কর ও রিটার্ন দাখিলের উদ্যোগ বিডিট্যাক্স

কর ও রিটার্ন দাখিল অনেকের কাছে দুর্বোধ্য, এমনকি অনেকে জানেনই না তার কর দেয়া বাধ্যতামূলক হয়েছে। কর রিটার্ন দাখিল কাজটিই সহজ করেছে উদ্যোগ বিডিট্যাক্স ডটকম ডটবিডি। বিস্তারিত জানাচ্ছেন ইমরান হোসেন মিলন।

বিডিট্যাক্স
গত কয়েক বছর থেকে দেশে করদাতার সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। এর অন্যতম কারণ, কর রিটার্ন দাখিল করার পদ্ধতি সহজ করা, অনলাইনে জমা দেবার ব্যবস্থা করা এবং কর নিয়ে মেলা করা। এসবের পাশাপাশি কর দেওয়া ও রিটার্ন দাখিল করা আরও সহজ করতে সম্পূর্ণ অনলাইন নির্ভর ব্যবস্থা করেছে বিডিট্যাক্স ডটকম ডটবিডি। উদ্যোগটি এখন দেশে অনেকটা সাড়া ফেলেছে মানুষের মধ্যে কর দেবার ব্যবস্থা নিয়ে।

বিডিট্যাক্স একটি স্ব-নির্দেশিত সফটওয়্যার। এটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে কর প্রদানের প্রতিটি পদক্ষেপ দেখিয়ে থাকে। ব্যবহারকারীকে শুধু তাদের প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো দিতে হবে। এতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সফটওয়্যার সেই হিসাব করে দেবে কত টাকা ট্যাক্স আসবে, কত টাকা ট্যাক্স ছাড় পাচ্ছে সবই।

উদ্যোগের শুরু
আমাদের দেশের তুলনায় বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলোতে কর প্রদান এবং গ্রহণের হার অনেক বেশি। সেই তুলনা করলে বাংলাদেশ অনেকখানি পিছিয়ে। আমেরিকায় ট্যাক্স কম্পাইন্স যেখানে ৫৪ শতাংশ সেখানে বাংলাদেশে মাত্র ২ শতাংশ। যে দেশের কর প্রদান এবং গ্রহণে যত বেশি সুবিধা দিয়েছে, সহজ করেছে সেখানে তা প্রদানের পরিমাণও বেশি। এমন চিন্তা থেকেই আমাদের এমন উদ্যোগের শুরু বলে জানান প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী জুলফিকার আলী।

২০১৫ সালে একেবারে ছোট পরিসরে এর শুরু করেন তিনি। এরপর বাড়াতে থাকেন পরিসর। আয়কর রির্টার্ন সহজ করতে কাজ শুরু করেন তখন। অনেকেই কর দেবার বিষয়টি বোঝেন না। তবে বিডিট্যাক্স তাদের সিস্টেমটি এমনভাবে তৈরি করেছে যেখানে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ট্যাক্সের সকল হিসাব নিজ থেকেই হয়ে যাবে। সেখানে আয়, ব্যয়, সম্পদ, দায় বা রেয়াত কি হবে সেটা না জানলেও শুধু বিডিট্যাক্সের দেখানো পদক্ষেপগুলো অনুসরণ করলে নিজেই আয়কর রিটার্ন প্রস্তুত করতে পারবেন। সব বাধা অতিক্রম করে বিডিট্যাক্স ডটকম ডটবিডি এখন প্রায় ৩৫ হাজার জনকে তাদের সেবা দিচ্ছে।

বিডিট্যাক্সের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জুলফিকার আলী

যেভাবে ব্যবহার করা যাবে
বিডিট্যাক্সের সিস্টেমটি ব্যবহার করার জন্য প্রথমে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। যা বিনামূল্যে খুলতে পারবেন। এজন্য এই লিঙ্কে গিয়ে অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে। অ্যাকাউন্ট খোলার পর তার জন্য অ্যাক্টিভেশন লিঙ্ক ইমেইলে যাবে। তারপর সেখান থেকে অ্যাকাউন্টটি আক্টিভেট করতে হবে। সব তথ্য পূরণ করা হলে সেখান থেকে রিটার্ন এর পিডিএফ ফাইলটি ডাউনলোড করতে হবে।

যখন রিটার্নের পিডিএফ ডাউনলোড করার সঙ্গে সঙ্গে ৭৯৯ টাকা + ১৫% ভ্যাট কেটে নেবে বিডিট্যাক্স। আর এমন ফি প্রতিবছর কাটবে বিডি ট্যাক্স। এই সেবা পাওয়া যাবে ওয়েবসাইটের লাইভ চ্যাটের মাধ্যমেও।

যেসব বাধা এসেছে
উদ্যোগটি নেওয়া সহজ কাজ ছিল না বলে জানান জুলফিকার আলী। কারণ, এখন পর্যন্ত দেশের বেশিরভাগ করদাতা হাতে কলমে রিটার্ন প্রস্তুত করে আসছেন। তাদের অনালাইনে আয়কর রিটার্ন প্রস্তুতের আওতায় আনাটাই আমাদের জন্য প্রধান এবং প্রথম চ্যালেঞ্জ ছিল।

এছাড়া উদ্যোগটি হাতে নিতে গিয়ে করদাতাদের অনলাইন ট্যাক্স প্রস্তুত সম্পর্কে অবগত করা, করদাতারা সিস্টেমটি কিভাবে ব্যবহার করবে তা শেখানো, গ্রাহকের বিশ্বাস এবং আস্থা অর্জন করা ছিল খুবই চ্যালেঞ্জের। এছাড়াও দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ তৈরি করা ছিল একটা বড় চ্যালেঞ্জ।

কর্মী যতজন
বিডিট্যাক্স ডটকমে এখন ২০ জনের বেশি কর্মী কাজ করছেন। উদ্যোগটি কয়েকজনকে নিয়ে শুরু হলেও এখন দলে যোগ হয়েছে সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, মার্কেটিং, অ্যাকাউন্টস ও অ্যাডমিন, কোয়ালিটি অ্যানালিস্টসহ আরও কিছু কর্মী।

আছে সামনের দিনের পরিকল্পনা
যেহেতু সবই এখন ইন্টারনেট ব্যবহারে অভ্যস্থ হয়ে পড়ছেন তাই অনলাইন নির্ভর সেবার প্রতি অনেকেই নির্ভরশীলও হয়ে পড়েছেন। আর সবাই চায় খুব সহজেই নিজেদের কাজগুলো করতে। সেই চিন্তা থেকে আমরা পরিকল্পনা সাজিয়েছি বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে যেন বাংলাদেশের করদাতারা সহজে, অল্প সময়ে, সঠিক ও ঝামেলামুক্ত ভাবে তাদের ট্যাক্স প্রদান করতে পারে জানান জুলফিকার আলী।

দেশের মানুষের ভিতরে যেন কোন ট্যাক্স ভীতি না থাকে সেটা দূর করা এবং তারা যেন স্বতঃস্ফূর্তভাবে অনলাইনে ট্যাক্স জমা দিয়ে দেশের উন্নয়ন এ অংশগ্রহণ করতে পারেন সেই লক্ষ্যে কাজ করা। এছাড়াও এনবিআর এর পাশাপাশি আমাদের সিস্টেম এর মাধ্যমে আমরা যাতে সর্বাধিক আয়কর প্ৰদান নিশ্চিত করতে পারি।

অর্জনের ঝুলিতে যত পুরস্কার
যাত্রার পর নিজেদের সফলতার স্বীকৃতি পেয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৭ সালে ‘বাংলাদেশ স্টার্টআপ অ্যাওয়ার্ড’ এবং ২০১৮ সালে ‘বেসিস ন্যাশনাল আইসিটি অ্যাওয়ার্ড’ পায় প্রতিষ্ঠানটি।

ইএইচ/ফেব্রু১১/২০১৯/১৯২৪

আরো পড়ুন ঃ-

২ টি মতামত

  1. মিলি বেগম said:

    ভাল লাগলো,,আমি আয়কর আইনজীবী হিসাবে সদস্য হলাম কিন্তু আয়কর সম্পর্কে ধারনা নাই বললেই চলে।।কিভাবে আপনাদের সহযোগিতা পেতে পারি।

*

*