বিসিএসসিএলের হাতে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : উৎক্ষেপণের ছয় মাসের মাথায় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ বুঝে নিলো বাংলাদেশ কমিউনেকশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটিড (বিসিএসসিএল)।

শুক্রবার রাজধানীর বাংলা মোটরে কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউয়ে বিসিএসসিএল কার্যালয়ে ‘ট্রান্সফার অফ টাইটেল’ হস্তান্তর অনুষ্ঠান হয়।

এর মধ্য দিয়ে দেশের প্রথম বাণিজ্যিক স্যাটেলাইটের আনুষ্ঠানিক নিয়ন্ত্রণ বুঝিয়ে দেয় স্যাটেলাইট নির্মাণকারী ফরাসি কোম্পানি থালাস অ্যালেনিয়া স্পেস।

কোম্পাননিটির প্রোগ্রাম ম্যানেজার জিল অবাদিয়া বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হকের কাছে ‘ট্রান্সফার অফ টাইটেল’ হস্তান্তর করেন। পরে তিনি সেটি হস্তান্তর করেন বিসিএসসিএলের চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদের কাছে।

অনুষ্ঠানে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, যে দেশ এক সময় তলাহীন ঝুড়ি অ্যাখায়িত ছিল সেটি এখন  স্যাটেলাইটের মালিক, এটি আমাদের জন্য গর্বের। দেশের মানুষের জন্য এই দিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

বিসিএসসিএল চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বলেন, আজ থেকে বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের প্রকৃত মালিক হল। ২০০৯ সাল থেকে দীর্ঘ এক যাত্রার শেষ হল এর মাধ্যমে।

গত ১১ মে স্যাটেলাইটটি মহাকাশে উৎক্ষেপণ করা হয়। নিজ কক্ষপথ ১১৯ দশমিক ১ ডিগ্রিতে পৌঁছানো পর এটির ইন অরবিট টেস্ট (আইওটি)সহ নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা সবই সম্পন্ন হয়েছে।

এর মধ্যে সেপ্টেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত সাফ চাম্পিয়নশিপ সরাসরি সম্প্রচার করার পরীক্ষাতেও এটি সফলতা দেখিয়েছে। পরে স্যাটেলাইটের মাধ্যমে দুবাইতে এশিয়া কাপ ক্রিকেটের সম্প্রচারসহ আরও কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষাও করেছে বাংলাদেশ টেলিভিশন।

একইসঙ্গে অন্য কয়েকটি বেসরকারি টেলিভিশনের সঙ্গেও বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।

স্যাটেলাইটটিকে ব্যবসায়িকভাবে সফল করতে ইতোমধ্যে থাইল্যান্ডের কোম্পানি থাইকমের সঙ্গে চুক্তি করেছে বিসিএসসিএল। ফলে আন্তর্জাতিক বাজারের ব্যবসার দিকটি তারাই দেখবে।

সব মিলে স্যাটেলাইটটি উৎক্ষেপণ করতে সরকারের খরচ হয়েছে দুই হাজার ৭৬৫ কোটি টাকা। আগামী সাত বছরের মধ্যে এ খরচ উঠবে আসবে বলে হিসাব করেছে উৎক্ষেপণকারী সংস্থা বিটিআরসি।

ইতোমধ্যে সরকারের বেশ কয়েকটি মন্ত্রণালয় এ স্যাটেলাইট থেকে সংযোগ নিতে আগ্রহ দেখিয়েছে। তাছাড়া কোম্পানির পক্ষ থেকে সেবা নিতে ৪৫ মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে চিঠি দেওয়া হয়েছে।

ইএইচ/নভে০৯/২০১৮/২০০০

*

*

আরও পড়ুন