STE 2019 (summer) in news page

এমএনপিতে যা আগ্রহ তাও কমছে

Laptop fair 2019 (in page)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আলোচনার তুলনায় সেভাবে সাড়া ফেলেনি নম্বর ঠিক রেখে অপারেটর বদল বা এমএনপি সেবা। দেশে ১৫  কোটি ৭০ লাখ সংযোগের বিপরীতে এমএনপি সেবা গ্রহীতার সংখ্যা দেখলেও বিষয়টি স্পষ্ট হয়।

এখন এই সেবা নিয়ে অপারেটর বদলে গ্রাহকের যা আগ্রহ তাও ক্রমান্বয়ে কমছে। ২০১৮ সালের ১ অক্টোবর দেশে এমএনপি চালুর পর চার মাসে এই সেবা গ্রহীতার সংখ্যা নিম্নমুখী।

এমএনপি চালুর প্রথম মাস ২০১৮ সালের অক্টোবরে এই সেবা নিতে আবেদন করেন ৭৬ হাজার ৩৪৭ জন গ্রাহক। এরমধ্যে ৪৪ হাজার ৩১২ জন সফল হন। ব্যর্থ হন ৩২ হাজার ৩৫ জন।

নভেম্বরে আবেদন করেন ৫৮ হাজার ৮১২ জন। এরমধ্যে সেবা নিতে পারেন ৩২ হাজার ৭৭৩ জন। আর পারেননি ২৬ হাজার ৩৯ জন।

ডিসেম্বরে মোট আবেদন করেন ৫৬ হাজার ৫৫২ জন। সেবা পান ২৯ হাজার ২৫৮ জন। আর পাননি ২৭ হাজার ২৯৪ জন।

২০১৯ সালের জানুয়ারিতে এই সেবার জন্য আবেদন করেন ৪৬ হাজার ৮৬৮ জন।

টেলিকম খাত বিশেষজ্ঞ এবং মোবাইল অপারেটরগুলোর সংগঠন অ্যামটবের সাবেক মহাসচিব এবং প্রধান নির্বাহী টিআইএম নূরুল কবীর টেকশহরডটকমকে বলেন, ‘আসলে এমএনপি এখন হতে ৫-৭ বছর আগে চালু হওয়া উচিত ছিল। বাজার তখন এমএনপির জন্য অ্যাপ্রোপিয়েট ছিল। ইন্টারোডাকশনটা অনেক লেইটে হয়েছে যখন মার্কেটে অনেকগুলো নীতিমালা চলে আসছে, এসএমপিও করা হয়েছে। এই এসএমপিও করার দরকার হতো না যদি এমএনপিটা আরও ৫-৭ বছর আগে করা হতো।’

‘বিজনেস কেইসের দিক হতে মনে করি এমএনপির লেইট স্টার্টটা ঠিক হয়নি। আমাদের  দেশ মাল্টি সিমার কান্ট্রি, আমাদের বিহ্যাভিয়ার প্যাটার্ন, কাস্টামার এক্সিপেরিয়েন্স তার সঙ্গে এটা মেলে না’ বলেন তিনি।

নূরুল কবীর বলছেন, সাধারণ গ্রাহকরা বিভিন্ন প্যাকেজের উপর নির্ভর করে সিম চেইঞ্জ করে, সেক্ষেত্রে এই অভ্যাস একটি অনীহার কারণ। আবার এমএনপির জন্য যে পরিমাণ প্রচার-প্রপাগাণ্ডার দরকার ছিল তা হয়নি।

এক দশকের অপেক্ষার পর দেশে ২০১৮ সালের অক্টোবরে এমএনপি সেবা চালু হয়।

২০১৭ সালের নভেম্বরে বিটিআরসি ইনফোজিলিয়ন বিডি-টেলিটেক নামে একটি কোম্পানিকে এ সেবা চালুর লাইসেন্স দেয়। তখন ১৮০ দিনের মধ্যে চালুর শর্ত ছিল। কোম্পানিটি মার্চের মধ্যে সেবা চালুর প্রতিশ্রুতি দিলেও তা হয়নি।

এর আগে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে একবার নিলাম আহবান করেও শেষ পর্যন্ত নিরাপত্তার কথা বলে তা বাতিল করা হয়। এরও আগে ২০০৮ সালে প্রথম উদ্যোগ নেওয়া হয় নিলামের।

এরপর ২০১৪ সালে বিটিআরসি এ সংক্রান্ত নীতিমালা করে। ওই সময়ও নানা অজুহাত তৈরি করে উদ্যোগটি পিছিয়ে দিতে অনেকটা বাধ্য করে অপারেটরগুলো।

এডি/ফেব্রু১৪/২০১৯/১৬৫০

*

*

আরও পড়ুন