ঈদ যাত্রার টিকিট ফেইসবুক গ্রুপে, সক্রিয় প্রতারকরা

cyber-crime_techshohor

ইমরান হোসেন মিলন, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : শামিমুল ইসলাম ঈদে বাড়ি যাবার জন্য ফেইসবুকের একটি গ্রুপ থেকে টিকিট কিনেছিলেন। তার যাত্রার তারিখ ছিল ৩০ মে বৃহস্পতিবার রাতে। 

বাসে তিনি ঢাকা থেকে রংপুর যাবেন বলে রাত ১০টার মধ্যে পৌঁছে যান রাজধানীর কল্যাণপুরে। গাড়ি ছাড়ার সময় ছিল রাত ১১টায়। কিন্তু যখন নির্ধারিত সময়ে গাড়িতে উঠেন এবং নিজের টিকিটে দেওয়া সিটে বসতে যান তখন সেখানে আরেকজন বসে ছিলেন। পরে তার সিট দাবি করলে টিকিট চেক করে গাড়ির সুপারভাইজার। পরে জানা যায়, শামিমুলের যে টিকিট সেটি আসলে নকল। 

পরে তিনি অনেক চেষ্টা করে কোন রকমে অন্য একটি বাসে করে রওনা দেন। শামিমুল টেকশহরডটকমকে বলেন, টিকিট বিক্রির একটি ফেইসবুক গ্রুপে দেখি একজন টিকিটটি বিক্রির জন্য পোস্ট দিয়েছিল। পরে ইনবক্সে যোগাযোগ করে বিকাশে তাকে টাকা পাঠাই। তিনিও টিকিটটি আমাকে ইনবক্সেই দেন। পরে সেটি প্রিন্ট করি আমি। তবে যে নম্বরে বিকাশ করেছি, সেটি বন্ধ করে দিয়েছে। 

ঈদকে সামনে রেখে প্রতারক চক্ররা সক্রিয় হয়েছে ফেইসবুকের বিভিন্ন পেইজ, গ্রুপে। এদের বেশিভাগই ফেইসবুুকে নকল অ্যাকাউন্ট খুলে এমন প্রতারণা করছে। 

দেশে ফেইসবুকে টিকিট বিক্রি ও কেনার অসংখ্য পেইজ ও গ্রুপ রয়েছে। এর মধ্যে ট্রেন টিকিট বায়িং অ্যান্ড সেলিং বাংলাদেশ, টিকিট বায়িং অ্যান্ড সেলিং ইন বাংলাদেশ, বাস ও ট্রেন টিকিট বাই অ্যান্ড সেলসহ আরও অনেক বড় বড় গ্রুপে টিকিট কেনাবেচা হচ্ছে। 

এছাড়াও রয়েছে বিভিন্ন জেলা, বিভাগসহ এলাকাভিত্তিক ফেইসবুক গ্রুপ, সেগুলোতেও কেনাবেচা হয় ঈদের আগে ট্রেন, বাস, লঞ্চের টিকিট। 

আর সবগুলো গ্রুপেই এই প্রতারক চক্রটি প্রতারণার ফাঁদে ফেলছে যাত্রীদের। 

জিএসএম সুলতান মাহমুদ কাজ করেন একটি সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানে। তিনি দুই বছর আগে এমনই এক অভিজ্ঞতার শিকার হয়েছিলেন। ফেইসবুকের একটি গ্রুপ থেকে টিকিট কিনে পরে দেখেন সেটি নকল টিকিট। এরপর আর তিনি গ্রুপে টিকিট কেনার ভরসা পান না বলে জানান। 

গ্রুপগুলো ঘুরে দেখা যায়, অনেকেই এমন প্রতারণার কথা বলেছেন। অনেকেই আবার এসব সম্পর্কে সতর্কও করছেন। বিকাশ বা অন্য কোন মাধ্যমে প্রথমেই টাকা না পাঠানোর অনুরোধরও রয়েছে। তারপরও অনেকেই টিকিটের জন্য সেগুলো করছেন। 

ট্রেন টিকিট বায়িং অ্যান্ড সেলিং বাংলাদেশ গ্রুপে একজন তার ই-টিকিটের ছবি পোস্ট করে টিকিট প্রাপ্তির উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু সেখান থেকে কেউ পিন নম্বর নিয়ে কাউন্টার থেকে টিকিটটি প্রিন্ট করে নিয়েছেন। পরে টিকিটের মালিক সেটি প্রিন্ট করাতে গেলে বলা হয়, সেটি প্রিন্ট হয়ে গেছে। এমন অসংখ্য প্রতারণা হচ্ছে এসব গ্রুপে। 

এমন একটি ফেইসবুক গ্রুপের অ্যাডমিনের সঙ্গে কথা হয়। তিনি জানান, তারা এমন অবস্থায় যে আইডি থেকে প্রতারণামূলক কাজ করা হয় সেগুলো গ্রুপ থেকে রিমুভ করেন। এছাড়াও তারা গ্রুপের সদস্যদের সতর্ক থাকারও পরামর্শ দেন। কিন্তু অনেকেই তা না বুঝেই প্রতারণার ফাঁদে পড়েন। 

ইএইচ/ জু০১/ ২০১৯/ ১৩৪০

*

*

আরও পড়ুন