বাংলাদেশে হুয়াওয়ের ফাইভজি মিশন

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বিশ্বের হাতেগোনা যে কয়েকটি দেশে ২০১৮ সালের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত ফাইভজি পরীক্ষা চালানো হয়েছিলো তারমধ্যে একটি বাংলাদেশ।

আর এটি এত দ্রুত সম্ভব হয়েছিল হুয়াওয়ের কারণে। ওই ফাইভজি নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি নিয়ে এসেছিল তারা।

এবার হুয়াওয়ে বাংলাদেশে ও বিশ্বে ফাইভজির গুরুত্বপূর্ণ সম্ভাবনা এবং সুযোগের বিষয়টি জানাতে ‘অ্যাডভ্যান্সিং ডিজিটাল বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক উদ্যোগ নিয়েছে ।

যেখানে ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশে কিভাবে ফাইভজি চালু করা যেতে পারে এবং বাংলাদেশ কিভাবে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে অংশ নিতে পারে সেসব বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেয়া হবে।

রোববার হতে শুরু হওয়া এই আয়োজন চলবে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত। এতে পরবর্তী প্রজন্মের নেটওয়ার্কিং ইক্যুইপমেন্ট, ইন্টিগ্রেশন এবং ভ্যালু ক্রিয়েশনসহ ডিজিটাল ইনক্লুশনের বিভিন্ন ফিচার প্রদর্শন করা হবে।

প্রোগ্রামটির মূল থিম  ‘ফাইভজি ইজ অন’।

হুয়াওয়ে টেকনোলজি বাংলাদেশের সিটিও জেরি ওয়াং এই প্রোগ্রাম সম্পর্কে জানান, বিশ্ব ও বাংলাদেশের জন্য ফাইভজি এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। সম্পূর্ণ সংযুক্ত ও বুদ্ধিবৃত্তিক বাংলাদেশ গড়তে প্রতিটি মানুষ, বাড়ি ও প্রতিষ্ঠানের জন্য ডিজিটাল সেবা দিতে তারা কাজ করছে।

‘এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বৈশ্বিক ডিজিটাল রূপান্তরের আর্থ-সামাজিক সুবিধার সম্ভাব্যতা, জীবনের সব ক্ষেত্রে কিভাবে ফাইভজি ভ্যালু চেইনকে প্রভাবিত করবে, অপারেটরদের আকাঙ্ক্ষা, ফাইভজি সক্ষমতা ও ব্যবহারের চিত্রসহ বিভিন্ন বিষয় তুলে ধরা হবে’ বলেন তিনি।

ইতোমধ্যে গত বছর আমরা বাংলাদেশে পরীক্ষামূলকভাবে ফাইভজি প্রদর্শন করেছি। এখন আমরা দেখাতে চাই, আমরা ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত।’

এই প্রোগ্রামে বিভিন্ন শিল্পখাতের প্রতিনিধিদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কারণ হুয়াওয়ে মনে করছে ফাইভজি বিপ্লবের একটি প্রধান দিক হলো শিল্প খাতকে স্মার্ট ফ্যাক্টরিতে রূপান্তর করা।

এডি/এপ্রিল০৭/২০১৯/২১৩০

*

*

আরও পড়ুন