ইন্টারনেট এখন মানুষের অধিকার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশ ডিজিটালাইজেশনের রূপান্তরের ধারাবাহিকতায় এমন একটা জায়গায় গেছে, ইন্টারনেট দেশের মানুষের জন্য এখন অত্যাবশ্যকীয় অধিকার হয়ে দাঁড়িয়েছে, বলেছেন মোস্তাফা জব্বার।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী বলেন, সামনের দিনে ইন্টারনেট ছাড়া কেউ কাজ করার বিষয়টি কল্পনাও করতে পারবে না। এই ক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জ আছে।

এই চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নিজেদেরকে অধিকতর সক্ষম করে গড়ে তুলতে বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেড বা বিএসসিসিএল কর্তৃপক্ষকে প্রস্ততি গ্রহণের নির্দেশও দেন মন্ত্রী।

মঙ্গলবার ঢাকায় বিএসসিসিএলের প্রধান কার্যালয় পরিদর্শনকালে সংশ্লিষ্টদের এই নির্দেশ দেন।

পরিদর্শনের সময় ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস, অতিরিক্ত সচিব মো. আজিজুল ইসলাম এবং বিএসসিসিএল ব্যবস্থাপনা পরিচালক মশিউর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

বিএসসিসিএল ব্যবস্থাপনা পরিচালক পরিদর্শনকালে মন্ত্রীকে প্রতিষ্ঠানটির বিস্তারিত কর্মকাণ্ড, ভবিষ্যত পরিকল্পনাসহ দেশে ব্যান্ডউইডথের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে চলমান বিভিন্ন কর্মসূচি এবং ভবিষ্যত পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

বিএসসিসিএলের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে জেনে নেবার পর মন্ত্রী প্রতিষ্ঠানটির কর্মসূচি আরও বেগবান করার কথা বলেন।

আগামীতে ব্যান্ডউইডথের বিপুল চাহিদা অনিবার্য। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব বা ডিজিটাল শিল্প বিপ্লবের যুগে প্রবেশ করেছে দেশ। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের ইন্ডাস্ট্রি হবে আইওটি, বিগডেটা, ব্লকচেইন বা রোবটিক ভিত্তিক। সেই ক্ষেত্রে প্রচুর ব্যান্ডউইডথের প্রয়োজন হবে। এই বিষয়ে এখন থেকেই তৈরি হতে হবে বলেন মোস্তাফা জব্বার।

গত দশ বছরের উদাহরণ টেনে তিনে বলেন, ২০০৮ সালের আগে দেশে ৭ দশমিক ৫ এমবিপিএস ব্যান্ডউইডথ ব্যবহার হতো। বর্তমানে দেশে ১১০০ এমবিপিএস ব্যান্ডউইডথ ব্যবহার হচ্ছে। তখন প্রতি এমবিপিএস ব্যান্ডউইডথের দাম ছিলো ২৭ হাজার টাকা। বর্তমানে তা ২৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

বর্তমানে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, পশ্চিম ইউরোপ-সিমিইউই-৪ এবং সিমিইউই-৫ সাবমেরিন ক্যাবল সিস্টেমে বিএসসিসিএলের অংশীদারিত্ব রয়েছে।

বিএসসিসিএল দেশের বর্তমান চাহিদা মিটিয়েও ভারতের ত্রিপুরায় ব্যান্ডউইডথ রপ্তানি করছে।

ইএইচ/মে১৪/২০১৯/২২২০

*

*

আরও পড়ুন