বিটিআরসির গণশুনানি বুধবার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের আয়োজনে টেলিকম সেবার মান নিয়ে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল বুধবার।

রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে সকাল ১১টায় এ গণশুনানি অনুষ্ঠিত হবে। এটি নিয়ন্ত্রণ সংস্থার দ্বিতীয় গণশুনানি।

এবারের গণশুনানিতে অংশ নিতে ইচ্ছুকদের নিবন্ধন করার জন্য বলে নিয়ন্ত্রণ সংস্থা। অনুষ্ঠানে অংশ নিতে ১৬৫ জন নিবন্ধন করে উপস্থিত থাকার আগ্রহ প্রকাশ করেছে। আর নিবন্ধনের সময় সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ ১৬০০ প্রশ্ন পাঠিয়েছেন।

প্রশ্নগুলোর মধ্যে থেকে মাত্র ১২০টি গণশুনানিতে উত্তরের জন্য উপস্থাপন করা হবে। প্রশ্নের পুনরাবৃত্তি, সম্পূর্ণ নয়, প্রাসঙ্গিকতা ও গুরুত্ব বিবেচনায় বাছাইয়ে বাকি প্রশ্নগুলো বাদ পড়েছে।

গণশুনানিতে ১২০টি প্রশ্নেরই উত্তর দেয়ার চেষ্টা করা হবে। তবে যদি সময়ে তা না পারা যায় অবশিষ্ট প্রশ্নের উত্তর অনলাইনে দিয়ে দেয়া হবে।

অধিকাংশ প্রশ্নই এসেছে কলড্রপ, ডেটা প্রাইস, সার্ভিস কোয়ালিটি সম্পর্কিত।

গণশুনানিতে সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত সংস্থা, টেলিযোগাযোগ সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান, মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী, ভোক্তা সংঘ, সংশ্লিষ্ট পেশাজীবী অংশগ্রহণ থাকছে। বিটিআরসি এরমধ্যে অনেককেই আমন্ত্রণ জানিয়েছে।

এতে সাংবাদিকদের জন্য প্রশ্নের সুযোগ রাখা হয়েছে।

গত ২৪ মে দ্বিতীয় এই গণশুনানির ঘোষণা দেয় বিটিআরসি। সেখানে গণশুনানিতে অংশ নেবার জন্য অনলাইনে নিবন্ধন করার কথা বলা হয়। এই নিবন্ধন চলে ৩ জুন পর্যন্ত।

আবেদনকারীকে  ইমেইলে অংশগ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করছে বিটিআরসি। তারপর সেটি প্রবেশের সময় সঙ্গে রাখতে হবে এবং জাতীয় পরিচয়পত্রও সঙ্গে রাখতে হবে।

বিটিআরসির টেলিযোগাযোগ সেবার মান নিয়ে প্রথম গণশুনানি করেছিল ২০১৬ সালে ২২ নভেম্বর। তবে সেই গণশুনানিতে মোবাইল অপারেটরদের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ উঠলেও বেসরকারি কোনো মোবাইল অপারেটর অংশ নেয়নি।

ওই শুনানিতে অংশ নিতে অনলাইনে নিবন্ধন করেছিলো ১ হাজার ৫০ জন। তবে অভিযোগ জানাতে ডাক পেয়েছিলেন ৪২০ জন। যদিও স্বল্প সময়ে মাত্র ৩২ জন তাদের অভিযোগ জানতে পারেন।

ইএইচ/জুন১১/ ২০১৯/ ১৬০০

*

*

আরও পড়ুন