জাবিতে বিজ্ঞান উৎসবে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : তৃতীয় জাতীয় বিজ্ঞান উৎসবে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের পুরস্কার দিয়েছে জাহাঙ্গীরনগর সায়েন্স ক্লাব।

দুই দিনব্যাপী উৎসবের শেষ দিনে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করে আয়োজকরা। আয়োজনে প্রতিটি ক্যাটাগরি থেকে চ্যাম্পিয়ন, রানারআপসহ পাঁচ জন করে শিক্ষার্থীকে পুরস্কার দেয় জেইউএসসি।

শনিবার পুরস্কার বিতরণীর মধ্য দিয়ে শেষ হয় এই আয়োজন।

আয়োজনের মিডিয়া পার্টনার ছিল টেকশহরডটকম।

তৃতীয়বারের মতো এই আয়োজনে অংশ নেয় ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়, ৩০টি কলেজ এবং ৫০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের হাজারের অধিক শিক্ষার্থী।

প্রজেক্ট শোকেসে কলেজ লেবেলে চ্যাম্পিয়ন ফিউচার ইনোভেশন সায়েন্স ক্লাব, রানার আপ হামদর্দ পাবলিক কলেজ। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি, রানার আপ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়।

কুইজে জুনিয়র লেবেলে চ্যাম্পিয়ন অ্যাসেড স্কুলের শিক্ষার্থী দীপ্ত ভৌমিক, রানার আপ সাউথ ভিশন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মারুফ হাসান রিয়াদ। সিনিয়র লেবেলে সাভার ক্যান্টনমেন্ট পাবিলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের মালিহা লাহিন চ্যাম্পিয়ন এবং আফাজ উদ্দিন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ইশরাত জাহান রানার আপ হয়েছে।

কলেজ পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পয়ন হয়েছে সাভার মডেল কলেজের সোলাইমান হোসেন এবং রানার আপ হয়েছে বিপিএটিসি স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী রেফাজ হোসেন।

আইডিয়া কনটেস্টে জুনিয়র পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন জেইউ স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থী সারাফ নওইর প্রিয়ন্তী এবং রানারআপ একই প্রতিষ্ঠানের ফারাহ বিনতে আবেদীন। সিনিয়র পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন রেডিও কলোনি মডেল স্কুলের সাভার ক্যান্টনমেন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের মালিহা লাহিন। এছাড়াও কলের পর্যায়ের একই প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আহাদ খান।

এছাড়াও রুবিক্স কিউব প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে মোহাম্‌মাদপুর সরকারি বিদ্যালয়ের আল-জাবির সিয়াম, রানারআপ হয়েছে মাহাবুবুল হোসের রবিন।

পোস্টার প্রেজেন্টেশনে একটি দলকে চ্যাম্পিয়ন ও আরও দুটি দলকে প্রথম ও দ্বিতীয় রানারআপ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ।

পুরস্কারের পাশাপাশি সব ক্যাটাগরির প্রথম পাঁচ শিক্ষার্থীকেই সনদ দেওয়া হয়।

এর আগে শুক্রবার সকালে প্রধান অতিথি থেকে দুই দিনের ওই উৎসবের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বা বুয়েটের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ।

ইএইচ/ফেব্রু৯/২০১৯/২০৪৫

*

*