বিজয়ের দিনে ফোরজি নিয়ে হাজির টেলিটক

teletalk-4G-techshoshor
ছবি : সংগৃহীত
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বিজয় দিবসে ফোরজি চালু করেছে টেলিটক। উচ্চ গতির নেটওয়ার্কের প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে থাকা অপারেটরটি হাকডাক ছাড়াই নতুন এ সেবায় নাম লেখায়।

অন্য তিন প্রতিদ্বন্দ্বী অপারেটর যেখানে লাইসেন্স পাওয়ার কয়েক ঘন্টার মধ্যে চতুর্থ প্রজন্মের সেবা চালু করে সেখানে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে সেবা শুরু করতে রাষ্ট্রায়ত্ত অপারেটরটি ১০ মাস সময় নিল।

অপারেটরটি বলছে, তাদের নেটওয়ার্কের স্পিড আপলোডের ক্ষেত্রে হবে ১৫ এমবিপিএস। ডাউনলোডের স্পিড হবে ৪০ এমবিপিএস।

প্রথম দফায় গুলশান, নিকেতন, বারিধারা, বনানী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, রমনা, মতিঝিল, মিরপুর, মোহাম্মদপুর, শ্যামলী, ফার্মগেট ও ধানমণ্ডিসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় ফোরজি সেবা পাওয়া যাবে বলে জানিয়েছেন টেলিটকের কর্মকর্তারা।

একই সঙ্গে অপারেটরটি জানিয়েছে, খুব তাড়াতাড়ি সারাদেশে দ্রুতগতির এ ইন্টারনেট সেবা চালু করবে তারা।

এর আগে নভেম্বরে রাজধানীর ধানমণ্ডিসহ আশপাশের এলাকায় ফোরজির পরীক্ষামূলক সেবা শুরু করে অপারেটরটি।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সব মিলে শুরুতে প্রায় সাড়ে পাঁচশ টাওয়ারকে তারা ফোরজি ব্যবহারের উপযোগী করছেন। আরও পাঁচশ টাওয়ারকেও খুব তাড়াতাড়ি ফোরজি সেবা দেওয়ার উপযোগী করার কাজ চলছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, ফোরজি সেবা বিস্তারের জন্য টেলিটকের নিজস্ব তহবিলের ৯৮৭ কোটি টাকায় এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

সরকারি অর্থায়নে আরও কয়েকটি প্রকল্প অল্প দিনের মধ্যে শুরু হবে বলেও জনিয়েছে সূত্র।

রোববার ৪৮তম বিজয় দিবসকে সামনে রেখে ফোরজি’র ঘোষণা দেয় তারা। এক্ষেত্রে খুব একটা আড়ম্বর করেনি অপারেটরটি।

২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে থ্রিজি সেবা চালুর সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে ভিডিও কলের মাধ্যমে সেবার উদ্বোধন করেছিলেন।

এর এক বছরের বেশি সময় পর অন্য বেসরকারি অপারেটরগুলো থ্রিজি চালুর সুযোগ পেয়েছিল। এতে করে সেই দফায় তারা অন্যদের তুলনায় অনেকটা এগিয়েও গিয়েছিল। তবে চতুর্থ প্রজন্মের সেবা চালু করতে গিয়ে রাষ্ট্রায়ত্ত অপারেটরটি বরং বড় ধাক্কা খেয়েছে।

টেলিটক বলছে, তাদের ফোরজি সেবা পাওয়ার পেতে হ্যান্ডসেট সাপোর্ট করার পাশাপাশি ২০১২ সালের আগে নেওয়া সব টুজি বা থ্রিজি সিম বদলাতে হবে।থ্রিজি থেকে ফোরজিতে মাইগ্রেট করতে হলে 4G লিখে সেন্ড করতে হবে 111 নম্বরে।

বিটিআরসি’র হিসাব অনুসারে অক্টোবরের শেষে অপারেটরটির কার্যকর সংযোগ সংখ্যা ৩৪ লাখ ৯৩ হাজারে এসে দাঁড়িয়েছে। কয়েক বছর আগেও যা প্রায় ৪৮ লাখের কাছাকাছি ছিল।

এর আগে সরকারের দিকে থেকে প্রথমে মে মাসের মধ্যে এবং পরে আগস্টে ফোরজি চালুর ঘোষণা দেওয়া হলেও তা শেষ পর্যন্ত হয়ে ওঠেনি।

৯ টি মতামত

  1. তানভীর কবির said:

    প্রতিটা জেলায় যদি 4G চালু করা যায় এবং যে স্পিড এর কথা বলা হয়েছে,তা যদি দেয়া যায় তাহলে আমার মত অনেকেই অন্য অপারেটর চেড়ে টেলিটকে আসবে, আর আমি আশাকরি গ্রাহক সংখ্যা কোটি ছাড়িয়ে যাবে!! শুভকামনা রইলো।।

  2. Soam Zeet said:

    শুধু ‘হাজির’ থাকলে চলবে না… নেটওয়ার্কও নাজিল করতে হবে….

    রায়ান্স কম্পিউটার্স বাংলাদেশে নেটওয়ার্কিংয়ের যাবতীয় পণ্য সরবরাহ করে থাকে। তারা চাইলে সরকারী এই টেলিকম সংস্থাকে সহায়তা করতে পারেন…

    • tahmina tania said:

      প্রিয় পাঠক , আপনার মুল্যবান মতামতের জন্য অনেক ধন্যবাদ । ভালো থাকুন । টেক শহরের সাথেই থাকুন ।

  3. Tanvir said:

    টেলিটক 4G এনেছে ঠিক আছে, খুব দ্রুত সমগ্র বাংলাদেশে এটার সেবা ছড়িয়ে দিতে হবে এবং 4G স্পিড ভালো থাকতে হবে, সেটাই কামনা করছি টেলিটক এর কাছে।

    • tahmina tania said:

      প্রিয় পাঠক , আপনার মুল্যবান মতামতের জন্য অনেক ধন্যবাদ । ভালো থাকুন । টেক শহরের সাথেই থাকুন ।

  4. মিঠু said:

    এখন পর্যন্ত বুঝলাম না কোন সিম টা ভালো ??? কেউ কি বলতে পারবেন কোন সিম টার সার্ভিস ভালো হবে ???

    • tahmina tania said:

      প্রিয় পাঠক, অফারের বন্যায় আপনি নিজেই যাচাই করে নিন । আপনি পেয়ে যাবেন এর উত্তর । সাথে থাকুন । ভালো থাকুন ।

*

*

আরও পড়ুন