vivo Y16 Project

ভিসা হয়নি, নাসায় যাত্রা অনিশ্চিত টিম অলিকের

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এবার ভিসা না পাওয়ায় নাসায় যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে বাংলাদেশের টিম ‘অলিকের’। 

‘নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৮’ প্রতিযোগিতায় বিশ্বের দুই হাজার ৭২৯টি দলের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে চ্যাম্পিয়ন হয় সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) টিম অলিক। দলটি বেস্ট ডেটা ইউটিলাইজেশন ক্যাটগরিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন। 

পরে দলটিকে এবং তাদের মেন্টরদের মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসায় যাবার জন্য আমন্ত্রণ জানায়। আগামী ২১ থেকে ২৩ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় ওই নাসার অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়ার কথা ছিল দলটির। 

Techshohor Youtube

কিন্তু ভিসা না পাওয়ায় এখন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে দলটির এই অংশগ্রহণ। অলিকের মেন্টর শাবিপ্রবির শিক্ষক বিশ্বপ্রিয় চক্রবর্তী টেকশহরডটকমকে জানান, গত ১১ জুলাই মার্কিস দূতাবাসে ইন্টারভিউ দিলে সেদিনই জানানো হয় তাদের ভিসা হয়নি। 

তিনি টেকশহরডটকমকে বলেন, ২১ জুন আমাদের নাসায় আমন্ত্রণ জানানো হয়। আমরা গত ১ জুলাই ভিসার জন্য আবেদন করি। কিন্তু ১১ জুলাই জানতে পারলাম ভিসা হয়নি। আমাদের দলের ৫ জনেরই ভিসা হয়নি। 

বিশ্বপ্রিয় চক্রবর্তী বলেন,  মার্কিন দূতাবাস থেকে ভিসা না দেবার কারণ হিসেবে আইএন এর ২২৪ (বি) ধারার কথা বলা হয়েছে।

তবে এখন পর্যন্ত ভিসা পাবার জন্য চেষ্টা করছেন দলটির সদস্যরা।

শাবিপ্রবির এই শিক্ষক জানান, বিষয়টি নিয়ে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বেসিস মার্কিন দূতাবাসে যোগাযোগ করছে। 

ইতোমধ্যে অনুষ্ঠানে অংশ নিতে দলটির সদস্যদের জন্য বিমান টিকিট, হোটেল বুকিং করা হয়ে গেছে। অলিকের নাসার প্রতিযোগিতায় অংশ নেবার ব্যয়ভার বহন করছে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ। 

বিশ্বপ্রিয় চক্রবর্তী জানান, টিম অলিকের পাঁচজন ছাড়াও প্রতিযোগিতায় যাবার কথা রয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের ছয় জন, বেসিস পাঁচজনসহ মোট ১৬ জনের। 

অলিকের সদস্যরা হলেন শাবিপ্রবির শিক্ষার্থী এস এম রাফি আদনান, কাজী মাইনুল ইসলাম, আবু সাবিক মাহদী এবং সাব্বির হাসান।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির একটি দল এসিএম-আইসিপিসি প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় অংশ নেবার জন্য পর্তুগালের ভিসা চেয়ে প্রত্যাখান হয়েছিল। পরে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এবং ব্যক্তির চেষ্টায় দলটি ভিসা পেয়ে প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। 

ইএইচ/ জুলাই ১৩/ ২০১৯/ ১৪০০

*

*

আরও পড়ুন

vivo Y16 Project