বাংলাদেশী মেয়ের কানাডায় বাজিমাত

RIC-techshohor
Robi Before feture image

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : নিউরো নেক্সাস ব্রেইন হেলথ হ্যাকাথনে স্ট্রোক ডিভাইস বানিয়ে পিপল চয়েজ অ্যাওয়ার্ড জিতেছে কানাডার ইউনিভার্সিটি অব ক্যালগেরির শিক্ষার্থীদের একটি দল।

এই দলে আছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত মালিয়াত আনিকা নূর। দলটির নাম ‘রিক টেকনলোজিস’। দলের বাকি সদস্যরা হলেন রায়ান রোজেনট্রেটর, নোয়াম অ্যাঙ্গলো, ব্রিটনি হ্যারিংটন, ড. আরভিন্দ গনেশ ও কাইলি গিল্ড।

এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে ইউনিভার্সিটি অব ক্যালগেরির বায়োমেডিকেল ইঞ্জেনিয়ারিং ও নিউরোসাইন্স ডিপার্টমেন্টের শিক্ষার্থীরা। হ্যাকাথনে মোট ১৫০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেন।

প্রতিযোগিতাটি শুরু হয় গত মার্চে। এর সময় ছিল ছয় সপ্তাহ। এই সময়ের মধ্যে প্রতিটি দলকে ২২টি ভিন্ন ভিন্ন সমস্যার সমাধান করতে বলেন বিচারকরা। গত সোমবার শিক্ষার্থীরা নিজেদের প্রকল্পগুলো বিচারকদের সামনে উপস্থাপন করেন। এতে বিজয়ী দল রিক টেকনোলজিস ১৭ হাজার ৫০০ ডলারের ফান্ড অর্জন করে।

প্রকৌশল ও বিজ্ঞানের সাহায্যে ব্রেইন ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য মেডিকেল সল্যুশন বের করাই ছিলো প্রতিযোগী দলগুলোর প্রধান কাজ। এর মধ্যে অ্যাম্বুলেন্স বা হাসপাতালে স্ট্রোক রোগীদেরকে সাহায্য করতে স্ট্রোক ডিভাইস তৈরি করে রিক টেকনোলোজি।

কাইলি গিল্ড ও তার দলের বাকি সদস্যরা এমন একটি প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন যা স্ট্রোকের অনেকগুলো ক্ষতিকর দিক প্রশমিত করতে সক্ষম।

কাইলি গিল্ড বলেন, ক্লিনিকাল ট্রায়াল ও কিছু গবেষণার পর ডিভাইসটি দিয়ে আসলেই অ্যাম্বুলেন্সে থাকা রোগীদের সহায়তা করা যাবে বলে আশা করছি।

এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, কানাডায় প্রতিবছর অন্তত ৪০ হাজার মানুষ স্ট্রোকে আক্রান্ত হন। যাতে দেশটির অন্তত ২৫০ কোটি ডলার খরচ করতে হয়। রিক টেকনোলজিসের উদ্ভাবন করা প্রযুক্তিটি আরও ঝালিয়ে দেখা হবে। তারপর সেটি ব্যবহার উপযোগী করার কথা জানানো হয়। 

আর এই পুরো বিষয়গুলোর সঙ্গে কাজ করছেন মালিয়াত আনিকা নূর। মালিয়াত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য ড. মুনাজ আহমেদ নূরের বড় মেয়ে। 

সিবিসি অবলম্বনে এজেড/ ইএইচ/ মে ১৪/২০১৯/১৬১০

*

*

আরও পড়ুন