Techno Header Top and Before feature image

সেই কলড্রপেই ধরা জিপি

গ্রামীণফোনের প্রধান কার্যালয় জিপি হাউজ। ছবি : টেকশহর
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অপারেটরগুলোর মানসম্মত সেবার পরীক্ষায় কলড্রপের বেঞ্চমার্ক ধরে রাখতে পারেনি গ্রামীণফোন।

সোমবার বিটিআরসি মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর ‘কোয়ালিটি অব সার্ভিস ড্রাইভ টেস্টের’ প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ঢাকা মহানগরে এই পরীক্ষা চালায় তারা।

পরীক্ষার ফলাফলে দেখা যায়, জিপির কলড্রপের হার ৩ দশমিক ৩৮ শতাংশ। যেটি কলড্রপের বেঞ্চমার্ক সর্বোচ্চ ২ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়।

যেখানে রবির ১ দশমিক ৩৫, বাংলালিংকের ০ দশমিক ৫৮ এবং টেলিটকের ১ দশমিক ৫৮ শতাংশ এই কলড্রপ।

২০১৮ সালের অক্টোবরে গ্রামীণফোনের কলড্রপ নিয়ে সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তখনকার বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। তিনি তখন বলেন, ‘গ্রামীণফোন ব্যবসার জন্য কলড্রপ করে। একটা কলে চার-পাঁচবার কলড্রপ, এটা বাস্তবসম্মত না। এর বিরুদ্ধে একটা পদক্ষেপ নিতে হবে।’

এরপর ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর হতে ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত  সবগুলো অপারেটররের কলড্রপের পরিসংখ্যান প্রকাশ করে বিটিআরসি।

সেখানে কলড্রপে শীর্ষ অবস্থানে দেখা যায় গ্রাহক সংখ্যায় শীর্ষে থাকা গ্রামীণফোন। গত এক বছরে ১০৩ কোটি ৪৩ লাখ বার কলড্রপ হয়েছে অপারেটরটির।

আর ওই এক বছরে গ্রাহক সংখ্যায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা রবির কলড্রপ হয় ৭৬ কোটি ১৮ লাখ বার।

সক্রিয় সংযোগ বিবেচনায় গ্রামীণফোনের রয়েছে সাত কোটি সাত লাখ সংযোগ আর রবির চার কোটি ৬১ লাখ সংযোগ। অবশ্য গ্রাহক সংখ্যার তুলনায় জিপি-রবির কলড্রপের ‘সাধারণ সংখ্যায়’ খুব একটা পার্থক্য নেই।

বিটিআরসির নির্দেশনা অনুযায়ী, প্রতিদিন একজন গ্রাহকের একটির বেশি কলড্রপের প্রতিটিতে এক মিনিট করে করে টকটাইম ফেরত দিতে হবে।

কোয়ালিটি অব সার্ভিস (কিউওএস) নীতিমালা অনুযায়ী অপারেটরগুলোর বিভিন্ন সেবার মান মূল্যায়ন করে র‌্যাঙ্কিং করার কথা। র‍্যাঙ্কিংয়ের জন্য এই ড্রাইভ টেস্ট অন্যতম।

নীতিমালায় অপারেটরগুলোর সেবার মানের ক্ষেত্রে বেঞ্চমার্কও ঠিক করে দেয়া হয়েছে। সে অনুয়ায়ী ড্রাইভ টেস্টের ফলাফল তুলনা করা হয়।

ঘোষিত মানদণ্ড অনুসারে সেবা দেওয়া না হলে সংশ্লিষ্ট অপারেটরকে জরিমানা করতে পারবে বিটিআরসি বলে নীতিমালায় বলা হয়েছে।

এডি/ফেব্রু১৮/২০১৯/১৮২০

*

*

আরও পড়ুন