Techno Header Top and Before feature image

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল আনতে পারবেন বেসরকারি উদ্যোক্তারাও

Submarine_Cable-techshohor-2

আল-আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল আনতে পারবেন বেসরকারি উদ্যোক্তারাও। এজন্য বেসরকারি কোম্পানিকে লাইসেন্স দেয়া হবে।

তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের প্রস্তাবে বেসরকারি বিনিয়োগের এসব বিষয় যুক্ত হচ্ছে। চলতি বছরের অক্টোবরে তৃতীয় সাবমেরিনের ক্যাবল নিয়ে এক আলোচনায় প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এমন নির্দেশনা দিয়েছেন।

এর আগে অক্টোবরের তৃতীয় সপ্তাহে তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের প্রস্তাব গুছিয়ে আনা হয়।

দেশে প্রথম ও দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল এনেছে সরকারি কোম্পানি বিএসসিসিএল। এবার তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের ক্ষেত্রে বেসরকারি বিনিয়োগের সুযোগ রাখায় প্রতিযোগিতা করতে হবে কোম্পানিটিকে।

দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের জন্য সরকারকে খরচ করতে হয়েছে ৬০০ কোটি টাকা। ক্যাবলটির মেয়াদকাল ২০ থেকে ২৫ বছর।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার টেকশহরডটকমকে বলেন, ‘কোনো একটি প্রতিষ্ঠান অথবা জয়েন্টভেঞ্চার, কোনো দেশী প্রতিষ্ঠান কিংবা বিদেশি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে দেশী কেউ  অথবা বিদেশি প্রতিষ্ঠান নিজেই তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে বিনিয়োগ করতে পারবে। আমরা বিনিয়োগের সুযোগ দিচ্ছি সঙ্গে প্রতিযোগিতা তৈরি করছি।’

‘বেসরকারি খাতে কেউ যদি এগিয়ে আসে যে, আমরা পিপিপি করবো বা আমরাই সাবমেরিন ক্যাবল করবো ,সেটার অপশন রাখা হচ্ছে। সাবমেরিন ক্যাবল কেউ যদি ব্যক্তি উদ্যোগে অথবা যৌথ উদ্যোগে করতে চায় তাহলে সেক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় লাইসেন্স যেটুকু দেয়ার সেটুকু অামরা দেবো।’ বলছিলেন মন্ত্রী।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘ব্যক্তি খাতকে সক্রিয় করতে হবে। বেসরকারি খাত যদি সক্রিয় না থাকে তাহলে সরকারি খাত যেমন দূর্বল হয়ে যায় আবার সরকারি খাত যদি না থাকে তাহলে বেসরকারি খাত মনোপলি হয়ে যায়। তাই ব্যালেন্স করে পাশাপাশি দুটিকেই রাখতে হবে।’

‘তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে বেসরকারি বিনিয়োগ আসলে এখানকার সরকারি অর্থ আরেকটি খাতের উন্নয়নে কাজে লাগানো যাবে।’ উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

২০০৫ সালে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো সাবমেরিন ক্যাবল ‘সি-মি-ইউ-৪’ এ যুক্ত হয়, যার মাধ্যমে এখন প্রায় ৩০০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইডথ পাওয়া যাচ্ছে। অন্যদিকে ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে চালু হওয়া দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সি-মি-উই-৫ ক্যাবল হতে এখন ৩০০ জিবিপিএসের মতো ব্যান্ডউইথ ব্যবহার হচ্ছে। যদিও দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলের ক্ষমতা ১৫০০ জিবিপিএস। অন্যদিকে ভারত হতে প্রায় ২২০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ আসছে।

দেশের ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথের ব্যবহার এখন ৮৫০ জিবিপিএস ছড়িয়েছে। এর আগে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরের শেষে দেশে ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথের ব্যবহার প্রথমবারের মতো পাঁচশ জিবিপিএস ছাড়িয়ে যায়।

নভে০৭/২০১৮/২২২৫

আরো পড়ুন ঃ –

ব্যান্ডউইথের ব্যবহার ৮০০ জিবিপিএস ছাড়িয়ে

ব্যান্ডউইথের দাম কমছে আরও ২০ শতাংশ

*

*

আরও পড়ুন