স্মার্টফোন কেনার আগে

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ঢাকার আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার হতে শনিবার পর্যন্ত চলবে স্মার্টফোন ও ট্যাব মেলা। 

বরাবরের মতো এতে সর্বশেষ প্রযুক্তি ও ডিজাইনের ডিভাইস নিয়ে হাজির হবে দেশী-বিদেশী সেরা স্মার্টফোন ব্র্যান্ডগুলো। থাকবে বিশেষ ছাড় ও উপহার। 

মেলায় স্মার্টফোন কিনতে এসে অনেকেরই চিন্তার অন্ত থাকে না, এত মডেলের ভিড়ে কোন ফোনটি তার দরকার, কোনটি তার প্রয়োজন মেটাবে। 

একেক জনের স্মার্টফোন ব্যবহারের উদ্দেশ্য বা প্রয়োজন একেক রকম। কেউ কথা বলা আর অল্পস্বল্প ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য স্মার্টফোন খোঁজেন, কেউ স্মার্টফোন দিয়েই সেরে নিতে চান পেশাগত নানা কাজ। কেউ কেউ ফটোগ্রাফির কাজেও স্মার্টফোন ব্যবহার করেন কেউ আবার স্মার্টফোন ব্যবহার করে খেলেন উচ্চ গ্রাফিক্সের নানা গেইম।

নিজের কাজ ও প্রয়োজন অনুয়ায়ী কীভাবে স্মার্টফোন বাছাই করবেন চলুন তা জেনে আসি। 

র‍্যামঃ

যারা স্মার্টফোনেই পেশাগত ভারি কাজ, মাল্টি টাস্কিং কিংবা উচ্চ গ্রাফিক্স গেইমিং করতে চান তাদের ক্ষেত্রে প্রধান বিবেচ্য বিষয় র‍্যাম। এমন ব্যবহারকারীদের জন্য বেশি র‍্যামের বিকল্প নেই। খানিকটা বেশি বাজেটে দেশের বাজারে ৬ থেকে ৮ গিগাবাইট র‍্যামের কিছু স্মার্টফোন পাওয়া যাচ্ছে। 

৬ হতে ৮ গিগাবাইট র‍্যামের এসব স্মার্টফোন মেলায় ছাড়-উপহারে কিনতে পারবেন।  

তবে যারা সাধ্যের মধ্যে, মধ্যম বাজেটে দ্রুতগতির স্মার্টফোন খোঁজেন তারা ২০ হাজার টাকা বাজেটের মধ্যে ৪ গিগাবাইট র‍্যামের স্মার্টফোন কিনতে পারেন। 

আর যারা কথা বলা কিংবা কিছুটা ইন্টারনেট ব্রাউজিংয়ের জন্য স্মার্টফোন ব্যবহার করতে চান তাদের জন্য ২ থেকে ৩ গিগাবাইট র‍্যামের স্মার্টফোনই যথেষ্ট।

প্রসেসরঃ

স্মার্টফোনের পারফরম্যান্সের ক্ষেত্রে র‍্যামের পাশাপাশি প্রসেসর সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। প্রসেসর ভাল মানের না হলে ফোন স্লো বা হ্যাং হয়ে যাবার মত বিড়ম্বনায় পড়তে হতে পারে।

বেশি বাজেটের স্মার্টফোন কেনার ক্ষেত্রে দেখে নিতে হবে ফোনে ব্যবহৃত প্রসেসরটি হালনাগাদ কিনা। গেইমিংয়ের ক্ষেত্রে সর্বশেষ মডেলের ফ্ল্যাগশিপ প্রসেসর সম্বলিত ফোনগুলোকে প্রাধান্য দেয়া উচিত, পাশাপাশি বেশি র‌্যাম। 

যারা ফটোগ্রাফি ভালবাসেন আর স্মার্টফোন ব্যবহার করে ভাল মানের ছবি তুলতে চান তাদের জন্য স্মার্টফোন কেনার আগে ক্যামেরা দেখে নিতে হবে এটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

বাজারে চলতি ট্রেন্ড হিসেবে ট্রিপল ক্যামেরা সম্বলিত স্মার্টফোন পাওয়া যাচ্ছে, যেগুলো ব্যবহার করে বেশ ভাল মানের ছবি তোলা যায়। এছাড়াও স্বল্প কিংবা মধ্যম বাজেটে মিলবে ডুয়াল ক্যামেরার স্মার্টফোন।

যারা সেলফি তুলতে ভালবাসেন তাদের ক্ষেত্রে ফোনের ফ্রন্ট ক্যামেরা দেখে নিতে হবে। দেশের বাজারে ৩২ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরারও বেশ কিছু স্মার্টফোন পাওয়া যাচ্ছে।

ব্যাটারিঃ

স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে ব্যাটারির সক্ষমতা ভাল না হলে ভোগান্তির শেষ থাকে না। তাই সব ধরনের স্মার্টফোন কেনার আগে তার ব্যাটারির ব্যাকআপ সম্পর্কে ভালভাবে জেনে নেয়া উচিত। বাজেট বিশেষে ৩ থেকে ৪ হাজার মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি সম্বলিত স্মার্টফোন কেনা ভাল।

এর পাশাপাশি ব্যাটারিকে কত সময়ের মধ্যে ফুল চার্জ করে নেয়া যায়, সেটাও খেয়াল রাখতে হবে। চলতি সময়ে ব্যাটারিকে দ্রুত চার্জ করার নানা প্রযুক্তি সংযোজন করেছে স্মার্টফোন ব্রান্ডগুলো।

নিরাপত্তা ফিচারঃ

স্মার্টফোনের ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষার প্রয়োজনের জন্য হরেক রকম নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকে। এগুলোর মধ্যে সর্বশেষ সংযোজন হলো ফিংগারপ্রিন্ট লক কিংবা ফেইস আনলকের মত সুবিধা।

এছাড়া চুরি ঠেকাতেও কিছু ফিচার থাকে অনেক স্মার্টফোনে। প্রয়োজন অনুযায়ী এগুলোও দেখে নেয়া। 

ফোরজি ও স্টোরেজঃ

ফোরজি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করার যাবে কিনা সেটা অবশ্যই স্মার্টফোন কেনার আগে নিশ্চিত হতে হবে। এছাড়াও ফোনে কতগুলো স্টোরেজ পাওয়া যাবে এবং কত গিগাবাইট পর্যন্ত মেমোরি কার্ড সমর্থন করবে তাও জেনে নিতে হবে। 

বিক্রয়ত্তোর সেবাঃ

স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ওয়ারেন্টি সুবিধা। দেশের বাজারে স্মার্টফোন ব্রান্ডগুলো সাধারনত ১ বছরের ওয়ারেন্টি সুবিধা দিয়ে থাকে।

ব্রান্ডভেদে এই ওয়ারেন্টির নীতিমালায় ভিন্নতা থাকতে পারে। তাই স্মার্টফোন কেনার আগে অবশ্যই বিক্রোত্তর সেবার বিস্তারিত জেনে নিতে হবে।

আরএ/এডি / জুলাই ৩/ ২০১৯/ ২৩০০  

*

*

আরও পড়ুন