দেশে প্রযুক্তি খাতে নারী ১৫ শতাংশ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে মাত্র ১৫ শতাংশ নারী কাজ করেন বলে জানাচ্ছে খাতটি নিয়ে গবেষণা করা প্রতিষ্ঠান প্রেনিউর ল্যাব।

তথ্যপ্রযুক্তি খাতে নারীর অংশগ্রহণ নিয়ে জরিপটির ফলাফল বৃহস্পতিবার প্রকাশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। 

প্রেনিউর ল্যাব দেশের ১০৭টি বিভিন্ন ধরনের তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের উপর জরিপটি চালিয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার এবং ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান।

Techshohor Youtube

তবে জরিপটি থেকে বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং বা বিপিওকে বাদ রাখা হয়েছে।

প্রেনিউর ল্যাব বলছে, এসব নারীদের বেশিরভাগই আবার ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত।

গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী আরিফ নিজামী টেকশহরডটকমকে বলেন, আমরা জরিপটি চালাতে গিয়ে বেশ কিছু অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছি। বিশেষ করে তথ্য সংগ্রহ করতে গিয়ে। 

প্রতিষ্ঠানটি চেষ্টা করেছে কোম্পানিগুলোর শেয়ার, মালিকানা বা পরিচালনা বোর্ডে কতজন নারী রয়েছেন তার হিসাব জানতে। কিন্তু অনেক প্রতিষ্ঠান তা জানায়নি বলে উঠে এসেছে। 

দেশের সবচেয়ে বড় তথ্যপ্রযুক্তির সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস বা বেসিস নির্বাচনের সময় ভোটার তালিকা থেকে নারীদের নিয়ে কিছু তথ্য নেওয় হয়। সেখানে ৬৮৮টি কোম্পানির মধ্যে মাত্র ৩৩টির প্রতিনিধিত্ব করে। যা শতকরা হিসেবে মাত্র ৫। 

জরিপটিতে নারীদের ইন্টারনেট ব্যবহার নিয়েও কিছু তথ্য উঠে এসেছে। যেগুলো মূলত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের গুগল অ্যানালিটিকস বিশ্লেষণ করে পাওয়া গেছে। সেখানে বলা হচ্ছে, দেশের মাত্র ২০ শতাংশ নারী ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। 

ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে  ১৮ থেকে ২৪ বয়েসীরাই সবচেয়ে বেশি ৪৬ শতাংশ। ২৫ থেকে ৩৪ বয়েসীরা ৪২ শতাংশ, ৩৫ থেকে ৪৫ এবং তারও বেশি বয়েসী ব্যবহারকারী মধ্যে চার শতাংশ। এছাড়াও ১৩ থেকে ১৭ বছর বয়েসী ইন্টারনেট ব্যবহারকারী রয়েছে ৮ শতাংশ বলে জানায়। 

আরিফ নিজামী বলেন, প্রযুক্তি খাতে নারীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে প্রতিষ্ঠানগুলোতে লিঙ্গ সমতায় নজর দিতে হবে। এটা নারীদের এক ধরনের অধিকার। সেটাও বুঝতে হবে প্রতিষ্ঠানগুলোকে। 

বেসিসের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি ফারহানা এ রহমান অবশ্য নারীদের প্রযুক্তি খাতে এগিয়ে আসার কথাই বলছেন।

তিনি বলেন, আগে যারা এই খাতে এসেছেন তারা তো আছেনই। তবে নতুন করে নারীরা এ খাতে কাজ করতে আসছেন। যা আগের তুলনায় অনেকটাই বেশি। 

তিনি বলেন, বেসিসে যারা নতুন সদস্য হতে আবেদন করছেন তাদের একটা বড় অংশ এখন নারী। যারা কোম্পানির মালিক কিংবা বোর্ডে একটা ভালো পরিমাণ শেয়ারের অংশীদার। 

ইএইচ/মার্চ০৮/২০১৯/১১০০ 

 

৩ টি মতামত

  1. অনন্যা মজুমদার said:

    ‘সাম্যের গান গাই-
    আমার চক্ষে পুরুষ-রমণী কোনো ভেদাভেদ নাই!
    বিশ্বের যা কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর
    অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর।
    বিশ্বে যা কিছু এল পাপ তাপ বেদনা অশ্রুবারি,
    অর্ধেক তার আনিয়াছে নর অর্ধেক তার নারী।’
    নারী কবিতায় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বলেছিলেন কথাগুলো। বিশ্বের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। কোন জাতিকে এগিয়ে যেতে হলে নারী ও পুরুষের যৌথ প্রচেষ্ঠায় সম্ভব। তারপরও আমি প্রত্যাশা করি নারীকে নারী রুপে না দেখে মানুষ রুপে দেখলে পৃথিবীটাও হবে মানবিক।

  2. অনন্যা মজুমদার said:

    ‘সাম্যের গান গাই-
    ‘আমার চক্ষে পুরুষ-রমণী কোনো ভেদাভেদ নাই!
    বিশ্বের যা কিছু মহান সৃষ্টি চির কল্যাণকর
    অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর।
    বিশ্বে যা কিছু এল পাপ তাপ বেদনা অশ্রুবারি,
    অর্ধেক তার আনিয়াছে নর অর্ধেক তার নারী।’
    নারী কবিতায় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বলেছিলেন কথাগুলো। বিশ্বের জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। কোন জাতিকে এগিয়ে যেতে হলে নারী ও পুরুষের যৌথ প্রচেষ্ঠায় সম্ভব। তারপরও আমি প্রত্যাশা করি নারীকে নারী রুপে না দেখে মানুষ রুপে দেখলে পৃথিবীটাও হবে মানবিক।

*

*

আরও পড়ুন