অপারেটরদের বকেয়া আদায়ে আরও কঠোর বিটিআরসি

btrc-noc-techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সরকারের বিপুল বকেয়া রাজস্ব আদায়ে এবার গ্রামীণফোন ও রবির এনওসি বন্ধের চিঠি দিয়ে আরও চাপ তৈরি করেছে বিটিআরসি।

টেলিযোগাযোগ খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি নিরীক্ষার মাধ্যমে দীর্ঘদিনের পাওনা সাড়ে ১৩ হাজার কোটি টাকা আদায়ে এবার দেশের শীর্ষস্থানীয় দু্ই মোবাইল ফোন অপারেটরের যে কোনো ধরনের অনাপত্তিপত্র বা এনওসি দেওয়া বন্ধ দিয়েছে।

সোমবার বিকালে এ বিষয়ে প্রধান দুই অপারেটরকে চিঠি দিয়েছে কমিশন। এতে বলা হয়েছে, অপারেটর দুটির সকল প্রকার যন্ত্রপাতি ও সফটওয়ার আমদানিসহ সকল প্রকার এনওসি প্রদান বন্ধ করা হল।

এ চিঠি অনুসারে আগে অনুমোদন নেওয়া হলেও সেগুলোর বিপরীতে এখন কোনো যন্ত্রপাতি আমদানি করতে পারবে না অপারেটর দুটি।

একই সঙ্গে পূর্বানুমোদন নিয়ে যন্ত্রপাতি আমদানি করা হলেও সেগুলো যদি এখনও বন্দর থেকে খালাস করা না হয়ে থাকে তাহলেও বেকায়দায় পড়বে গ্রাহক ও আয়ের বিচারে শীর্ষ দুই অপারেটর। এসব যন্ত্রপাতি খালাসের আগে আবারও বিটিআরসির কাছে ধরনা দিতে হবে তাদের।

তা ছাড়া যে কোনো প্রকার ট্যারিফ বা সার্ভিস প্যাকেজের অনুমোদন বন্ধ করা হয়েছে এই চিঠির মাধ্যমে।

এমন কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হতে পারে বলে গত সপ্তাহে এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিল কমিশন।

পুন:নিরীক্ষার পর বিটিআরসি গ্রামীণফোনের কাছে ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে বলে দাবি করে। একই সঙ্গে রবি’র কাছে ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা পাওনা দাবি তাদের।

এর আগে ৪ জুলাই পাওনা আদায়ে গ্রামীণফোনের মোট ব্যবহার করা ব্যান্ডউইথের ৩০ শতাংশ এবং রবির ব্যবহৃত ব্যান্ডউইথের ১৫ শতাংশের ওপর ক্যাপিং আরোপ করে কমিশন।

তবে ব্যান্ডউইথ ব্যবহার সীমিত করায় সেটি গ্রাহকের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে – বিবেচনায় আগের সিদ্ধান্ত বাতিল করে এনওসি বন্ধের সিদ্ধান্ত হয়।

গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নির্দেশনায় ব্যান্ডউইথ ব্লকের সিন্ধান্ত তুলে নেয় বিটিআরসি।

ব্যন্ডউইথ সীমিত করায় গ্রাহকদের মোবাইল নেটওয়ার্ক ব্যবহারে সমস্যা হওয়ায় এ সিদ্ধান্ত তুলে দিতে বলেন জয়।

জেডএ/আরআর/২৩ জুলাই/২০১৯/০১.২৫

আরও পড়ুন –

বিটিআরসিতে মোবাইল অপারেটরদের ভ্যাট পরিশোধ সমস্যার সমাধান

অতিরিক্ত ভ্যাট-ট্যাক্স টেলিকম খাতের বিকাশ বাধাগ্রস্ত করছে

*

*

আরও পড়ুন