ইন্টারনেট সেবার মান নিয়ে কোনো অজুহাত নয়

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ইন্টারনেট সেবার সর্বোচ্চ মান নিশ্চিতে কোনো অজুহাত শুনবেন না ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ (টিআরএনবি) আয়োজিত এক গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইন্টারনেট সেবাদাতা বিভিন্ন পর্যায়ের সব প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্যে এ কথা বলেন তিনি।

টিআরএনবি সভাপতি জাহিদুল ইসলাম সজলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ‘ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক ফর ডিজিটাল সার্ভিস : প্রেজেন্ট অ্যান্ড ফিউচার’ শীর্ষক ওই গোলটেবিলে মন্ত্রী বলেন, নানা সমস্যার মধ্যেও এনটিটিএন বা অপারেটর বা এসব সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর যাদের যে সক্ষমতা আছে সেখান হতে জনগণকে সর্বোচ্চ মান নিশ্চিত করতে হবে। এখানে কম্প্রোমাইজের কোনো সুযোগ নেই। এখন আর বলা যাবে না যে আমরা শিখছি, এখানে কোনো রকম অজুহাত চলবে না।

ঢাকার গ্রাহক এক রেটে ইন্টারনেট পাবে আর ঢাকার বাইরের গ্রাহককে বাড়তি পয়সা দিতে হবে সেটি কোনোভাবে গ্রহণযোগ্য নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, যেহেতু এনটিটিএন বা যেকোনো নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে সেবা পৌঁছাতে হচ্ছে আর তার জন্যে প্রতিষ্ঠানগুলোর বাড়তি একটা খরচ আছে। আমাদের রাস্তা বের করতে হবে গ্রাহককে যেনো সেই খরচ বহন করতে না হয়।

‘এটা কীভাবে হবে, এটা কী সরকার দেবে নাকি এনটিটিএন বা অপারেটর দেবে সেটা দেখতে হবে। দেশের নাগরিকের উপর এটা চাপিয়ে দেয়া উচিত মনে করি না। আমার এক দেশ এক রেট হওয়া উচিত। এটা আমার প্রাপ্য, এটি অধিকার এবং এটি বাস্তবায়ন করতে চাই’ বলছিলেন তিনি।

মন্ত্রী মনে করেন কোনো না কোনোভাবে এটির সমাধান বের করা সম্ভব। তিনি বলেন, এ জন্য কোনো জায়গায় যদি ভর্তুকি দিতে হয় তাহলে সরকার তা দেবে। সরকার বহুক্ষেত্রে ভর্তুকি দেয়। ছেলেমেয়েরা যদি বিনামূল্যের ইন্টারনেট ব্যবহার করে পৃথিবীর সেরা জ্ঞানী হয় তাহলে এই বিনিয়োগ তো খুবই অল্প।

গোলটেবিলে বিটিআরসির চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে একে অপরকে ব্লেইম গেইম না করে সবাইকে আলোচনার টেবিলে বসে সমস্যা সমাধানের আহবান জানান।

তিনি বলেন, গত ১০ বছরে টেলিকম-ইন্টারনেট সেক্টরে বাংলাদেশ যতখানি এগিয়েছে বিশ্বের কোনো দেশ এভাবে এগুতে পারেনি।

‘গ্রাহকের কোনো দূর্বলতা নেই, গ্রাহকের শতভাগ হক রয়েছে ভাল সেবা পাওয়ার। গ্রাহকের জন্যই এই অপারেটর ও বিটিআরসি। বিটিআরসি রেভিনিউ আর্নিং সংস্থা না হয়েও তার যে রেগুলেশন তার জন্য সংস্থাটি বেশ আয় করছে। তবে কারও ব্যবসার ক্ষতি করে বিটিআরসি আয় করুক সেটা সংস্থাটির চাওয়া না। তবে গ্রাহককে কোনো খারাপ সার্ভিস দেয়া যাবে না’ বলছিলেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান।

গোলটেবিল শুরুতে আলোচনার বিষয়বস্তু নিয়ে উপস্থাপনা দেন টিআরএনবির সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার দে।

বক্তব্য রাখেন টেলিকম বিশেষজ্ঞ টিআইএম নূরুল কবীর, আইএসপিএবির সভাপতি আমিনুল হাকিম, গ্রামীণফোনের ডেপুটি সিইও ইয়াসির আজমান, ফাইবার অ্যাট হোমের চেয়ারম্যান মইনুল হক সিদ্দিকী, সামিট কমিউনিকেশন এর প্রধান নির্বাহী আরিফ আল ইসলাম এবং রবির রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স ভাইস প্রেসিডেন্ট অনামিকা ভক্ত।

এছাড়া উপস্থিত ছিলেন খাতসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, টিআরএনবির কার্যনির্বাহী কমিটির নেতারা ও সাধারণ সদস্যরা। 

আরো পড়ুন ঃ- 

শিশুদের জন্য ইন্টারনেটে ফিল্টারিং হচ্ছে : মোস্তাফা জব্বার 

সারাদেশে ইন্টারনেট মিলবে এক দামে 

এডি/মার্চ১২/২০১৯/১৮৪০

২ টি মতামত

    • tahmina tania said:

      আপনার মতামত প্রকাশের জন্য ধন্যবাদ । সাথে থাকুন । টেক শহর জানাবে তথ্য প্রযুক্তির সর্বশেষ খবরাখবর ।

*

*

আরও পড়ুন