মোবাইল ব্যাংকিংয়ের লেনদেন সীমা বাড়ল

ছবি : সংগৃহীত
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল ব্যাংকিং দিয়ে লেনদেনের সীমা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। 

রোববার এক সার্কুলার জারি করে প্রতিষ্ঠানটি মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সীমা বাড়িয়ে দ্বিগুণ করেছে। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন সার্কুলার অনুযায়ী, এখন মোবাইল ব্যাংকিং গ্রহিকরা দিনে আগের চেয়ে দ্বিগুণের বেশি টাকা উত্তোলন করতে পারবেন। একইভাবে অ্যাকাউন্টে ক্যাশ ইনের ক্ষেত্রের সীমা বাড়ানো হয়েছে। 

নতুন নিয়ম অনুযায়ী এখন দিনে একটি অ্যাকাউন্ট থেকে পাঁচ বারে ৩০ হাজার টাকা ক্যাশ ইন করতে পারবেন। যেটা মাসে ২৫ বারে সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা ক্যাশ ইন করা যাবে। যা আগে ছিল সর্বোচ্চ ২০ বারে এক লাখ টাকা পর্যন্ত।  এর আগে গ্রাহক একটি অ্যাকাউন্টে দিনে দুই বারে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার টাকা ক্যাশ ইন করতে পারতেন। 

এখন গ্রাহক চাইলে একটি অ্যাকাউন্টে দিনে পাঁচ বারে ২৫ হাজার টাকা ক্যাশ আউট এবং মাসে ২০ বারে দেড় লাখ টাকা ক্যাশ আউট করতে পারবেন। যা আগে দিনে দুইবারে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা এবং মাসে ১০ বারে ৫০ হাজার টাকা ক্যাশ আউট করতে পারতেন। 

কেন্দ্রিয় ব্যাংক তাদের সার্কুলারে বলেছে, মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) একটি ক্রম বিকাশমান সেবা, যা বিগত কয়েক বছর যাবত আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছে। দেশের দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির সাথে তাল মিলিয়ে এ সেবা বর্তমানে নতুন খাত সম্প্রসারণে যেমন, ব্যাংকের মাধ্যমে দেশে আগত রেমিটেন্স বিতরণ, ই-কমার্স, ক্ষুদ্র ব্যবসা, বেতন বিতরণ ইত্যাদি ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

পেমেন্ট ইকো সিস্টেম-এর পরিবর্তিত প্রেক্ষাপট বিবেচনায় এমএফএস-এর সুশৃঙ্খল ও যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকল্পে এমএফএসের ব্যক্তি হিসাবের মাধ্যমে লেনদেনের সীমা পুনর্নির্ধারণ করা হল।

ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি হিসাবে (পি টু পি) টাকা স্থানান্তরের ক্ষেত্রে এখন প্রতিদিন সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা এবং মাসে ৭৫ হাজার টাকা লেনদেন করা যাবে। এ প্রক্রিয়ায় এতদিন দিনে সর্বোচ্চ ১০ হাজার এবং মাসে ২৫ হাজার টাকা স্থানান্তর করা যেত।

বর্তমানে দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে বিকাশ, নগদ, রকেট, ইউক্যাশসহ অনেক প্রতিষ্ঠানই এই সেবাটি দিচ্ছে। 

বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, মার্চের শেষে দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে তিন কোটি ২৪ লাখ কার্যকর সংযোগ থাকলেও মোট অ্যাকাউন্টের সংখ্যা ছিল ছয় কোটি ৭৫ লাখ। যার মধ্যে প্রায় অর্ধেকই রয়েছে বিকাশে। 

ইএইচ/মে১৯/ ২০১৯/ ১৯০০

*

*

আরও পড়ুন