STE 2019 (summer) in news page

অ্যাকাউন্ট কমলেও বেড়েছে মোবাইলে লেনদেন

Laptop fair 2019 (in page)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : লেনদেনের সংখ্যা বাড়ছে, টাকায় বাড়ছে মোট লেনদেনের অংকও-কিন্তু তারপরেও বছরের প্রথম তিন মাসে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আর্থিক সেবা গ্রহনকারী সুবিধাভোগীর সংখ্যা কমেছে।

অবাক করা ব্যপার যে, মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আর্থিক লেনদেনকারী কার্যকর গ্রাহকের সংখ্যা বছরের শুরুতেও ছিল তিন লাখ ৭৩ হাজার। আর মার্চের শেষে সেটি ১৩ শতাংশের বেশী কমে গিয়ে দাঁড়ায় তিন কোটি ২৪ লাখে।

দিন কয়েক আগে এই হিসাব প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রতি মাসের হিসেবেই তারা এক মাস পরে গিয়ে প্রকাশ করে।

সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রকাশিত হিসাবগুলোর প্রায় সব শাখাতেই ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি দেখা গেলেও কার্যকর গ্রাহক সংখ্যার ক্ষেত্রে নেতিবাচব প্রবৃদ্ধি অনেককেই দুঃশ্চিন্তায় ফেলছে।

তবে কয়েকটি মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবা (এমএফএস) দেওয়া কোম্পানি বলছে, সাম্প্রতিক সময়ে তারা প্রকৃত গ্রাহক যাচাই-বাছাই করছেন তার প্রভাব পড়তে পারে এর অ্যাকাউন্ট সংখ্যার ওপর।

বিকাশের একটি সূত্র বলে, বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়মানুসারে একজন গ্রাহক একটি এনআইডি দিয়ে একটির বেশী অ্যাকাউন্ট করতে পারবে না।
কিন্তু তারা দেখেছেন, একটি এনআইডিতে একাধিক অ্যাকাউন্টের সংখ্যা তাদের নেটওয়ার্কেই কম নয়। পরে তারা গ্রাহক যাচাই-বাছাই করতে শুরু করেন এবং পর্যায়ক্রমে তারা এক এনআইডির একাধিক অ্যাকাউন্টের মধ্যে একটি রেখে বাকিগুলো বন্ধ করে দিতে শুরু করে।

এই প্রক্রিয়ায় শুধু বিকাশ গত এক বছরে এক কোটির বেশী সংযোগ বন্ধ করেছে। তাতে করে গ্রাহক সংখ্যার ওপর কিছুটা প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে বলেও জানান অপারেটরটির এক কর্মকর্তা।

বিকাশ বলছে, তাদের নেটওয়ার্কে এক দিনে গড়ে ৬০ লাখের মতো লেনদেন হয়।

তারা জানায়, সন্ধ্যার পর সাধারণত বেশী লেনদেন হয়, তবে রমজান মাসে এই চিত্রটি একটু বদলে যায়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব বলছে, সব মিলে দিনে এখন গড়ে ১১’শ থেকে ১২’শ কোটি টাকার লেনদেন হয়। তবে এর কতোটা বিকাশের মাধ্যমে হয় সে তথ্য জানা যায়নি।

বিকাশ জানায়, শুরুর দিকে তারা মূলত টাকা পাঠানোর মাধ্যম হিসেবে শুরু করলেও এখন তারা আরও অনেক সেবা নিজেদের নেটওয়ার্কে নিয়ে এসেছে। সামনের দিনে আরও সেবা যুক্ত হবে। তখন নতুন নতুন গ্রাহক এই নেটওয়ার্কে চলে আসবে।

মার্চ মাসের হিসাব অনুসায়ী, দেশে ১৬টি ব্যাংক এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে লেনদেন করার অনুমোদন রয়েছে। তবে ঠিক কতটির সেবা চালু আছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এক সময় লাইসেন্সের সংখ্যা ২৯টিতে চলে গিয়েছিল। তবে এর মধ্যে অনেক ব্যাংক তাদের লাইসেন্স ফিরিয়ে দিয়েছে।

মার্চে দিনে গড়ে এক হাজার ১১৮ কোটি ৬৬ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। তবে এপ্রিল এবং চলতি মে মাসে লেনদেনের এই হিসাব অনেক বাড়বে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

কারণ, এপ্রিলে পহেলা বৈশাখ এবং আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে মে মাসে অনেক ক্যাশব্যাক এবং অনেক ছাড় চলছে। ফলে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে লেনেদেনের পরিমাণ বেড়ে গেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, মার্চের শেষে তিন কোটি ২৪ লাখ কার্যকর সংযোগ থাকলেও মোট অ্যাকাউন্টের সংখ্যা ছিল ছয় কোটি ৭৫ লাখ।

জেডএ/ইএইচ/মে ২৪/২০১৯/১৯৩০

*

*

আরও পড়ুন