ক্রেতাদের কাছে ফোন নয়, ফাইভজি নেটওয়ার্কই সব

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : কয়েক বছর ধরেই ফাইভজি নিয়ে তুমুল আলোচনা চলছে পশ্চিমা বিশ্বে।

ফাইভজি হ্যান্ডসেট বাজারে আসায় সম্প্রতি টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানিগুলোও ফাইভজি নেটওয়ার্কের বিস্তার ঘটাতে শুরু করেছে। এখন অনেক স্মার্টফোন নির্মাতা কোম্পানিই কোয়ালকমের তৈরি ফাইভজি মডেম তাদের ফোনে যুক্ত করছে। তবে ফাইভজি ফোনগুলোর প্রতি ক্রেতারা আকৃষ্ট হচ্ছেন কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যায়।

সম্প্রতি সংবাদ মাধ্যম অ্যান্ড্রয়েড অথোরিটির পরিচালিত এক জরিপ থেকে জানা যায়, নেটওয়ার্ক প্রস্তুত না হলে ফাইভজি ফোন কিনবেন না ৫৩ শতাংশ মানুষ।

ফাইভজির গতিতে ইন্টারনেট চালানোর জন্য পুরানো ফোন পাল্টাতে রাজি নন ৩১ শতাংশ মানুষ। আবার ইন্টারনেট চালানোর ক্ষেত্রে অতিরিক্ত গতি পাওয়া যাবে বলেই ফাইভজি ফোনের জন্য বেশি খরচ করার পক্ষপাতি নন ৯ দশমিক ৫ শতাংশ মানুষ।

মাত্র ৬ দশমিক ৫ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন তারা খুব দ্রুতই ফাইভজি ফোন কিনবেন।

জরিপে অংশ নেওয়া এক অংশগ্রহণকারীর মতে, ফোরজি ব্যবহার করে যে গতি পাওয়ার কথা তাই ঠিকমতো পাওয়া যায় না। ফাইভজির ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম হবে না।

অন্য এক অংশগ্রহণকারী জানিয়েছেন, ২০২৩ সালের আগে ফাইভজি ব্যবহারের সুবিধা সম্পর্কে খুব বেশি জানা যাবে না। তাই তখন ফাইভজি ফোন কেনা যেতে পারে।

অ্যান্ড্রয়েড অথোরিটি অবলম্বনে এজেড/ জুন ৯/২০১৯/১৬০৫

*

*