Techno Header Top and Before feature image

মিলিয়ন ডলার জিততে সিলিকন ভ্যালি যাচ্ছে রেপটো

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়ন হয়ে মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ লড়াইয়ে সিলিকন ভ্যালিতে স্টার্টআপ ওয়ার্ল্ড কাপের চূড়ান্ত পর্বে যাচ্ছে দেশের উদ্যোগ রেপটো।

শনিবার বাংলাদেশ পর্বে বিজয়ী হয় লার্নিং, আর্নিং ও নলেজ শেয়ারিং তথা এডুকেশন প্লাটফর্ম রেপটো। এছাড়া প্রথম ও দ্বিতীয় রানার্স আপ হয় যথাক্রমে বঙ্গ ও সোলশেয়ার।

ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল আয়োজিত ‘ইজেনারেশন প্রেজেন্টস স্টার্টআপ ওয়ার্ল্ড কাপ ২০১৯, বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রতিযোগিতাটি এই বছর প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হয়েছে। দেশসেরা প্রযুক্তি স্টার্টআপ খুঁজে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেয়া হবে।

সিলিকন ভ্যালির চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় বিভিন্ন দেশের ৩৯ আঞ্চলিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরা অংশগ্রহণ করবে। আগামী ১৭ মে সিলিকন ভ্যালিতে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।

দেশে স্টার্টআপ ওয়ার্ল্ড কাপের আয়োজন করে ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটাল এবং ইজেনারেশন লিমিটেড। 

বাংলাদেশ পর্বের চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম তৈরিতে অবদানের জন্য স্টার্টআপ ঢাকা, গ্রামীণফোন লিমিটেড, মাইক্রোসফট বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-কে ‘ইজেনারেশন স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, স্থানীয় বিনিয়োগকারীদের সুযোগের জন্য ফেনক্স এবং ইজেনারেশনকে ধন্যবাদ জানাই। আমি প্রত্যাশা করি বাংলাদেশি তরুণ উদ্যোক্তাদের কঠোর পরিশ্রম, অঙ্গীকার ও উচ্চাকাঙ্খা সিলিকন ভ্যালিতে অনুষ্ঠিত চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় ভালো স্বীকৃতি পাবে।

ফেনক্স ভেঞ্চার ক্যাপিটালের জেনারেল পার্টনার ও ইজেনারেশন গ্রুপের চেয়ারম্যান শামীম আহসান বলেন, এই আয়োজনের মাধ্যমে আমরা উদ্ভাবনী সমাধান নিয়ে বাংলাদেশে স্টার্টআপের নতুন মাত্রা দেখতে পেরেছি। স্থানীয় স্টার্টআপগুলো প্রাযুক্তিক বিপ্লবের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাচ্ছে এবং সফলতার সেরা অবস্থানে যাচ্ছে। আমরা স্টার্টআপ ওয়ার্ল্ড কাপের চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় রেপটো এর বিষয়ে খুবই আশাবাদী।

এর আগে ৮৬টি আবেদনের মধ্যে ১০ ফাইনালিস্ট নির্বাচিত করা হয় যারা বাংলাদেশ ফাইনালে অংশ নেয়। এগুলো হলো-আমার আস্থা, বঙ্গ, গেজ, জেমসক্লিপ, হ্যান্ডিমামা, হ্যালোটাস্ক, জোবাইক, রেপটো, সোলশেয়ার এবং যান্ত্রিক।

রাজধানীর তেজগাঁওয়ে অবস্থিত আরটিভি বেঙ্গল স্টুডিওতে তারা উপস্থিত দর্শক ও বিচারকদের সামনে নিজেদের ব্যবসাকে তুলে ধরেন।

বিজয়ী নির্বাচন করতে বিচারকদের মধ্যে ছিলেন- ইনফ্লেকশন ভেঞ্চারের পার্টনার তানভীর আলী, মাইক্রোসফট বাংলাদেশ, মায়ানমার, নেপাল, ভুটান ও লাওসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবির, আইপিডিসি ফিন্যান্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মমিনুল ইসলাম এবং সহজের প্রতিষ্ঠাতা ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মালিহা কাদির।

১০ ফাইনালিস্টসহ আরও ৭টি অংশগ্রহণকারী স্টার্টটাপ তাদের সল্যুউশন পৃথক কিয়স্কে প্রদর্শন এবং বিনিয়োগকারী ও দর্শনার্থীদের সামনে তুলে ধরার সুযোগ পান।

প্রতিযোগিতার সহ-আয়োজক হিসেবে ছিলো বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরাম (বিআইএফ)। এছাড়া অংশীদার হিসেবে ছিলো ভেঞ্চার ক্যাপিটাল অ্যান্ড প্রাইভেট ইক্যুইটি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশে (ভিসিপিয়াব), টাই ঢাকা এবং ইও বাংলাদেশ। এই উদ্যোগের সাপোর্টিং পার্টনার হিসেবে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, নলেজ পার্টনার হিসেবে ইউএনডিপি এবং মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিলো আরটিভি।

ইএইচ/এপ্রি০৭/২০১৯/১২৩৫

*

*

আরও পড়ুন