনগর সরকার আটটি ডাকটিকিট প্রকাশ করে বহির্বিশ্বে স্বাধীন বাংলার অস্তিত্ব প্রকাশ করেছে। ১৯৭১ সালের ২৯ জুলাই ভারতীয় নাগরিক বিমান মল্লিকের ডিজাইন করা আটটি ডাকটিকিট মুজিবনগর সরকার, কলকাতায় বাংলাদেশ মিশন ও লন্ডন থেকে প্রকাশিত হয়। স্বাধীনবাংলাদেশের অস্তিত্ব সত্য প্রতিষ্ঠার অংশ হিসেবে মুজিব নগর সরকার কুটনৈতিক প্রক্রিয়া হিসেবে স্বাধীনতার স্বপক্ষে বিশ্বজনমত গড়ে তোলার জন্য এ উদ্যোগ গ্রহণ করে।

মোস্তাফা জব্বার নতুন প্রজন্মের ছেলে-মেয়েদেরকে স্মারক ডাকটিকিট সংগ্রহকে শখ হিসেবে উৎসাহিত করার জন্য প্রয়োজনীয় কর্মসূচি গ্রহণের জন্য ডাক বিভাগকে নির্দেশ দেন।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী জাতীয় ডাকটিকিট দিবস উপলক্ষে প্রকাশিত ১০ টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট, ১০ টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম ও পাঁচ টাকা মূল্যমানের একটি ডেটা কার্ড উন্মোচন করেন।

ইএইচ/ জুলাই ২৯/ ২০১৯/ ১৬৫০

*

*

আরও পড়ুন