কর না বাড়িয়েও টেলিযোগাযোগ থেকে বাড়তি আয় সম্ভব!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : টেলিযোগাযোগ ও প্রযুক্তি খাতে ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রস্তাব করা বর্ধিত কর প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশন।

সংগঠনটির দাবি, খাতটিতে নতুন করে কর না বাড়িয়েও বছরে অন্তত সাত হাজার কোটি টাকার বাড়তি রাজস্ব করা সম্ভব।

শনিবার সংগঠনটি তাই বাড়তি কর প্রত্যাহার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দিয়েছে।

স্মারকলিপিতে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশ দাবি করেছে, প্রান্তিক পর্যায়ে সারাদেশে নিরবচ্ছিন্ন নেটওয়ার্ক ও মানসম্পন্ন সেবা পৌঁছানো হলে প্রায় ছয় থেকে সাত হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত রাজস্ব আসবে। নতুন করে যে কর বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছে, তাতে সরকার হয়তো তিন হাজার কোটি টাকার মত রাজস্ব পাবে।

নতুন সিম কেনায় ট্যাক্স ও কলরেট বাড়লে প্রান্তিক নিম্ন আয়ের মানুষ নতুন সংযোগ নেওয়ায় নিরুৎসাহিত হবে। ফলে রাজস্ব কমবে সরকারেরই, জানায় সংগঠনটি।

সংগঠনটি জানায়, বর্তমানে সক্রিয় সিম প্রায় ১৫ কোটি ৬৫ লাখ। স্মার্টফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রায় সাত কোটি ৫০ লাখ। তাছাড়া ব্রডব্যান্ড ব্যবহারকারী প্রায় এক কোটি ৭৫ লাখ। এখনও দেশে প্রায় ৪৫ শতাংশ জনগোষ্ঠী আধুনিক টেলিযোগাযোগ সেবার বাহিরে আছে। বর্তমানে মোট জিডিপির প্রায় ৬.৫ শতাংশ রাজস্ব এ খাত থেকে আসে। এর ধারাবাহিকতা থাকলে আগামী ২০২৪ সালের মধ্যে এ খাত থেকে রাজস্ব আসবে প্রায় মোট জিডিপির ১০.৭৫ শতাংশ।

এছাড়াও গত পাঁচ বছরে এ খাতে পাঁচবার কর বৃদ্ধি এবং কলরেটও বাড়ানো হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি সরকারের প্রতি অনুরোধ করেছে, অপারেটরদের উপর নতুন করে কর্পোরেট ট্যাক্স না বাড়িয়ে বরং তাদের কাছে সরকারের পাওনা ১২ হাজার কোটি টাকা আগে আদায় করা হোক।

একই সঙ্গে অপারেটরগুলো যাবে সারা দেশে ভালো একটা নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারে সেজন্য তাদের বিষয়টিও সরকারকে দেখার অনুরোধ করা হয় ওই স্মারকলিপিতে।

ইএইচ/ জুন ২৯/ ২০১৯/ ১৮৪৪

*

*

আরও পড়ুন