লাইক না পেলেই মাথা খারাপ?

like-button-techshohor

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : লিহ পার্লম্যান একজন কমিক আর্টিস্ট। কার্টুনে তিনি আত্মপ্রেম ও নিজের আবেগময় শিক্ষার বিষয়টি তুলে ধরেন।

প্রতিটি ছবিই ফেইসবুকে পোস্ট করলে একসময় বেশ ভালো সাড়া পেতেন। প্রচুর লাইক ও কমেন্ট পড়তো। কিন্তু ফেইসবুক অ্যালগরিদমে পরিবর্তন আসলে তার পোস্টগুলোতে লাইক পড়ার হার কমে গেলো। পোস্টে মাত্র ২০ টা লাইক দেখলে মাঝে মাঝে তার মনে হতো শ্বাস নিতে পারছেন না। কেউ এটা দেখলো না- এ চিন্তাই তাকে কষ্ট দিতো।

মজার ব্যাপার হলো, কমিক আর্টিস্ট হওয়ার আগে তিনি ফেইসবুক ডেভেলপার ছিলেন। ২০০৭ সালে তার দলের সম্মিলিত প্রচেষ্টাতেই লাইক বাটনের উদ্ভাবন হয়। যেহেতু ফেইসবুকের অলি-গলি তার চেনা তাই দেরি না করে লাইক কামাতে ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন কেনা শুরু করলেন তিনি।

আসলে নিউজফিডে কী দেখানো হবে আর কী দেখানো হবে না তা ঠিক করে ফেইসবুকের অ্যালোগরিদম। ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় ব্যয় করাতেই ফেইসবুক এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে। একারণেই আমরা ব্যক্তিগতভাবে যেগুলো পছন্দ করি শুধু সেগুলোই বার বার নিউজফিডে আসে। যেমন বিড়াল প্রেমীদেরকে বিড়ালের ভিডিওই বেশি দেখাবে ফেইসবুক।

এছাড়াও, টার্গেট বিজ্ঞাপনের কারণেও আমরা এমন অনেক পোস্ট দেখে থাকি যেগুলো আমাদের শখের সঙ্গে মিলে যায়। যেমন কেউ ইকমার্স শপ থেকে কেনাকাটা করলে তাকে অন্যান্য ইকমার্স পেইজের লিঙ্ক দেখানো হবে।

অনেক সময় ব্যবহারকারীর মানসিক অবস্থা বিশ্লেষণ করেও মন ভালো করা খবর দেখিয়ে থাকে ফেইসবুক।

এ কারণেই গবেষকরা স্মার্টফোনকে স্লট মেশিনের (জুয়া খেলার মেশিন) সঙ্গে তুলনা করেছেন। নাতাশা ডো নামের এক অধ্যাপক বলেন, স্লট মেশিন এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যা আসক্তি সৃষ্টি করে। নতুন কী পাবো তা জানতেই আমরা উন্মুখ হয়ে থাকি। সোশ্যাল মিডিয়াও তাই। ফেইসবুক খুলে লাইক নাকি কমেন্ট দেখতে পাবো তা জানার জন্যই আমরা বার বার ফোন হাতে নেই।

বিবিসি অবলম্বনে এজেড/ জুলাই ৩/২০১৯/১২১৭

*

*

আরও পড়ুন