Techno Header Top

এ যুদ্ধে কেউ জিতবে না : হুয়াওয়ে প্রতিষ্ঠাতা

ছবি : সিজিটিএন
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যুক্তরাষ্ট্র-চীনের মধ্যে যে বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু হয়েছে তার বলি হয়েছে প্রযুক্তি জায়ান্ট হুয়াওয়ে।

সোমবার এক ভিন্নধর্মী প্যানেল আলোচনায় বসেছিলেন হুয়াওয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী রেন ঝেংফেই। আলোচনায় হুয়াওয়ের সাম্প্রতিক অনেক বিষয় উঠে এসেছে। 

সেই প্যানেলে ১০০ মিনিট ধরে আলোচনা হয়েছে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে। হুয়াওয়ের আয়োজনে ‘কফি উইদ রেন’ আলোচনায় সাম্প্রতিক যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে যে বাণিজ্য যুদ্ধ শুরু হয়েছে, তাতে কোন পক্ষই জিততে পারবে না বলে বলেছেন। 

রেন বলেছেন, বিশ্ব এখন সবার জন্য সমান সুযোগ তৈরি করেছে। সেই সুযোগ যেমন চীন নিতে পারে, তেমনি যুক্তরাষ্ট্রও নিতে পারে। তবে অবশ্যই সেখানে সহযোগিতার মনোভাব থাকতে হবে। 

রেন বলেন, হুয়াওয়ে প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আমরা চেষ্টা করেছি দারিদ্র্য দূর করতে এবং একটি ভালো স্বাস্থ্যসেবা যাতে প্রান্তিক মানুষ পায় তা নিশ্চিত করতে। আমরা সেটি বিভিন্ন উপায়ে করেছি। আর তাতে প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু থেকেই ছিল। 

গত ৩০ বছর হুয়াওয়ে যে প্রযুক্তিগত উন্নয়ন করেছে তার পিছনে মানুষের অসম্ভব ভালোবাসা কাজ করেছে। তারা সবাই এটিকে ইতিবাচকভাবে নিয়েছে। এটা শুধু চীনে নয়, বরং বিশ্বব্যাপীই হুয়াওয়েকে ভালোবেসেছে সবাই, বলেন রেন। 

যুক্তরাষ্ট্র সরকারের সঙ্গে চীনের যে বাণিজ্য যুদ্ধ বর্তমান তাতে দু পক্ষই ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে বলেন রেন। তিনি বলেন, হুয়াওয়ের প্রতি যুক্তরাষ্ট্র সরকার যেভাবে প্রতিক্রিয়াশীল আচরণ করেছে তা মোটেও কাম্য নয়। কারণ, হুয়াওয়ে চীন সরকারের কোন প্রতিষ্ঠান নয়। এর ফলে দুপক্ষই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কোন পক্ষই জিততে পারবে না।

এমন বেড়াজাল দিয়ে কোনভাবেই হুয়াওয়েকে আটকানো যাবে না। হুয়াওয়ে যে মিশন শুরু করেছে বিশ্বের প্রত্যেক মানুষকে ডিজিটাল করা, একটা ভালো নেটওয়ার্কের মধ্যে নিয়ে আসার যে লক্ষ্য তা পূরণ করা হবে। আমরা চাই প্রত্যেকটি বাড়ি, সংগঠন, প্রতিষ্ঠান একটি বিশ্বজনীন নেটওয়ার্কের মধ্যে নিয়ে আসতে, বলেন রেন। 

রেন বলেন, অতীতের দিকে তাকালে দেখা যাবে, যখন আমরা দুর্বল ছিলাম তখন থেকেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিলাম। আমরা যা করে এসেছি, এমনকি ভবিষ্যতেও করতে চাই। 

রেন হুয়াওয়ের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্ক এবং সাম্প্রতিক সিদ্ধান্ত ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেন, আমরা কখনোই যুক্তরাষ্ট্রকে সহযোগিতা করতে ভয় পাই না। অথচ তারাই বেশি ভয় পাচ্ছে।

তাকে প্রশ্ন করা হয়, যুক্তরাষ্ট্র সরকার যে বলেছে, হুয়াওয়ে তাদের যন্ত্রাংশের মাধ্যমে গুপ্তচরবৃত্তি করছে, তাদের ডেটা নিচ্ছে, বিষয়টিকে কিভাবে ব্যাখ্যা করবেন?

উত্তরে রেন ঝেংফেই বলেন, হুয়াওয়ের যন্ত্রাংশে কোন ধরনের ব্যাকডোর নেই, এমনকি সেখানে কেউ প্রবেশও করতে পারে না। যদি কোন রাষ্ট্র চায় তবে হুয়াওয়ে ‘নো ব্যাকডোর’ চুক্তি করতে প্রস্তুত। 

এমনকি হুয়াওয়ের নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা এতোটাই সুরক্ষিত যে সেখান থেকে ডেটা নেবার আশঙ্কা শুন্য শতাংশ। মানে শতভাগ নিশ্চয়তা হুয়াওয়ে দেবে বলে জানান রেন। 

তবে রেন স্বীকার করেন, গত মে এবং চলতি জুনে তাদের স্মার্টফোন বিক্রির পরিমাণ ৪০ শতাংশ করে গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের এমন সিদ্ধান্তের ফলে প্রতিষ্ঠানটি অন্তত তিন হাজার কোটি ডলারের ক্ষতির সম্মুখীন হবে। তবে ২০২১ সালের মধ্যে প্রতিষ্ঠানটি আবার বাজারে নিজেদের অবস্থান শীর্ষে নিতে পারবে বলে মনে করেন ঝেংফেই। 

প্যানেল আলোচনা সঞ্চালনা করেন চাইনা গ্লোবাল টেলিভিশন নেটওয়োর্কের তিয়ান হুই।

ইএইচ/ জুন ১৭/ ২০১৯/ ২০০০

*

*

আরও পড়ুন