সচেতনতা বাড়াতে জাকারবার্গের ভুয়া ভিডিও

mark-zukerbarg-techhsohor

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ডিপ ফেইক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ফেইসবুকের সিইও মার্ক জাকারবার্গের ভুয়া ভিডিও ছাড়া হয়েছে ইনস্টাগ্রামে।

ভিডিওটি সর্বপ্রথম শনাক্ত করে সংবাদ মাধ্যম ভাইস। ইনস্টাগ্রামের বিল পোস্টারস ইউকে পেইজে পোস্ট করা ভিডিওটির নির্মাতা ক্যানি এআই নামের একটি ইসরাইলি স্টার্টআপ।

এআই প্রযুক্তি ব্যবহার করে মার্ক জাকারবার্গের ২০১৭ সালের কিছু ফুটেজ দিয়ে ভিডিওটি তৈরি করা হয়। জাকারবার্গের বদলে ভিডিওটিতে অন্য এক ব্যক্তির কণ্ঠস্বর ব্যবহার করা হয়। যুক্তরাজ্যের স্প্যাক্টার নামের এক ডকুমেন্ট্রি ফেস্টিভেলে ভিডিওটি প্রদর্শন করা হয়। এই ডকুমেন্ট্রিতে ডোনাল্ড ট্রাম্প ও কিম কাদারশিয়ানেরও ডিপ ফাইক ভিডিও দেখানো হয়।

ভিডিওটিতে জাকারবার্গকে বলতে শোনা যায়, একজন মানুষের হাতে শত শত কোটি মানুষের চুরি করা ডেটা রয়েছে। তাদের গোপনী বিষয়, জীবন ও ভবিষ্যৎ সম্পর্কে সব তথ্যই তার কাছে আছে। আমি স্প্যাক্টারের কাছে ঋণী। স্প্যাক্টার আমাকে বুঝিয়েছে, যার হাতে ডেটার নিয়ন্ত্রণ থাকবে সেই ভবিষ্যত ঠিক করবে।

ইনস্টাগ্রামে ভিডিওটি আপলোড করা হয় ৪ দিন আগে। এখন পর্যন্ত ভিডিওটি দেখা হয়েছে ১৭ হাজার বারের বেশি।

এর আগে গত মাসে মার্কিন হাউজ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির ভিডিও এডিট করে তা ছড়িয়ে দেওয়া হয়। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে সাক্ষাতের পর তিনি যে বক্তব্য দেন তা বিকৃত করে তাকে মাতাল প্রমাণের চেষ্টা চালানো হয়। সে সময় ফেইসবুক, টুইটার ও ইউটিউবে ভিডিওটি ছড়িয়ে পরে। ভিডিওটি সরিয়ে নেওয়ার পরিবর্তে যারা ভিডিওটি শেয়ার করতে চেয়েছেন তাদেরকে ফেইসবুক নোটিফিকেশন দিয়ে জানায় ভিডিওটি ভুয়া।

আসলে ডিপফেইক ভিডিও কতোটা ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারে সে বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতেই জাকারবার্গের ভিডিওটি তৈরি করা হয়।

ক্যানি এআইয়ের সহপ্রতিষ্ঠাতা ওমর বিন আমির মতে, ডিপফেইক আমাদের শেয়ার করার ধরণ পাল্টে দেবে। কারও ছবি ব্যবহার করে এরকম ভুয়া ভিডিও বানানোর আগে নিজের প্রিয় মানুষগুলো কথা ভাবা উচিত। তার মতে, ডিজিটাল বিবর্তনের পরবর্তী ধাপ হবে ডিপ ফেইক প্রযুক্তি।

বিজনেস ইনসাইডার অবলম্বনে এজেড/ জুন ১২/২০১৯/১১১৮

*

*

আরও পড়ুন