পর্তুগাল গেলো দলটি

পর্তুগালের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার পর বিমানবন্দরে শাবিপ্রবির দলটির সেলফি। ছবি : ফেইসবুক থেকে নেওয়া
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অবশেষে বিশ্বের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা এসিএম-আইসিপিসিতে অংশ নিতে পর্তুগালের উদ্দেশ্য রওনা দিয়েছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের দলটি।

শনিবার সন্ধ্যা ছয়টার একটে ফ্লাইটে দেশ ছাড়ে বাংলাদেশের চ্যাম্পিয়নরা। ৩১ তারিখ থেকে দলটি অংশ নেবে এসিএমআইসিপিসির ওয়ার্ল্ড ফাইনালে।

দলটির সদস্য মওদুদ খান শাহরিয়ার টেকশহরডটকমকে বলেন, ‘আমরা এখন শাহজালার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আছি। সব প্রক্রিয়া শেষ করে আমরা বিমানে উঠে গেছি। আশা করছি ৩১ তারিখ প্রতিযোগিতা শুরুর অনেক আগেই আমরা পর্তুগাল পৌঁছাবো।’

ভিসা জটিলতায় একসময় অনিশ্চিত হয়ে পড়ে এসিএম-আইসিপিসিতে অংশ নেবার বিষয়টি। পরে টেকশহরডটকমে  গত ২৫ মার্চ ‘এসিএম-আইসিপিসিতে অংশ নিতে পারছে না দেশের চ্যাম্পিয়নরা!’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদন প্রকাশের পর তা সংশ্লিষ্টদের নজরে আসলে বাংলাদেশের চ্যাম্পিয়নরা যাতে ভিসা পায় সে সম্পর্কে অনেকেই কাজ করার কথা জানান এবং টেকশহরের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

পরে গত বৃহস্পতিবার দলটিকে ফ্রান্স দূতাবাসে দেখা করার কথা জানায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এরপর সেদিনই শাবিপ্রবির সাস্ট ডেসিফ্রেডর দলটি ভিসা পায়। বাংলাদেশে প্রতিযোগিতার আঞ্চলিক পর্বে চ্যাম্পিয়ন হয় দলটি। দলের তিন সদস্য মওদুদ খান শাহরিয়ার,  জুবায়ের আরাফ ও অভিষেক পাল। তাদের কোচ হিসেবে সঙ্গে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক বিশ্বপ্রিয় চক্রবর্তী এবং প্রভাষক মেহেদী হাসান নাহিদ।

আগামী কাল রোববার থেকে ৫ এপ্রিল পর্যন্ত পর্তুগালে অনুষ্ঠিত হবে এসিএম-আইসিপিসির ওয়ার্ল্ড ফাইনাল। যাতে বাংলাদেশ থেকে শাবিপ্রবির দল ছাড়াও প্রতিনিধিত্ব করছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে দল ব্লাডহাউন্ড। দলটি অবশ্য আগেই ভিসা পেয়ে যায়।

এর আগে শাবিপ্রবির দলটি পর্তুগালে অনুষ্ঠিতব্য ওয়ার্ল্ড ফাইনাল প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে গত ২১ ফেব্রুয়ারি ভিসার আবেদন করে। দেশে পর্তুগালের দূতাবাস না থাকায় আবেদন করতে হয় ফ্রান্সের দূতাবাসের মাধ্যমে। কিন্তু গত ৭ মার্চ তারা জানতে পারেন ভিসা হয়নি। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিইসি বিভাগের চেয়ারম্যান এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের মাধ্যমে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ করেন। কিন্তু সেখান থেকেও গত ২৫ মার্চ জাতে পারে তাদে ভিসা হয়নি।

অবশেষে বেশ কিছু ব্যক্তির চেষ্টায় গত বৃহস্পতিবার দলটির তিন সদস্য এবং দুই কোচের ভিসা নিশ্চিত হয়।

ইএইচ/মার্চ৩০/২০১৯/১৮২৫

আরও পড়ুন : দেশ সেরা তিন প্রোগ্রামার

এসিএম-আইসিপিসিতে অংশ নিতে পারছে না দেশের চ্যাম্পিয়নরা!

ভিসা মিলেছে, এসিএম-আইসিপিসিতে যাচ্ছে দেশের চ্যাম্পিয়নরা

*

*

আরও পড়ুন