মোবাইল আসল কিনা তা যাচাই ডিসেম্বর হতে

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল ফোন বৈধ পথে বাজারজাত করা এবং আসল কিনা তা জানার সেবা চালু হচ্ছে ডিসেম্বরে।

বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইম্পোর্টাস অ্যাসোসিয়েশন (বিএমপিআইএ) এই সেবা দেবে। মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে দেশের মোবাইল ফোনের বর্তমান বাজার পরিস্থিতি নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানায় সংগঠনটি।

সংগঠনটি  মোবাইল ফোনের ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল স্টেশন ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি বা আইএমইআই নম্বরের ডেটাবেইজ তৈরি ও তা সংরক্ষণ করবে।

ডিসেম্বর হতে দেশে বৈধ পথে আমদানি করা এবং দেশে তৈরি হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর এই ডেটাবেইজে যুক্ত হবে।ক্রেতারা এসএমএসের মাধ্যমে  এই ডেটাবেইজ হতে জানতে পারবেন ফোনটি বৈধ পথে আমদানিকৃত কিনা বা আসল কিনা। এ জন্য একটি শর্টকোড থাকবে।

এতে অবৈধ উপায়ে আমদানি করা বা গ্রে মার্কেটে আসা, নকল বা ক্লোন হ্যান্ডসেট সহজেই সনাক্ত হয়ে যাবে।

বিএমপিআইএ এর সভাপতি রুহুল আলম আল মাহবুব টেকশহরডটকমকে জানান, বিটিআরসি হতে ২৬ এপ্রিল তাদের হ্যান্ডসেট আমদানি অনাপত্তিপত্র ব্যবস্থার অটোমেশন এবং আইএমইআই ডাটাবেস তৈরি ও সংরক্ষণের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

‘বিটিআরসি ভবনে এ জন্য জায়াগাও পাওয়া গেছে। এখন সেখানে যন্ত্রপাতি স্থাপনের কাজ চলছে যা শিগগির সম্পন্ন হয়ে যাবে। ডিসেম্বরে তারা এই ব্যবস্থা চালু করে দিতে পারবেন’, বলছিলেন দেশে স্যামসাংয়ের কারখানা স্থাপনের দেশীয় অংশীদার ফেয়ার গ্রুপের এই চেয়ারম্যান।

ডিসেম্বর মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে এই ডেটাবেইজ চালুর ঘোষণা দেয়া হবে বলে জানান তিনি। তখন বিস্তারিত জানানো হবে গ্রাহক কীভাবে, কোন নম্বরে এসএমএস করে এই যাচাই সুবিধা পাবেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন টেকনো ও আইটেলের কারখানা স্থাপনকারী ট্র্যানশান বাংলাদেশ লিমিটেডের সিইও রেজওয়ানুল হক, আইফোন ও নোকিয়া হ্যান্ডসেট আমদানিকারক ইউনিয়ন গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টও রকিবুল কবির, বিএমপিাইএর যুগ্ম সম্পাদক  মেজবাহ উদ্দিন, সহ-যুগ্ম সম্পাদক জয়নাল আবেদিন, উইনম্যাক্স মোবাইলের আমদানিকারক এএম এইচ টেকনোলজির চেয়ারম্যান এম এইচ খান।

তারা সবাই বলছেন, এই পদ্ধতি চালুর ফলে বাজারে অবৈধ ফোনের ব্যবহার বন্ধ হবে। এ খাতে সরকারের রাজস্ব বাড়বে এবং বৈধ ব্যবসায়ীরা স্বস্তিও পাবেন।

এছাড়া আইএমইআই নিবন্ধন ছাড়া হ্যান্ডসেটে ব্যবহার করা সংযোগও বন্ধ করে দেয়া যাবে। সিম বদলে ফেললেও হ্যান্ডসেট দিয়ে অপরাধীকে ধরা যাবে। হ্যান্ডসেট চুরি গেলে তা সহজে উদ্ধার সম্ভব হবে।

যেসব ফোন বিদেশে বেড়াতে গিয়ে সঙ্গে আনা হয় বা উপহার হিসেবে কেউ পাঠায় সেগুলোর ক্ষেত্রে কী হবে এমন এক প্রশ্নের জবাবে বিএমপিাইএর যুগ্ম সম্পাদক  মেজবাহ উদ্দিন বলেন, সাধারণত ৫টি হ্যান্ডসেট একজন যাত্রী সঙ্গে আনতে পারেন। এরমধ্যে ২টি শুল্ক ছাড়া আর ৩টি শুল্কসহ। এ ধরণের হ্যান্ডসেটও নিবন্ধন করার ব্যবস্থা থাকছে।

এএডি/নভে২৭/২০১৮/১৫২০

 

*

*

আরও পড়ুন