ফাইভজির জন্য স্পেকট্রাম ব্যান্ড ঠিক করছে বিটিআরসি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফাইভজির জন্য এখন হতেই বিটিআরসিকে পুরোদমে প্রস্তুতি নিতে বলেছে সরকার।

টেলিযোগাযোগ বিভাগে বুধবার এক বৈঠকে ফাইভজির প্রস্তুতি নিতে বিটিআরসিকে নির্দেশনা দেয়া হয়।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

বৈঠকে দেশে কোন স্পেকট্রাম ব্যান্ডে ফাইভজি দেয়া হবে তা নির্ধারণে বিটিআরসিকে এখনই কাজ শুরু করতে বলেন জয়।

এছাড়া ফাইভজির ইকোসিস্টেম তৈরির জন্য পরিকল্পনা ও করণীয়গুলো দ্রুতই ঠিক করতে বলেন তিনি।

বৈঠকে টেলিযোগাযোগ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব অশোক কুমার বিশ্বাস, বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হকসহ বিভাগ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরের শীর্ষ পর্যায়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে জিএসএমএর সঙ্গে বাংলাদেশী প্রতিনিধি দলের বৈঠকে ফাইভজি বাস্তবায়নে করণীয় নিয়ে বাংলাদেশকে পরিকল্পনা দেয়ার কথা জানায় মোবাইল যোগাযোগ শিল্পের বৈশ্বিক সংগঠনটি।

জিএসএমএর এশিয়ার প্যাসিফিক শীর্ষস্থানীয়দের সঙ্গে ফেব্রুয়ারিতে ওই দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বাংলাদেশের দলে নেতৃত্ব দেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। বৈঠকে ছিলেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক।

ফাইভজি পরীক্ষাকারী বিশ্বের প্রথম কয়েকটি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটি।

২০১৮ সালের জুলাইয়ে রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশ ফাইভ জি সামিটে ওই পরীক্ষার উদ্বোধন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

সেখানে দেশে ফাইভজি প্রযুক্তির পরীক্ষায় গতি উঠেছিল ৪ দশমিক ১৭ জিবিপিএস।

সরকার ২০২১ হতে ২০২৩ এর মধ্যে দেশে ফাইভজি চালু করার কথা ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছে। এ জন্য সব রকম প্রস্তুতিতে  প্রযুক্তিগত সক্ষমতা তৈরি, কৌশলগত পরিকল্পনায় দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পারস্পরিক সহযোগিতা ও সমন্বয়ে জোর দেয়া হচ্ছে।

এডি/এপ্রিল১৮/২০১৯/২১০০

আরও পড়ুন –

ফাইভজিতে আমাদের ভবিষ্যৎ?

ফাইভজির প্রকল্পে হাত দিয়েছে টেলিটক

*

*

আরও পড়ুন